লাখো প্রদীপ জ্বেলে নড়াইলে ভাষা শহীদদের স্মরণ

ফরহাদ খান নড়াইল

লাখো প্রদীপ জ্বেলে নড়াইলে ভাষা শহীদদের স্মরণ করা হয়েছে। বুধবার সন্ধ্যায় নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজ খেলার মাঠে (কুরিডোব মাঠ) মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করা হয়। মোমবাতির আলোয় আলোকিত হয়ে উঠে শহীদ মিনার, জাতীয় স্মৃতিসৌধ, বর্ণমালা, অল্পনাসহ বাংলাদেশের নানান ঐতিহ্য।
এছাড়া ওড়ানো হবে ৬৬ টি ফানুস। একুশ উদযাপন পর্ষদের আহবায়ক প্রফেসর মুন্সি হাফিজুর রহমান জানান, এ কাজে প্রায় চার হাজার স্বেচ্ছাসেবী অংশগ্রহণ করেন। প্রায় ছয় একরের মাঠটি সন্ধ্যায় আলোকিত হয়ে উঠে। অনুষ্ঠানে ‘আমার ভাইয়ের রক্ত রাঙানো ২১ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পারি’ গানের মধ্য দিয়ে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের শিল্পীরা সংগীত পরিবেশন করেন। এছাড়া বিভিন্ন ধরণের গান পরিবেশন করেন স্থানীয় শিল্পীরা।
অন্যদিকে নড়াইলের স্থানীয় কবি, সাহিত্যিক ও লেখকদের প্রকাশিত বই নিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে বইমেলা। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক এমদাদুল হক চৌধুরী, অতিরিক্ত ডিআইজি পদোন্নতিপ্রাপ্ত নড়াইলের পুলিশ সুপার সরদার রকিবুল ইসলাম, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেন বিশ্বাস, নড়াইল পৌর মেয়র জাহাঙ্গীর বিশ্বাস, একুশ উদ্যাপন পর্ষদের আহবায়ক অধ্যাপক মুন্সি হাফিজুর রহমান, সদস্য সচিব নাট্যকার ও অভিনেতা কচি খন্দকার, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুবাস চন্দ্র বোস, সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দীন খান নিলু, নাট্য পরিচালক ও অভিনেতা মিলন ভট্টচার্য প্রমুখ।
একুশ উদ্যাপন পর্ষদের কোষাধ্যক্ষ শামীমূল ইসলাম টুলু জানান, ভাষা শহীদদের স্মরণে ১৯৯৮ সালে নড়াইলে এই ব্যতিক্রমী আয়োজন শুরু হয়। প্রথমবার নড়াইলের সুলতান মঞ্চসহ শহরের বিভিন্ন স্থানে প্রায় ১০ হাজার মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করা হয়। এরপর থেকে নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজ খেলার মাঠে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করে ভাষা শহীদদের স্মরণ করা হচ্ছে। প্রতিবছর এর ব্যপ্তি বেড়েছে। এ বছর (২০১৮) প্রায় এক লাখ মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করা হয়। এ আয়োজন সফল করতে প্রায় একমাস যাবত কাজ করেন নড়াইলের সাংস্কৃতিককর্মী, স্বেচ্ছাসেবকসহ বিভিন্ন পেশার মানুষ। স্কয়ারের সহযোগিতায় মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করা হয়। মাছরাঙা টেলিভিশন সরাসরি সম্প্রচার করে লাখো প্রদীপ প্রজ্জ্বলন অনুষ্ঠানটি।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.