ঝড়ো আবহাওয়ায় স্ত্রীকে ফেলে গেলেন ট্রাম্প
ঝড়ো আবহাওয়ায় স্ত্রীকে ফেলে গেলেন ট্রাম্প

ঝড়ো আবহাওয়ায় স্ত্রীকে ফেলে গেলেন ট্রাম্প

ডেইলি মেইল অনলাইন

ঝড়ো আবহাওয়ায় স্ত্রী মেলানিয়াকে ফেলে বিমানে উঠেছিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প, নামার সময় দৃশ্যত তার জবাবও দিয়ে দিলেন ফার্স্টলেডি। 

রেভারেন্ড বিলি গ্রাহামের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় যোগ দিতে শুক্রবার সকালে নর্থ ক্যারোলাইনায় যাওয়ার সময় ঘটনার বিবরণ তুলে ধরেছে ডেইলি মেইল।

ডুলেস বিমানবন্দর থেকে এয়ারফোর্স ওয়ানে রওনা হয়েছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ও ফার্স্টলেডি। ভিডিওতে দেখা যায়, ঝড়ো আবহাওয়ার মধ্যে মেলানিয়াকে পেছনে ফেলে দ্রুত উড়োজাহাজে উঠে যাচ্ছেন ট্রাম্প। স্বামী উঠে যাওয়ার পর একা একা উড়োজাহাজে ওঠা মেলানিয়া নর্থ ক্যরোলাইনায় নামার সময় যে আচরণ করেন, তাকে স্বামীর আচরণের জবাব হিসেবেই দেখা হচ্ছে।
ভিডিওতে দেখা যায়, নর্থ ক্যারোলাইনায় পৌঁছার পর বিমান থেকে নামার সময় ট্রাম্প মেলানিয়ার হাত ধরতে চাইলেও তাতে সফল হননি। কয়েকবারই স্ত্রীর হাত ধরতে হাত বাড়িয়েছিলেন ট্রাম্প, কিন্তু মেলানিয়া তার হাত বারবার সরিয়ে নিচ্ছিলেন।

৭১ বছর বয়সী স্বামীর সঙ্গে একই ধরনের আচরণ করতে সম্প্রতি আরেকবার দেখা গিয়েছিল ৪৭ বছর বয়সী ফার্স্টলেডিকে। এক প্লেবয় মডেলের সঙ্গে যৌনাচার লুকাতে ট্রাম্পের অর্থ ব্যয়ের খবর ফাঁস হওয়ার পর এই ধরনের শীতল প্রতিক্রিয়া এসেছিল মেলানিয়ার। মেলানিয়ার গর্ভে ট্রাম্পের সন্তান ব্যারনের জন্মের সময়টিতে ওই মডেলের সঙ্গে ট্রাম্পের সম্পর্ক চলছিল।

ট্রাম্পের ‘বাণিজ্যযুদ্ধে’র কঠোর পাল্টাব্যবস্থার হুঁশিয়ারি ইইউর
বিবিসি

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ধাতব পদার্থের ওপর শুল্ক বাড়ালে ইউরোপীয় ইউনিয়নও যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে কঠোর পাল্টা ব্যবস্থা গ্রহণ করবে হুঁশিয়ার করে দিয়েছে। ইইউ বাণিজ্য কম কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, তারা যুক্তরাষ্ট্র থেকে ৩৫০ কোটি ডলারের আমদানির ওপর ২৫ শতাংশ কর আরোপের বিষয়টি বিবেচনা করছেন। তবে বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার মহাপরিচালক রবার্তো আজেভেদো বলেছেন, কেউই বাণিজ্য যুদ্ধ চায় না।

‘বাণিজ্য যুদ্ধ’ ভালো বলে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের এক টুইটের পর থেকে বিষয়টি নিয়ে এমন প্রতিক্রিয়া জানালো ইইউ। বৃহস্পতিবার ওই টুইট বার্তায় তার দেশে ইস্পাত আমদানির ওপর ২৫ শতাংশ ও অ্যালুমিনিয়াম আমদানির ওপর ১০ শতাংশ কর আরোপ করার পরিকল্পনার কথা জানান ট্রাম্প। আগামী সপ্তাহের মধ্যে বিষয়টি কার্যকর করা হবে বলেও সেখানে উল্লেখ করেছেন তিনি।

মার্কিন প্রেসিডেন্টের এমন পদক্ষেপের পর ইউরোপীয় ইউনিয়ন যুক্তরাষ্ট্রের ইস্পাত, কৃষিসহ অন্যান্য পণ্যের ওপর কর বাড়ানোর বিষয়টি বিবেচনা করছে। ইউরোপীয় কমিশনের প্রধান জিন ক্লাউডি জানকারের কঠোর পাল্টা ব্যবস্থা নেয়ার সঙ্কল্প ব্যক্ত করেছেন। তিনি বলেন, ‘কোনো অন্যায্য ব্যবস্থার কারণে আমাদের শিল্প ক্ষতিগ্রস্ত হলে আমরাও চুপ করে বসে থাকব না। এমন করা হলে হাজার হাজার ইউরোপিয়ানের চাকরি ঝুঁকির মধ্যে পড়বে।’

জার্মানির এক টেলিভিশন প্রোগ্রামে জানকার বলেন, ‘আমরা হার্লি-ডেভিসন, লেভিসের বোরবোন ও নীল জিনসের ওপর কর আরোপ করব।’ ফ্রান্সের অর্থমন্ত্রী বরুনো লি মাইরে বলেন, যুক্তরাষ্ট্র-ইইউ বাণিজ্য যুদ্ধে সবাই ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তিনি বিষয়টি নিয়ে ‘ইউরোপীয় ইউনিয়নের শক্তিশালী, সহযোগিতামূলক ও সমন্বিত প্রতিক্রিয়া’র অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.