সৌদি-ইসরাইল সম্পর্কের পেছনে এক সাংবাদিক
সৌদি-ইসরাইল সম্পর্কের পেছনে এক সাংবাদিক

সৌদি-ইসরাইল সম্পর্কের পেছনে এক সাংবাদিক

রাশিদুল ইসলাম

লন্ডনভিত্তিক আরবি মিডিয়া এলাফের সাংবাদিক মাজদি হালাবি। ইসরাইল সেনাবাহিনীর প্রধান থেকে শুরু করে মন্ত্রী ও গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির সাক্ষাৎকার গ্রহণ করেন তিনি। এসব প্রচারের পর সৌদি আরবসহ বিভিন্ন আরব দেশ ইসরাইল সম্পর্কে আগ্রহী হয়ে ওঠে। আর এ আগ্রহের অন্যতম কারণ মধ্যপ্রাচ্যে ইরানের প্রভাব বিস্তার রোধে আরব দেশগুলোর সাথে ইসরাইলের একসাথে কাজ করার ইচ্ছা। ৫৪ বছরের হালাবি নিজেও ভাবেননি তার সাংবাদিকতার পথ ধরেই ইসরাইল ও আরব বিশ্বের নেতারা নিজেদের মধ্যে দূরত্ব কমিয়ে আনবেন। কিন্তু লন্ডনভিত্তিক আরব মিডিয়া হওয়ার কারণে হালাবির ওপর ইসরাইলের নেতাদের সাক্ষাৎকার গ্রহণে আরব দেশগুলোর সাংবাদিকদের মতো কোনো বিধি-নিষেধ ছিল না।

এভাবে রিয়াদ ও তেলআবিবের মধ্যে এক সম্পর্কের ভিত্তি গড়ে দেন মাজদি হালাবি। গত এক বছর ধরে তিনি আরবি মিডিয়া এলাফে ইসরাইলের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের ধারাবাহিক সাক্ষাৎকার প্রকাশের সুযোগ পেয়েছেন। ইসরাইলের সেনাবাহিনী প্রধান, সাবেক প্রতিরক্ষামন্ত্রী, গোয়েন্দামন্ত্রী ও বিরোধী দলের নেতারও সাক্ষাৎকার নিয়েছেন হালাবি। আবার সৌদি আরবের সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক থাকার কারণে খুব সহজেই তাকে ঘিরে ইসরাইল- সৌদি সেতুবন্ধন তৈরি হয়। প্রথমত, ইসরাইলের নেতারা আরব দেশগুলোর ইরান বৈরিতার কথা ভালোভাবেই জানতেন। তাই তারা আগ্রহ দেখান ইরানের বিরুদ্ধে আরব দেশগুলোর সাথে গোয়েন্দা ও সামরিকসহ যেকোনো ধরনের সহযোগিতা করার। তাদের এসব সাক্ষাৎকার পড়ে সৌদি ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান রীতিমতো প্রলুব্ধ হন। আরেক দিকে ইসরাইলি রিপোর্টার হিসেবে মাজদি হালাবির গ্রহণযোগ্যতা ছিল দেশটির নেতাদের কাছে খুবই উঁচুতে। ইসরাইলের হাইফায় গ্যালিলিয়ান দ্রুজ গ্রাম দালিয়াত আল-কারমালে মাজদি হালাবির জন্ম। আর এলাফের প্রকাশক ওসমান আল ওমেইর হালাবির এ ধরনের সাক্ষাৎকারের উদ্যোগে সব ধরনের পেশাগত সহযোগিতা করেন। আবার ওসমান আল ওমেইরের সাথে সৌদি ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানের ঘনিষ্ঠতা ছিল আগে থেকেই।

এলাফের প্রকাশক ওসমান আল ওমেইর সৌদি নাগরিক। এক সময় তিনি সৌদি মিডিয়া আস-শারক আল আওসাতের এডিটর ইন চিফ ছিলেন। সেই সুবাদে তিনি সৌদি বাদশাহ সালমানের বেশ ঘনিষ্ঠ। ২০০১ সালে ওথমান আল ওমেইর লন্ডনে প্রথম আরবি মিডিয়া এলাফ চালু করেন। একবার ইসরাইলের গোয়েন্দা ও যোগাযোগমন্ত্রী ইসরাইল কাৎজ তাকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে সৌদি ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানকে ইসরাইল ভ্রমণের আমন্ত্রণ জানান, যে অংশটি শেষ মুহূর্তে বাদ দেয়া হয়। বরং ওই সাক্ষাৎকারে উপসাগরীয় দেশ ও অন্যান্য বিষয় সম্পর্কে তথ্যকে প্রাধান্য দেয়া হয়।
হালাবি বলেন, সাক্ষাৎকারের ওই অংশটি বাদ দেয়া হয়নি বরং তা সাধারণ মনে করা হয়েছিল। কোনো অসৎ উদ্দেশ্যে তা বাদ দেয়া হয়নি। হালাবিকে জিজ্ঞেস করা হয় পুরো সাক্ষাৎকার থেকে কেনই বা তিনি ইসরাইলি মন্ত্রী সৌদি ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানকে আমন্ত্রণ জানানোর লাইনটিই বাদ দিলেন, জবাবে হালাবি বলেন, এটা সম্পাদনার অংশ বিশেষ হিসেবেই বাদ দেয়া হয়। তবে সৌদি আরবে এলাফ ব্লক করে দেয়ার প্রসঙ্গে হালাবি বলেন, নিরপেক্ষতার জন্যই এটা করা হয়েছে। এলাফ জার্নাল নামে আরেকটি মিডিয়া ঠিকই এসব সাক্ষাৎকার প্রকাশ করলেও তা সৌদি আরবে ব্লক করা হয়নি।

হালাবির ভিআইপি সাক্ষাৎকার সৌদি আরবের প্রতি ইসরাইলের ইতিবাচক বার্তা পৌঁছে দেয়। একটি উদাহরণ হচ্ছে, ইসরাইলের সেনাবাহিনীপ্রধান গাদি ইজেনকোট এমন একটি সাক্ষাৎকারে বলেন, তার দেশ সৌদি আরবের সাথে ইরানের বিরুদ্ধে যে কোনো ধরনের তথ্য ও প্রযুক্তিগত সাহায্য দিতে প্রস্তুত। এরপরই ইসরাইলের বিরোধীদলীয় নেতা সৌদি ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানকে বিপ্লবী অভিহিত করে বলেন, সৌদি নেতাদের উচিত জেরুসালেমের প্রশাসনিক দায়িত্ব পালন করা।
হালাবি ইসরাইল পাবলিক ব্রডকাস্টারে ৯ বছর ধরে সংবাদদাতা হিসেবে কাজ করেন। ফিলিস্তিন ও আরব সম্পর্ক নিয়েই তিনি প্রতিবেদন তৈরি করতেন। লেবাননের এমটিভি চ্যানেলেও হালাবি পাঁচ বছর কাজ করেছেন। মজার ব্যাপার হলো ইসরাইলি সেনাবাহিনীতেও এক সময় কাজ করতেন হালাবি। ইসরাইলি নাগরিক হওয়া সত্ত্বেও আরব মিডিয়ায় কাজ করে তিনি দেশটির আইন ভেঙেছেন।

অনেক হুমকির মুখেও এমটিভি তার পাশে দাঁড়িয়েছে এবং কখনো তার প্রতিবেদন সম্পাদনা করা হতো না। সাধারণত আরব মিডিয়াগুলো পূর্ব জেরুসালেম ও পশ্চিম তীর থেকে ইসরাইলের খবর সংগ্রহের জন্য সাংবাদিক নিয়োগ দেন। ইসরাইলের খবর যাতে তারা বস্তুনিষ্ঠ ও সঠিকভাবে তারা প্রকাশ করতে পারে। হালাবি জানান, তার লক্ষ্য ছিল আরব বিশ্বের কাছে ইসরাইলের সঠিক ভাবমূর্তি তুলে ধরা। রাজনৈতিক বিবাদের মতো খবরের চেয়ে বৈচিত্র্যময় কাজ করতেই তিনি পছন্দ করেন। শেষ বিচারে সাংবাদিকতার আড়ালে তিনি ইসরাইলের স্বার্থ সংরক্ষণ করেন। তিনি বলেন, ইসরাইল কোনো নিঃশব্দ শিলাপাথর নয়। এখন বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু প্রধানমন্ত্রী, কাল অন্য কেউ হতে পারেন। ইসরাইল কোনো একটি ব্যক্তি নয়। এটি একটি দেশ। আরব বিশ্বকে আমরা দেখাতে চাই ইসরাইল কি! 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.