মৌলভীবাজারে স্বেচ্ছাশ্রমে কোদালিছড়া খাল খনন

মৌলভীবাজার সংবাদদাতা

মৌলভীবাজারে জেলা প্রশাসন ও পৌরসভার উদ্যোগে স্বেচ্ছাশ্রমে শহরের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত কোদালিছড়া খাল খনন কাজ শুরু হয়েছে।

গতকাল শনিবার এ খননকাজের উদ্বোধন করা হয়। এসময় প্রশাসন, সরকার দলীয় নেতা, পৌরসভার কর্মকর্তা কর্মচারি ছাড়াও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের কয়েকশ’ নেতাকর্মী অংশ নেন।

এই খনন কাজে অংশ নিতে সকাল সাড়ে ৯টায় বিভিন্ন সংগঠনের ব্যানারে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে মিলিত হন স্বেচ্ছাশ্রমে অংশ নিতে আগ্রহীরা। পরে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শোভাযাত্রা করে প্রেস ক্লাবের পশের কোদালিছড়া খালের সামনে খালের মধ্যে থাকা আবর্জনা পরিস্কার ও খননের কাজে অংশ নেয় প্রশাসন, রাজনৈতিক সংগঠন, ব্যবসায়ী, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

তাদের মধ্যে ছিলেন মৌলভীবাজার-রাজনগর আসনের সংসদ সদস্য সৈয়দা সায়রা মহসিন, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান, জেলা প্রশাসক মো. তোফায়েল ইসলাম, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শাহ্জালাল, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নেছার আহমদ, সম্পাদক মিছবাহুর রহমান, পৌরসভার মেয়র মো. ফজলুর রহমান, মৌলভীবাজার সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ ড.ফজলুল আলী, চেম্বার সভাপতি কামাল হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট রাধাপদ দেব সজল, আওয়ামী লীগ নেতা সাইফুর রহমান বাবুল, যুবলীগ সভাপতি নাহিদ আহমদ প্রমুখ।
স্বেচ্ছাশ্রমে এই খনন কাজে অংশ নেয়া প্রতিষ্টানগুলোর মধ্যে আছে জেলা প্রশাসন, জেলা পরিষদ, পৌরসভা, এলজিইডি, পানি উন্নয়ন বোর্ড, আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, রেড ক্রিস্টেন্ট সোসাইটি, প্রেস ক্লাব, বিজনেস ফোরাম, জেলা ক্রীড়া সংস্থা, প্রথম আলো বন্ধুসভা, সমকাল সুহৃদ সমাবেশ, উদিচি, শ্রমিক সংগঠন, মুক্তিযোদ্ধা।

এছাড়াও শহরের বিভিন্ন স্কুল, কলেজ ও মাদরাসার শিক্ষক-শিক্ষার্থীরাও অংশ নেয়।

এদিকে মৌলভীবাজার পৌরশহরের জলাবদ্ধতার অন্যতম কারণ হিসেবে ধরা হয় কোদালীছড়া খালের পানি প্রবাহের গতি কমে যাওয়া, ময়লা আবর্জনা ফেলে প্রতিবন্ধকতা তৈরি এবং কোথাও ছড়ার অংশ বেদখল হয়ে যাওয়া। সম্প্রতি জেলা প্রশাসন ও পৌরসভা এই ছড়া খনন এবং দখলমুক্ত করার সামাজিক উদ্যোগ গ্রহণ করে। এ নিয়ে কয়েকদফা বৈঠক হয় এবং কর্মপরিকল্পনা তৈরি করা হয়। এই পরিকল্পনা অনুসারেই আজ স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে ছড়া খননের কাজ শুরু হয়।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.