শিশুকে মুখ বেঁধে পাশবিক নির্যাতনের চেষ্টা লম্পট চাচার
শিশুকে মুখ বেঁধে পাশবিক নির্যাতনের চেষ্টা লম্পট চাচার

শিশুকে মুখ বেঁধে পাশবিক নির্যাতনের চেষ্টা লম্পট চাচার

ঈশ্বরগঞ্জ (ময়মনসিংহ) সংবাদদাতা

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণির ছাত্রীকে পাশবিক নির্যাতনের চেষ্টা চালিয়েছে প্রতিবেশী চাচা সম্পর্কে এক লম্পট। শিশুটিকে বাড়ির পাশ থেকে তুলে নিয়ে মুখ বেঁধে পাশবিক নির্যাতনের চেষ্টা চালানো হয়। গত শুক্রবার সন্ধ্যায় ঘটনাটি ঘটে। খবর পেয়ে শনিবার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

জানা যায়, উপজেলার পৌর এলাকার চার নম্বর ওয়ার্ডের চরনিখলা গ্রামের বাসিন্দা আবদুল হাইয়ের ছেলে কাঞ্চন মিয়া (২৪) তারই প্রতিবেশী ভাতিজা সম্পর্কে সাত বছরের শিশুকে পাশবিক নির্যাতনের চেষ্টা করেছে। কাঞ্চনের পিতা আবদুল হাই তার মাকে নিয়ে ঢাকায় থাকেন। অটোচালক কাঞ্চন মিয়া নির্জন বাড়িতে দাদির সাথে একা থাকেন।

গত শুক্রবার সন্ধ্যায় ছাগল খুঁজতে বের হয় শিশুটি। ওই সময় আগে থেকে ওৎপেতে থাকা কাঞ্চন বাড়ির সামনের সড়ক থেকে শিশুটিকে তুলে নিয়ে যায় তাদের নির্জন বাড়িতে। ওই সময় গামছা দিয়ে শিশুটির মুখে বেঁধে নিজের ঘরে নিয়ে পাশবিকতা চালানোর চেষ্টা করে। ওই সময় শিশুটি কাঞ্চনের কাছ থেকে বাঁচতে থাকে কামছ ধরে একপর্যায়ে তার মুখের বাঁধন খুলে গেলে কাঞ্চনের হাতে কামড় দেয়। কামড় খেয়ে কাঞ্চন শিশুটিকে ছেড়ে দিলে সে দৌঁড়ে পালাতে সক্ষম হয়। পরে শিশুটির তার পরিবারের কাছে জানালে স্থানীয়দের কাছে যান শিশুটির পরিবার। ওই অবস্থায় শনিবার শিশুটির বাড়ির কাছেই বিচার হয় অভিযুক্ত কাঞ্চনের। একটি দোকানের কাছে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলরের ভাই নুরুল ইসলাম কাঞ্চনকে বেত্রাঘাত করে শাস্তি দেন।

বিষয়টি এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে ক্ষোভে ফুঁসে ওঠেন প্রতিবেশীরা। ঘটনার খবর পেয়ে এলাকায় গেলে স্থানীয়রা অভিযুক্তের কঠোর বিচার দাবি করেন। সকালে শাস্তি দেয়ার পর বাড়ি ছেলে পালিয়েছে কাঞ্চন। শিশুটির মা অভিযুক্ত কাঞ্চনের বিচার দাবি করে বলেন, তাকে এমন শাস্তি দেয়া হোক যেন এলাকায় এমন ঘটনা আর কেউ করতে সাহস না পায়।

ঈশ্বরগঞ্জ থানার ওসি মো. বদরুল আলম খান বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে পুলিশ। শিশুটিকে তার অভিভাবকরা থানায় নিয়ে এসেছে এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.