ঢাকা, বুধবার,২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

ভ্রমণ

ঢাকার কাছে পিকনিক স্পট

শওকত আলী রতন

২২ জানুয়ারি ২০১৮,সোমবার, ১৪:৫৪


প্রিন্ট
ঢাকার কাছে পিকনিক স্পট

ঢাকার কাছে পিকনিক স্পট

কোথাও বেড়াতে যাওয়ার এখনই উপযুক্ত সময়। শীত মওসুমে আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় অন্য সময়ের চেয়ে শীতে বেড়ানো আরামদায়ক। তাই তো শীতকালে পিকনিক আয়োজনের ধুম পড়ে যায়। ঢাকার কাছেই রয়েছে আধুনিক সুযোগ-সুবিধাসহ একাধিক পিকনিক স্পট। এমন কয়েকটি স্পটের বিষয়ে জানানো হলো :

রওশন গার্ডেন : ঢাকার অদূরে অর্থাৎ রাজধানীর গুলিস্তান থেকে মাত্র ২৫ কিলোমিটারের মধ্যে নবাবগঞ্জ উপজেলার কৈলাইল ইউনিয়নের কৈলাইলে অবস্থিত রওশন গার্ডেন। পিকনিক স্পট, শুটিং স্পট ও বিনোদনের জন্য পার্কটি এককথায় নান্দনিক। শিশুদের মানসিক বিকাশে পার্কটি অতুলনীয়। বিভিন্ন প্রাণীর মুর‌্যাল ও প্রাকৃতিক নৈসর্গিক ও গ্রামীণ পরিবেশের আদলে গড়া বিনোদনের জন্য জায়গাটি ছোট-বড় সবার কাছে ভালো লাগবে। রয়েছে সুবিশাল দু’টি পুকুর। হাঁটাচলার জন্য পর্যাপ্ত জায়গা। আপনিও ঘুরে আসতে পারেন রওশন গার্ডেন থেকে। ১০০ থেকে পাঁচ হাজার দর্শনার্থীর পিকনিক স্পটের জন্য রয়েছে সুব্যবস্থা। রাজধানীর কর্মব্যস্ত মানুষের মানসিক প্রশান্তির জন্য রওশন গার্ডেন থেকে ঘুরে আসনে পারেন। পিকনিট স্পটের জন্য বিশেষ ছাড় রয়েছে। স্পেস ভাড়া আলোচনাসাপেক্ষে।

যেতে চাইলে : ঢাকার গুলিস্তান থেকে ঢাকা-বান্দুরার বাসে চড়ে তুলসীখালী ব্রিজের গোড়ায় নেমে সিএনজিতে বা অটোরিকশায় যাওয়া যাবে রওশন পার্কে। ফোন : ০১৯৭৭৭৭৬৭৩৭।

আনছার ক্যাম্প : নবাবগঞ্জ থেকে মাত্র দুই কিলোমিটার দূরে ও কলাকোপা ইছামতি নদীর তীরে অবস্থিত আনছার ক্যাম্প। ৩২ আনছার ব্যাটালিয়নের সদর দফতর এটি। আনছার ক্যাম্পের ভেতরে রয়েছে নবাবগঞ্জের জমিদার বাড়ি। রয়েছে ইংরেজ শামনামলে ও প্রাচীন কারুকার্যে নির্মিত বাড়ি, যা কালের সাক্ষী হয়ে রয়েছে।

আনছার ক্যাম্পের কোলঘেঁষে বয়ে গেছে ইছামতি নদী। নদীটি এখনো বহমান থাকায় ছোট-বড় অসংখ্য নৌকা এ নদীতে চলাচল করে। এ অঞ্চলের কৃষিকাজের প্রাণ ইছামতি। কবিসাহিত্যিকেরা এই নদী নিয়ে লিখে গেছেন। মহাকবি কায়কোবাদের বাড়ি এই নবাবগঞ্জে। গুলিস্তান থেকে বাসে নামতে কলাকোপা। কলাকোপা থেকে হেঁটে পাঁচ মিনিটের পথ পেরোলেই আনছার ক্যাম্প। যোগাযোগ : ০১৭৩২৩০৮৪৯৭

প্যালেস পার্ক : প্যালেস পার্কে অত্যাধুনিক সব ধরনের রাইড বসানো হয়েছে। সুপরিসরভাবে পুরো পার্কটি সাজানোর জন্য শিশুসহ সব বয়সের দর্শনার্থীর জন্য। পার্কের পাশাপাশি রিসোর্টের কাজ চলছে। প্যালেস পার্কের ব্যবস্থাপক আকতারুউজ্জামান রানা বলেন, যুগোপযোগী ও প্রয়োজনীয় সব ধরনের সুযোগ সুবিধা পাবে আগামীতে। পার্কটিতে রয়েছে নাগরদোলা, কিডি রাইটস, জু জু ট্রেন, সুইং চেয়ার রেসিং কার প্রভৃতি। দর্শনার্থীদের চাহিদার কথা বিবেচনা করেই পার্কটি নির্মাণ করা হয়েছে। ঢাকার গুলিস্তান থেকে বাসে আসা যায়। সময় লাগে দেড় থেকে দুই ঘণ্টা। পিকনিক স্পটের সব সুযোগ সুবিধা রয়েছে। পিকনিক স্পট ভাড়া সব দর্শনার্থীর খাবারের আয়োজন করে থাকে। মোবাইল : ০১৯৬৮৮০৭৭০২

উকিল বাড়ি : বাড়িটি নবাবগঞ্জের কলাকোপায় অবস্থিত। একসময় এ বাড়িতে হিন্দু জমিদার পরিবারের বসবাস হলেও বর্তমানে এখানে বাস করছেন খন্দকার আবুল হাসেম। তিনি আইন পেশায় নিয়োজিত থাকায় সবাই বাড়িটি উকিল বাড়ি হিসেবে চেনেন ও জানেন। বাড়ির সামনে রয়েছে শান বাঁধানো পুকুর ও বিভিন্ন ধরনের ফুলের বাগান। বাগানের ভেতরে বসার জন্য রয়েছে সুব্যবস্থা এবং পিকনিক ও শুটিং স্পটের জন্য বেশ আগে থেকেই পরিচিত। অনেক নাটকের চিত্রায়িত হয়েছে এ বাড়িটিতে। পিকনিক স্পটের জন্য অনেক আগে থেকে ভ্রমণপিয়াসু মানুষ কলাকোপার এ বাড়িতে আসেন। বাড়িটি দেখার জন্যও অনেক দর্শনার্থী ভিড় করছেন। উকিল বাড়ি থেকে ঘুরে আসতে পারেন আপনিও। মোবাইল : ০১৯২৮৪৪৬৭৮১

আরো কয়েকটি পিকনিক স্পট-
ড্রিম হলিডে পার্ক : চৈতাবো, পাঁচদোনা, নরসিংদী। ফোন : ০১৭৬২৬৯৬৩০২-৪
দীপালী : হোতাপাড়া, গাজীপুর। ফোন : ০১৭১৭৩৭৪৯০৪
শিল্পী কুঞ্জু : চন্দ্রা, গাজীপুর। ফোন : ০১৭১৭৪৯০৪
পুষ্পদ্মাম পিকনিক স্পট : বাঘের বাজার, জয়দেবপুর। ফোন : ০১৭১১৬৪৩০৫৪

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫