'খালেদার মামলার রায় পর্যালোচনা শেষে সিদ্ধান্ত'
'খালেদার মামলার রায় পর্যালোচনা শেষে সিদ্ধান্ত'

‘খালেদার মামলার রায় পর্যালোচনা শেষে সিদ্ধান্ত’

নিজস্ব প্রতিবেদক

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া মামলার রায়ের সার্টিফাইড কপি পর্যালোচনা শেষে কমিশন সিদ্ধান্ত নিবে বলে জানিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ।

খালেদা জিয়াকে দেয়া পাঁচ বছরের কারাদণ্ডের আদেশের বিরুদ্ধে তার আইনজীবীদের হাইকোর্টে আপিল বাতিল চেয়ে দুদকের পক্ষ থেকে ব্যবস্থা নেয়া হবে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

বুধবার সকালো দুদকের প্রধান কার্যালয়ের মিডিয়া সেন্টারে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে কমিশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচির উদ্বোধন করেন কমিশন চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ। ‘সন্ধানী গণস্বাস্থ্য সমাজভিত্তিক মেডিক্যাল ইউনিট’-এর পরিচালনায় এই রক্তদান কর্মসূচি পরিচালিত হয়।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, কমিশনের সকল মামলাতেই যথাযথ মান অনুসরণ করা হয়। কমিশনের আইন অনুবিভাগ মামলার রায়ের সার্টিফাইড কপি পর্যালোচনা করে কমিশনে যে সকল সুপারিশ পেশ করে, কমিশন সেগুলো পর্যালোচনান্তে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। এটি কমিশনের দীর্ঘ দিনের চলমান প্রথা।

অপর প্রশ্নের জবাবে দুদক তিনি বলেন, কমিশনের কাছে জাতির প্রত্যাশা সঙ্গত কারণে বেড়েছে। এই প্রত্যাশা কাঙ্ক্ষিত মাত্রায় পূরণ করতে না পারলেও কমিশন দুর্নীতি দমন ও প্রতিরোধে সর্বোচ্চ চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে।

তিনি বলেন, আমি আগেও একাধিকবার বলেছি, কমিশনের একার পক্ষে দুর্নীতি নির্মূল করা সম্ভব নয়। বিভাজিত নয় সম্মিলিতভাবে দুর্নীতির বিরুদ্ধে দৃঢ় অবস্থান নিতে হবে। সবাই ঐক্যবদ্ধ হলেই দেশের অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নসহ সকল উন্নয়ন সম্ভব।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেন, মহান ভাষা আন্দোলনের পথ ধরেই বাংলাদেশের স্বাধীনতার লাল সূর্য উদিত হয়। এই মহান ভাষা শহীদরাই তাদের বুকের তাজা রক্ত দিয়ে মায়ের ভাষাকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। আমরা সবাই যদি মানুষের কল্যাণ, ভাষা এবং ভাগ্যোন্নয়নে সম্মিলিতভাবে কাজ করি, তবেই তাদের প্রতি প্রকৃত শ্রদ্ধা প্রদর্শন করা হবে। ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য একটি সুখী-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণে আমাদেরও আত্মত্যাগের প্রয়োজন রয়েছে।

কমিশনের রক্তদান কর্মসূচির প্রসঙ্গে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, এটি শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শনের একটি ক্ষুদ্র প্রচেষ্টা মাত্র। কমিশনের যে সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী স্বেচ্ছায় রক্তদান করছেন, তাদের অভিনন্দন জানিয়ে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, এটি আপনাদের ত্যাগ ও শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের অনুকরণীয় অনুশীলন। আজকের দিনে আমাদের প্রত্যেকের অঙ্গীকার হবে , আমরা যে যেখানে যে কাজ করি, তা হতে হবে ব্যক্তি বা গোষ্ঠি স্বার্থ বর্জিত, ন্যায়-নিষ্ঠ এবং দুর্নীতিমুক্ত ।

এসময় দুদক কমিশনার এ এফ এম আমিনুল ইসলাম, সচিব ড. মোঃ শামসুল আরেফিনসহ কমিশনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.