ঢাকা, শুক্রবার,২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

ময়মনসিংহ

ইলিশের স্যুপে কমবে হৃদরোগের ঝুঁকি

মো. আরিফুল ইসলাম, বাকৃবি

২৪ জানুয়ারি ২০১৮,বুধবার, ১৬:০৫


প্রিন্ট
ইলিশের স্যুপে কমবে হৃদরোগের ঝুঁকি

ইলিশের স্যুপে কমবে হৃদরোগের ঝুঁকি

ইলিশ অধিক আমিষ ও অধিক চর্বির মাছ। কিন্তু ইলিশের চর্বি মোটেও ক্ষতিকর নয়। চর্বিতে বিদ্যমান ওমেগা-৩ নামক অসম্পৃক্ত ফ্যাটি অ্যাসিড রক্তে ক্ষতিকর কোলেস্টেরল কমিয়ে হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়, শরীরকে সুস্থ ও সতেজ রাখে। ইলিশ সংরক্ষণ ও ইলিশ থেকে স্যুপ ও নুডলস তৈরির এ প্রযুক্তি বিশ্বে প্রথম। বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ের সৈয়দ নজরুল ইসলাম সম্মেলন ভবনে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় রিসার্চ সিস্টেম (বাউরেস) আয়োজিত ‘ইলিশের স্যুপ ও নুডুলস তৈরী’ শীর্ষক প্রশিক্ষণ কর্মশালায় এসব তথ্য তুলে ধরেন গবেষকরা।

বাউরেস পরিচালক প্রফেসর ড, এম.এ.এম.ইয়াহিয়া খন্দকারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মো. আলী আকবর। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মো. জসিমউদ্দিন খান, মাৎস্যবিজ্ঞান অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. গিয়াস উদ্দিন আহম্মদ ও ওয়ার্ল্ড ফিশ-বাংলাদেশ এর গবেষক ড. ভ্যান মার্টিন লুইস।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ আলী আকবর বলেন, উৎপাদিত ইলিশ স্যুপ ও ইলিশ নুডুলস সংরক্ষণের মাধ্যমে সারা বছর ইলিশের স্বাদ পাওয়া যাবে। এই ইলিশ স্যুপ ও ইলিশ নুডলস রপ্তানি করা গেলে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন সম্ভব হবে এবং এ দেশের অর্থনীতি সমৃদ্ধ হবে।

কর্মশালায় মূলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন মাৎস্যবিজ্ঞান অনুষদের ফিশারিজ টেকনোলজি বিভাগের প্রফেসর ও প্রযুক্তির উদ্ভাবক গবেষক ড. এ.কে.এম. নওশাদ আলম।

মূলপ্রবন্ধে তিনি জানান, ইলিশ অধিক আমিষ ও অধিক চর্বির মাছ। কিন্তু ইলিশের চর্বি মোটেও ক্ষতিকর নয়। চর্বিতে বিদ্যমান ওমেগা-৩ নামক অসম্পৃক্ত ফ্যাটি অ্যাসিড রক্তে ক্ষতিকর কোলেস্টেরল কমিয়ে হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়, শরীরকে সুস্থ ও সতেজ রাখে। নওশাদ আলম তার মূল প্রবন্ধে জানান, এক হাজার টাকা দামের একটি ইলিশ থেকে ছোট আকৃতির প্রায় ২০০ কিউব তৈরি করা সম্ভব। প্রতিটি কিউবের বাজারমূল্য ২০ টাকা। একটি কিউব দিয়ে ইলিশের হুবহু স্বাদের এক-দুজনের জন্য স্যুপ তৈরি করা সম্ভব। ইলিশের স্বাদ অপরিবর্তিত রেখে কিউবগুলোকে রেফ্রিজারেটরে এক বছর পর্যন্ত সংরক্ষণ করা যাবে। তা ছাড়া ইলিশ দিয়ে বিশেষ প্রক্রিয়ায় নুডলস তৈরি করতে সক্ষম হয়েছেন তিনি। বাজারে সচরাচর যে নুডলস পাওয়া যায়, তার থেকে হয়তো কিছুটা দাম বেশি পড়বে। তবে খুবই সাশ্রয়ী দামে বাণিজ্যিকভাবে ইলিশের নুডলসও বাজারজাত করা সম্ভব হবে। শরীরের উপকারী কোলেস্টেরলের পরিমাণ বাড়ানো এই মাছটি সংরক্ষণ করে খাওয়ার একটি উপায় বের করতে পারলে পুষ্টিগুণের অনেক চাহিদা পূরণ হবে ধারণা বিশেষজ্ঞদের।

উল্লেখ্য, ইকোফিশ প্রকল্পের সহায়তায় ভারগো ফিশ এ্যান্ড এগ্রো প্রসেস লিমিটেড শিগগিরই দেশব্যাপী এগুলো বাজারজাত করবে। ইলিশ মাছকে প্রক্রিয়াজাত করে এর মূল্যমান বৃদ্ধি করতে প্রায় দুই বছর ধরে গবেষণা করেছেন মাৎস্যবিজ্ঞান অনুষদের মৎস্য প্রযুক্তি বিভাগের অধ্যাপক ড. নওশাদ আলম। পরে টেকনিক্যাল সেশনে বিষয়ের উপর শিক্ষক, গবেষক ও আমন্ত্রিত অতিথিরা অংশগ্রহণ করেন।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫