রিচির অন্যরকম ইচ্ছা পূরণ

অভি মঈনুদ্দীন

দুই সন্তান রায়ান ও ইলমাকে নিয়ে পরিবার, বন্ধুবান্ধব, দীর্ঘ দিনের সহকর্মীদের সাথে একান্তে সময় কাটাতে ৫৫ দিনের জন্য দেশে এসেছিলেন জনপ্রিয় নন্দিত নাট্যাভিনেত্রী রিচি সোলায়মান। ইচ্ছে না থাকা সত্ত্বেও তাকে অভিনয় করতে হয়েছে। দু’টি নাটকে অভিনয় করে অভিনয়জীবনের এক অন্য রকম ইচ্ছে পূরণ হলো রিচির।

১ ফেব্রুয়ারি রাত ১টার ফ্লাইটে যাওয়ার আগে রাত ১১টায় রিচির উত্তরায় বাসায় কথা হয়। সেখানেই তিনি তার অভিনয়জীবনের অন্য রকম দু’টি ইচ্ছে পূরণের কথা জানালেন। প্রথমটি হচ্ছে বাংলাদেশের নাট্যাঙ্গনের কিংবদন্তি অভিনেত্রী ফেরদৌসী মজুমদারের সাথে একই ফ্রেমে অভিনয় করার সুযোগ পাওয়া। আর অন্যটি হচ্ছে দুই সন্তান রায়ান ও ইলমার সঙ্গে নাটকে অভিনয় করা।

রহমতুল্লাহ তুহিনের নির্দেশনায় ‘যখন কখনো’ ধারাবাহিক নাটকে ফেরদৌসী মজুমদারের মেয়ের চরিত্রে অভিনয় করার সুযোগ পেয়েছেন রিচি সোলায়মান। ফেরদৌসী মজুমদার বলেন, ‘রিচি তো বেশ ভালো অভিনয় করে। তার মাঝে চেষ্টাটা আছে। আর তুহিনের নির্দেশনায় এর আগেও অভিনয় করেছি। তুহিন যত্ন নিয়ে শিল্পীকে আরাম দিয়ে কাজ করার চেষ্টা করে।’

রিচি সোলায়মান বলেন, ‘আমরা যারা টিভি নাটকে অভিনয় করি, তাদের অনেকেরই স্বপ্ন থাকে, ইচ্ছে থাকে ফেরদৌসী আপার সঙ্গে অভিনয় করার। আমারও স্বপ্ন ছিল। সেই স্বপ্ন অবশেষে পূরণ হলো। এমন বরেণ্য অভিনেত্রীর সাথে অভিনয় করার মধ্যে ভালো লাগা এটাই যে, তারা যখন অভিনয় করেন তখন রিঅ্যাকশনে যা করা হয় তাই অভিনয় হয়ে যায়। আমার অনেক বড় সৌভাগ্য যে ফেরদৌসী আপার সাথে অভিনয় করতে পেরেছি। অনেক কৃতজ্ঞতা তুহিন ভাইয়ের প্রতি, কারণ তিনিই আমাকে সেই সুযোগ করে দিয়েছেন।’

প্রতি শনি ও রোববার এনটিভিতে রাত ৮.২০ মিনিটে ‘যখন কখনো’ প্রচার হয়। শনিবার থেকে রিচি অভিনীত পর্বের প্রচার শুরু হয়েছে।

এ দিকে রিচি তার ছেলে রায়ান ও মেয়ে ইলমা’র সঙ্গে একই নাটকে অভিনয় করেছেন সুমন আনোয়ারের নির্দেশনায় আরটিভির বৈশাখের বিশেষ নাটক ‘২৫-এ বৈশাখ’। ছেলের সঙ্গে রিচি এর আগে নাটকে অভিনয় করলেও মেয়েকে নিয়ে এবারই প্রথম রিচি অভিনয় করেছেন।

রিচি কন্যাসন্তানের মা হন গেল বছরের ২১ আগস্ট। গত ৮ ডিসেম্বর তিনি আমেরিকা থেকে ঢাকায় এসেছিলেন। রংপুরে রিচি তার নানী রিজিয়া বেগমের সঙ্গেও দেখা করে এসেছেন। দীর্ঘ দিন পর দেশে ফিরে রিচি তার সহকর্মীদের সঙ্গে আড্ডায় মেতে উঠেছিলেন তার শুটিং হাউজ ‘নীলাঞ্জনা’য় ২২ জানুয়ারি। আবার কবে আসবেন? এমন প্রশ্নের জবাবে রিচি বলেন, ‘এখনই বলতে পারছি না। তবে দেশে আসার জন্য মন সবসময়ই ব্যাকুল থাাকে।’

ছবি : মোহসীন আহমেদ কাওছার

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.