ঢাকা, বুধবার,২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

প্রবাসের খবর

খালেদা জিয়ার রায় : বিক্ষোভে উত্তাল জাতিসঙ্ঘ সদর দফতর

নিউ ইয়র্ক থেকে ইমরান আনসারী

০৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮,মঙ্গলবার, ১৮:৪৫ | আপডেট: ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮,মঙ্গলবার, ১৯:২২


প্রিন্ট
খালেদা জিয়ার রায় : বিক্ষোভে উত্তাল জাতিসঙ্ঘ সদর দফতর

খালেদা জিয়ার রায় : বিক্ষোভে উত্তাল জাতিসঙ্ঘ সদর দফতর

বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার দুর্নীতির মামলার আসন্ন রায়কে কেন্দ্র করে নিউ ইয়র্কের জাতিসঙ্ঘ সদর দফতেরর সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা। স্থানীয় সময় সোমবার দুপুরে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির বিভিন্ন গ্রুপের নেতারা ঐক্যবদ্ধ হয়ে এ কর্মসূচি পালন করে।

শীতের প্রচণ্ড তীব্রতা উপেক্ষা করে ‘আমার নেত্রী আমার মা, বন্দী হতে দেবো না’ শ্লোগানে মুখরিত করে তোলে জাতিসঙ্ঘ প্রাঙ্গন।

বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তরা বলেন, বাংলাদেশ এখন ভয়-ভীতির দেশে পরিণত হয়েছে। খুন গুম আর গ্রেফতার আতঙ্কে পালিয়ে বেরাচ্ছেন বিএনপির নেতা-কর্মীরা। এ অবস্থায় সরকার বিএনপিকে ছাড়াই নির্বাচন করার জন্য বিএনপির চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী ও সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে মিথ্যা ও সাজানো মামলায় সাজা দেয়ার চক্রান্ত করছেন। তারা আরো বলেন,  খালেদা জিয়ার গায়ে যদি একটা ফুলের আঁচড়ও পড়ে, বাংলাদেশের মানুষের মতো যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয়তাবাদী শক্তির পক্ষের প্রবাসীরাও গর্জে উঠবে। যুক্তরাষ্ট্র থেকে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দেন বিএনপি নেতারা।
এসময় বক্তারার বলেন, সরকারের ব্যাংক লুটপাট, দুর্নীতি ও স্বজনপ্রীতিতে যখন সারা বিশ্বে সরকারের অবস্থান নড়বরে তখনই বিএনপি চেয়ারপর্সনের ইমেজ ক্ষুণ্ন করবার জন্য বিচারের নাটকীয় মঞ্চ স্থাপন করেছে সরকার। যা বাংলার জনগন মেনে নেবে না।

বক্তারা বলেন, উন্নয়নের নামে গণতন্ত্র ও মানবাধিকারকে বলি দেয়া হচ্ছে। জনগণ ভোটাধিকার হারিয়েছে। বাংলাদেশ একনায়কতান্ত্রিক রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। এই সরকারের দেশ পরিচালনার কোনো এখতিয়ার নেই। দেশে মানবাধিকারের ব্যাপক লঙ্ঘন ঘটছে। গুম, বিচার-বহির্ভূত ও নিরাপত্তা হেফাজতে হত্যার সংখ্যা ক্রমেই বাড়ছে। বিরোধী দল বা ভিন্ন মতাবলম্বীদের জন্য এ দেশে কোনো সুযোগ নেই। বিরোধী নেতারা গণগ্রেফতার এবং মিথ্যা মামলার শিকার হচ্ছেন।

বিক্ষোভ সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ডা. মুজিবুর রহমান মুজুমদার, সাবেক সভাপতি আব্দুল লতিফ সম্রাট, সাবেক সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান, সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি গিয়াস আহমেদ ও দেলোয়ার হোসেন, কামাল সাইদ মোহন, সাবেক সহ-সভাপতি শামসুল ইসলাম মজনু, নিয়াজ আহমেদ জুয়েল, মঞ্জুর চৌধুরী, আনোয়ার হোসেন, সাবেক সহ-সভাপতি বাবর উদ্দিন, সাবেক কোষাধ্যক্ষ জসিম ভুইয়া, সাবেক যুগ্ম-আহবায়ক মিজানুর রহমান ভুঁইয়া মিল্টন, আব্বাস উদ্দিন দুলাল, সাবেক যুগ্ম-সম্পাদক আনোয়ারুল ইসলাম, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক আনোয়ারুল ইসলাম, হেলাল, সভাপতি সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আক্তার হোসেন বাদল, বাকের আজাদ, গোলাম ফারুক শাহীন, ফিরোজ আহমেদ, বিএনপি নেতা সেলিম রেজা, সাইদুল হক, কাজী আজম, আব্দুস সবুর, মার্শাল মুরাদ, ডা. তারেক জামান, এবাদ চৌধুরী, জাফর তালুকদার, আবুল বাসার, ফয়সাল, যুবদলের সাবেক আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক কেন্দ্রীয় যুবদল এম এ বাতিন, যুবদল সভাপতি জাকির এইচ চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক আবু সাইদ আহমদ, মাহফুজুল মওলা নান্নু, নিয়াজ আহমেদ জুয়েল প্রমুখ।

 

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫