ঢাকা, বুধবার,২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

নারী

শাড়ি পরে ১৩ হাজার ফুট থেকে ঝাঁপ (ভিডিও)

নয়া দিগন্ত অনলাইন

১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮,মঙ্গলবার, ১৪:২১


প্রিন্ট

স্কুল-কলেজ-অফিস থেকে অনুষ্ঠান বাড়ি- সর্বত্রই শাড়ি পরে যাওয়া যায়। যারা এই পোশাকে আরো স্বচ্ছন্দ্য তারা তো এতে দৌড়ঝাঁপও করতে পারেন। কিন্তু ৩৩ হাজার ফুট উচ্চতা থেকে কেউ ঝাঁপ দিতে পারেন কি? পারেন। ৩৫ বছরের শীতল মহাজন রাণে তাই করে দেখিয়েছেন। শাড়ি পডরেই প্যারাশুট নিয়ে বিমান থেকে লাফ দিয়েছেন ভারতের পদ্মশ্রী প্রাপ্ত এই স্কাইডাইভার। শাড়ি পরে সফলভাবে স্কাইডাইভ করার কৃতিত্ব তিনিই প্রথম অর্জন করলেন।

স্কাইডাইভিং বরাবরে নেশা শীতলের। তেমনই সাজতে পছন্দ করেন পুণের বাসিন্দা। আর শাড়ি পরতে সবচেয়ে ভালোবাসেন। এই দুই ভালোবাসার মেলবন্ধনই ঘটাতে চেয়েছিলেন। আর চেয়েছিলেন নারীদিবসের আগে সারা বিশ্বের সামনে ভারতীয় নারীর এই ঐতিহ্যকে তুলে ধরতে। এর জন্য কিছুদিন আগেই থাইল্যান্ডে পৌঁছে যান তিনি। সেখানে বেশ কয়েক দিন ধরে অনুশীলন চলে। থাইল্যান্ডের হাওয়া জোর বেশি। তাই এ ডাইভিং বেশ কঠিন ছিল। এর জন্য বিশেষ শাড়ি পরতে হয়েছে তাকে। গোলাপি রঙের এই শাড়িটি প্রায় ৮.২৫ মিটার লম্বা যা সাধারণ শাড়ির থেকে একটু বেশিই লম্বা। এর উপরেই প্যারাশুটের ব্যাগ ও বাকি সেফটি গিয়ার ছিল। তা নিয়েই ১৩ হাজার ফুট উপর থেকে ঝাঁপ দেন শীতল। মাটিতে পড়ে প্রথমে একটু অসুবিধা হয়েছিল। তবে তা সামলে হাসিমুখেই ডাইভিং শেষ করেন পদ্মশ্রী। সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমেই সকলের সঙ্গে শেয়ার করে নিয়েছেন সে ভিডিও।

শাড়ি নিয়ে আজকের প্রজন্মের ধারণা ভাঙা উচিত। এমনটাই মনে করেন শীতল। যে শাড়ি পরে ভারতীয় নারীরা এক সময় যুদ্ধ পর্যন্ত লড়েছেন, সে শাড়ি ঠিকভাবে পরতে পারলে ১৩ হাজার ফুট উচ্চতা থেকে ঝাঁপ দেয়া যায়। এটাই প্রমাণ করতে চেয়েছিলেন শীতল, আর প্রমাণ করলেনও তিনি।

 

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫