জা য়া রে র রূ প ক থা  

ভুতুড়ে প্রাণীটা কে রে

হাসান হাফিজ

(গত দিনের পর)

এনরি নামের এই হাতিটার দেহ প্রকাণ্ড। তার গায়ে অনেক জোর। কাউকে সে তোয়াক্কা করে না। কুয়োর সেই রহস্যময় ভুতুড়ে দানবকে এনরি নিশ্চয়ই ভয় পাইয়ে দেবে। সেই ক্ষমতা ওর আছে। দল থেকে বলা হলো, যাও হে এনরি হাতি, রওনা হয়ে যাও। তোমার জন্য শুভকামনা।
এনরি দুদ্দাড় করে এগিয়ে যায়। কুয়োর ভেতরে কী রহস্য লুকিয়ে আছে? ওটা বের করতে না পারা পর্যন্ত কোনো শান্তি নেই তার। মোটা মোটা থামের মতো পা ফেলে সে এগোতে থাকে।
কুয়োর পাড়ে পৌঁছে গেছে এনরি। পানি তুলতে যাবে, এমন সময় শোনা গেল ঘড়ঘড়ে গলায় পষ্ট আওয়াজ, সাবধান সাবধান, বাদ দাও পানি পান। যদি তুমি বাঁচতে চাও, পালাও পালাও।
কুয়োর দেয়ালে দেয়ালে প্রতিধ্বনিত হতে থাকে। হেনরি প্রথমটায় এ কথাকে পাত্তা দিতে চাইলো না। পানি তুলতে যাবে, এমন সময় আরো জোরালো হয়ে ওই কথাগুলো ভেসে আসে। (চলবে)

 

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.