ads

ঢাকা, শুক্রবার,২০ এপ্রিল ২০১৮

ফুটবল

ইতিহাসের সবচেয়ে ধনী দল

নয়া দিগন্ত অনলাইন

১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮,মঙ্গলবার, ১৫:৪৪ | আপডেট: ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮,মঙ্গলবার, ১৫:৫৬


প্রিন্ট
ইতিহাসের সবচেয়ে ধনী দল

ইতিহাসের সবচেয়ে ধনী দল

ক্লাব ফুটবলের ইতিহাসে দলবদলের বাজারে সবচেয়ে ধনী দল হিসেবে জায়গা করে নিয়েছে প্রিমিয়ার লীগের শীর্ষে থাকা ম্যানচেস্টার সিটি। সুইসভিত্তিক সিআইইএস ফুটবল পর্যবেক্ষণকারী প্রতিষ্ঠানের এক গবেষণায় এই তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।

গবেষণায় বলা হয়েছে, পেপ গার্দিওলার স্কোয়াড ৮৭৮ মিলিয়ন ইউরো দিয়ে তৈরী। অন্যদিকে দ্বিতীয় স্থানে থাকা প্যারিস সেইন্ট-জার্মেইর ক্ষেত্রে এর পরিমাণ ৮০৫ মিলিয়ন ইউরো। জানুয়ারি ট্রান্সফার উইন্ডোর তারিখ শেষ হবার পরই এই গবেষণাটি পরিচালনা করা হয়। সেখানে দেখা গেছে, সেন্টার-ব্যাক আয়মেরিক লাপোর্তেকে ৬৫ মিলিয়ন ইউরোতে এ্যাথলেটিক বিলবাও থেকে দলে নিয়েই সিটি তালিকায় শীর্ষ স্থান দখল করেছে। অন্যদিকে বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ফুটবলার হিসেবে নেইমারকে দলে নিয়ে ইতিহাস রচনা করা পিএসজি সব মিলিয়ে দ্বিতীয়স্থান দখল করেছে। তাদের ফ্রেঞ্চ তারকা কাইলিয়ান এমবাপ্পে বর্তমানে ধারে ক্লাবে রয়েছে। যদিও মৌসুমের শেষে মোনাকোকে এমবাপ্পের ট্রান্সফার ফি বাবদ ১৮০ মিলিয়ন ইউরো প্রদান করতে হবে।

আর এজন্যই খেলোয়াড় চুক্তিতে রেকর্ড গড়েছেন গার্দিওলা। গত মাসে গার্দিওলা বলেছিলেন, ‘সর্বোচ্চ পর্যায়ে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করতে হলে অর্থ ব্যয় করতে হবে। কিছু কিছু ক্লাব দু’জন খেলোয়াড়ের জন্য ৩০০ থেকে ৪০০ মিলিয়ন পাউন্ড ব্যয় করেছে। আমরা এটা করেছি ছয়জন খেলোয়াড়ের পিছনে।’
সিটি ও পিএসজি ছাড়াও আরো দুটি ক্লাব তাদের শক্তি বৃদ্ধিতে ৭০০ মিলিয়ন ইউরোর বেশী ব্যয় করেছে। ক্লাব দুটি হলো ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড (৭৪৭ মিলিয়ন ইউরো) ও বার্সেলোনা (৭২৫ মিলিয়ন ইউরো)।

এই তালিকায় অপর ক্লাবগুলো হলো রিয়াল মাদ্রিদ (ষষ্ঠ), জুভেন্টাস (অষ্টম) ও চারটি প্রিমিয়ার লীগের ক্লাব- চেলসি, লিভারপুল, আর্সেনাল ও এভারটন।
গবেষনায় আরো বলা হয়েছে প্রিমিয়ার লীগে দলবদলের জন্য গড়ে যে ২৯১ মিলিয়ন ইউরো ব্যয় করা হয়েছে তা রেকর্ড সৃষ্টি করেছে। আর এটা লা লিগার গড়ের (১৩১ মিলিয়ন ইউরো) প্রায় দ্বিগুণ।

এ্যাথলেটিকোর মাঠে অনুষ্ঠিত হবে কোপা ডেল রে ফাইনাল

চলতি মৌসুমের কোপা ডেল রে’র ফাইনাল ম্যাচটি এ্যাথলেটিকো মাদ্রিদের মাঠ ওয়ান্ডা মেট্রোপলিটানোতে অনুষ্ঠিত হবে। স্প্যানিশ ফুটবল ফেডারেশন এই তথ্য নিশ্চিত করেছে। আগামী ২১ এপ্রিল অনুষ্ঠিতব্য এবারের ফাইনালে মুখোমুখি হবে বার্সেলোনা ও সেভিয়া।

৬৮ হাজার ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন এই স্টেডিয়ামটি চলতি মৌসুমে এ্যাথলেটিকোর ঘরের মাঠ হিসেবে যাত্রা শুরু করেছে। কোপা ডেল রে’র ফাইনালের কারনে লা লিগায় বেটিসের বিপক্ষে ঐ সময় এ্যাথলেটিকোর নির্ধারিত হোম ম্যাচটি পিছিয়ে যাবে। ইতোমধ্যেই ভিয়ারেলের বিপক্ষে বার্সেলোনার হোম ম্যাচ ও সেভিয়া বনাম রিয়াল মাদ্রিদের মধ্যকার ম্যাচটি পিছিয়ে আগামী ৯ মে অনুষ্ঠিত হবে।
রিয়াল মাদ্রিদ যেহেতু তাদের ৮১ হাজার ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন সানটিয়াগো বার্নাব্যুতে ফাইনাল ম্যাচটি আয়োজনের জন্য কখনো রাজি হতো না, সে কারনে এ্যাথলেটিকোর মাঠটি ছাড়া স্প্যানিশ ফুটবল ফেডারেশনের হাতে কার্যত আর কোনো বিকল্প ছিল না। গত তিন মৌসুমেই কোপা ডেল রে’র শিরোপা গেছে বার্সেলোনার ঘরে। এই নিয়ে টানা পঞ্চমবারের মতো তারা ফাইনালে খেলছে।

উল্লেখ্য আগামী মৌসুমের চ্যাম্পিয়নস লীগের ফাইনাল ম্যাচটিও ওয়ান্ডা মেট্রোপলিটানোতে অনুষ্ঠিত হবে।

 

 

ads

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫