একুশে ফেব্রুয়ারিতে ৪ স্তরের নিরাপত্তা : ডিএমপি কমিশনার

নিজস্ব প্রতিবেদক

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন উপলক্ষে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারকে ঘিরে চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া।

আজ আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালনে ডিএমপি নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিদর্শন শেষে শহীদ মিনারের সামনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসকে ঘিরে কোনো সুনির্দিষ্ট হুমকি নেই বলেও তিনি জানান।

আছাদুজ্জামান মিয়া জানান, শহীদ মিনার ও তার আশপাশে স্থাপন করা হয়েছে বিপুল সংখ্যক সিসিটিভি ক্যামেরা। কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সামনে স্থাপিত পুলিশ কন্টোল রুম থেকে এই ক্যামেরার মাধ্যমে সার্বক্ষণিক মনিটরিং করা হবে। শহীদ মিনার ও আশপাশের এলাকায় ডগ স্কোয়াড ব্যবহার করে নিরাপত্তা তল্লাশি করা হবে। সাদা পোশাকে ও ইউনিফর্মে পর্যাপ্ত সংখ্যক পুলিশ সদস্য নিয়োজিত থাকবে। শহীদ মিনার এলাকায় প্রবেশের পূর্বে প্রত্যেক দর্শনার্থীকে একাধিক আর্চওয়ে ও মেটাল ডিটেক্টর দিয়ে তল্লাশি করে প্রবেশ করতে দেয়া হবে। এ ছাড়া শাহবাগ-নীলক্ষেত মোড়ে বেষ্টনি দেয়া হবে। তল্লাশি ছাড়াও নিরাপত্তার জন্য পুলিশের ভ্রাম্যমাণ দল, ফুট পেট্রোলিং থাকবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও কর্মচারী ছাড়া কাউকে ২০ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা ছয়টার পর ঢুকতে দেয়া হবে না।

আছাদুজ্জামান মিয়া আরো বলেন, মন্ত্রিপরিষদ সদস্য, ভিআইপিদের দোয়েল চত্বর দিয়ে আসতে হবে। জিমনেশিয়াম চত্বর দিয়ে আসবেন কূটনীতিকেরা। তারা শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে একই পথে বের হবেন।

মহামান্য রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রীবর্গসহ অন্যান্য ভিভিআইপিদের পুস্পস্তবক অর্পন শেষে জনসাধরণের জন্য প্রবেশদ্বার খুলে দেয়া হবে।

রাত সাড়ে ১২টার দিকে পলাশী মোড় দিয়ে সর্বসাধারণের শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য পথ খুলে দেয়া হবে। তারা জগন্নাথ হল ক্রসিং হয়ে শহীদ মিনারের উত্তর দিক দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করতে যাবেন।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.