আইনের বই নিয়ে জমে উঠেছে সুপ্রিম কোর্টের বইমেলা

নিজস্ব প্রতিবেদক
আইনের বই নিয়ে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির উদ্যোগে চতুর্থবারের মতো শুরু হওয়া বইমেলা জমে উঠেছে। আইন বিষয়ে বিভিন্ন প্রকাশনা নিয়ে প্রতিদিন সকাল থেকে সন্ধা পর্যন্ত চলছে এই বইমেলা। বইমেলা উপলে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী ভবনে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। গতকাল সোমবার সরস্বতী পূজা উপলক্ষে সুপ্রিম কোর্টে ছুটি ছিল। তবে সুপ্রিম কোর্ট বার ভবনের বইমেলা দেখা যায় জমজমাট। বইমেলা শেষ হবে আগামী ২৫ জানুয়ারি। 
আইনজীবী সমিতি ভবনের ভেতরে নিচতলায় ফাঁকা জায়গায় এবং দণি পাশে বিস্তৃত বারান্দায় মেলার ৪২টি স্টল স্থাপন করা হয়েছে। এরমধ্যে আইনজীবীরাই ১৯টি স্টল দিয়েছেন। বইমেলায় আইন, আইনের বিভিন্ন নজির, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক, রাজনৈতিক, শিশুসাহিত্যসহ বিভিন্ন বিষয়ের বই স্টলে হয়েছে। ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি আবদুল ওয়াহ্হাব মিঞা সপ্তাহব্যাপী এ বইমেলার উদ্বোধন করেন। 
বইমেলার ২ নম্বর স্টলে প্রবীণ আইনবিদ খন্দকার মাহবুব হোসেনের স্ত্রী ড. ফারহাত হোসেনের লেখা ইন্টারন্যাশনাল হিউম্যান রাইটস বইটি পাওয়া যাচ্ছে। এ স্টলে খন্দকার মাহবুব হোসেনের লেখা পেনাল কোড এবং আইনের শাসন ও বিচার বিভাগের স্বাধীনতা নামে দু’টি মূল্যবান গ্রন্থ পাওয়া যাচ্ছে। 
সুপ্রিম কোর্টের বইমেলার বিষয়ে খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, আমি সুপ্রিম কোর্ট বারের সভাপতি থাকাকালে এই বইমেলা শুরু হয়। এ ধরনের মেলায় যাদের লেখালেখির অভ্যাস আছে তারা আরো উৎসাহিত হন। সবচেয়ে বড় কথা আইনের বইগুলো হাতের কাছে পাওয়া যায়। আইনজীবীরা বই পড়ার প্রতি আকৃষ্ট হন। এ ধরনের বইমেলা আইনজীবীদের জন্য খুবই প্রয়োজন। 
বইমেলায় সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল মাহমুদুল ইসলাম, বিশিষ্ট আইনজ্ঞ ড. এম জহিরসহ বিশিষ্ট আইনজ্ঞদের লেখা বই রয়েছে। 
বইমেলার উদ্বোধন করে ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি মো: আবদুল ওয়াহ্হাব মিঞা বলেছিলেন, বই না পড়ে আইন পেশায় উন্নতি করা যাবে না। টাকার পেছনে ছুটলে হবে না। বই কিনুন। বই পড়–ন। জ্ঞান অর্জন করুন। টাকা আপনার কাছে এসে ধরা দেবে। তিনি বলেন, ‘কথায় আছে, যতই পড়িবে, ততই শিখিবে। আর যতই শিখিবে, ততই আয় করিবে। কিন্তু শিখিবে না, আয়ও হইবে না।’ তিনি বলেন, মামলার শুনানিকালে পুরানা পল্টনের মতো বক্তব্য দিলে হবে না। আইনের কথা বলতে হবে। তিনি বলেন, শুধুই বইমেলার আয়োজন করলে হবে না। বই কিনতে হবে। কিনলে পড়ার প্রতি আকর্ষণ বাড়বে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.