সানুষা সন্তোষ
সানুষা সন্তোষ

রাতে চলন্ত ট্রেনে অভিনেত্রীর শ্লীলতাহানি

নয়া দিগন্ত অনলাইন

রাত তখন একটা দশ। ট্রেনের ওপরের বার্থে শুয়ে ঘুমোচ্ছিলেন দক্ষিণী অভিনেত্রী সানুষা সন্তোষ। হঠাৎ ঠোঁটের ওপর চাপে ঘুম ভেঙে যায়। দেখেন, অচেনা একজন পাশে দাঁড়িয়ে তাঁর ঠোটের ওপর জোরে জোরে হাত ঘষছে।

ভারতের ম্যাঙ্গালুরু সেন্ট্রাল থেকে তিরুঅনন্তপুরম যাওয়ার পথে মাভেলি এক্সপ্রেসে বৃহস্পতিবার ঘটেছে এই ঘটনা।

এসি টু টিয়ার কোচে করে যাচ্ছিলেন ২৩ বছরের ওই অভিনেত্রী। সানুষা শক্ত করে লোকটির হাত চেপে ধরে আঙুল মুচড়ে দেন। তারপর চিৎকার করে নিচের বার্থের যাত্রীর সাহায্য চান। কিন্তু তিনি কোনো সাড়াশব্দ করেননি। সাড়া দেননি অন্য যাত্রীরাও।

শেষে এগিয়ে আসেন তার ছবির চিত্রনাট্যকার উন্নি ও রঞ্জিত নামে এক যাত্রী। তারা টিকিট চেকারের খোঁজ করতে শুরু করেন।

ততক্ষণ অভিযুক্তকে একাই ধরে রেখেছিলেন সানুষা। টিকিট চেকার এসে সব শুনে পরের স্টেশনে খবর দেন, খবর যায় রেল পুলিশে। আধঘণ্টা বাদে ত্রিশূরে ট্রেন দাঁড়ালে অভিযুক্তকে পুলিশ গ্রেফতার করে। সানুষা নিজের বিবৃতি দেন, সেই ট্রেনেই যাত্রা করেন তিরুঅনন্তপুরম।

অভিযুক্তকে ১৪ দিনের জন্য পুলিশি হেফাজতে পাঠানো হয়েছে।

ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ প্রবীণ অভিনেত্রীর
শ্লীলতাহানির অভিযোগ দায়ের করলেন একসময়ের বলিউড কাঁপানো নায়িকা জিনাত আমন। অমর খান্না নামে এক ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে পুলিশে অভিযোগ করেছেন তিনি।

ওই ব্যবসায়ী মুম্বইয়ের বাসিন্দা। জিনাত অভিযোগ করেছেন, কয়েক মাস ধরে তিনি তার শ্লীলতাহানি করেছেন, করেছেন দুর্ব্যবহার। পাশাপাশি অপরাধমূলক অনুসন্ধি নিয়ে অনুসরণ করছেন তাকে।

পুলিশি তদন্তে জানা গেছে, জিনাত ও অমর পরস্পরকে গত কয়েক মাস ধরে চিনতেন। কিন্তু তাদের সম্পর্ক কোনো কারণে টেকেনি। জিনাত এরপর তার সঙ্গে কথা বলা বন্ধ করে দেন কিন্তু অমর তা শুনতে রাজি ছিলেন না। জিনাত তাকে বোঝানোর বহু চেষ্টা করেন। কোনো কাজ হয়নি তাতে।

তিক্ত-বিরক্ত জিনাত এখন ওই ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩০৪ডি ও ৫০৯ ধারায় অনুসরণ ও শ্লীলতাহানির অভিযোগ এনেছেন। কিন্তু অমর বেপাত্তা।

৭০-এর দশক ও ৮০-র শুরুতে বলিউডের অন্যতম সেরা নায়িকা ছিলেন জিনাত। ডন, ইয়াদোঁ কি বরাত, সত্যম শিবম সুন্দরম, হরে কৃষ্ণ হরে রামসহ বহু ছবিতে কাজ করেন তিনি।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.