ভুয়া খবর বন্ধে নতুন উদ্যোগ ফেসবুকের
ভুয়া খবর বন্ধে নতুন উদ্যোগ ফেসবুকের

ভুয়া খবর বন্ধে নতুন উদ্যোগ ফেসবুকের

নয়া দিগন্ত অনলাইন

ভুয়া খবর রুখতে কড়া পদক্ষেপ করতে চলেছে বিশ্বের এক নম্বর সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইট ফেসবুক। এতদিন নানা টেকনোলজি সংক্রান্ত খবরের ওয়েবসাইটে এই কথা দেখা যাচ্ছিল। কিন্তু এবার খোদ ফেসবুকের সহ-প্রতিষ্ঠাতাই জানিয়ে দিলেন ২০১৮-তে সাধারণ মানুষের নিউজ ফিডে বেশ কিছু উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন আসতে চলেছে।

এর মধ্যে সবার প্রথমে থাকছে কারো হোমপেজে ভুয়া খবরের আনাগোনা। শুক্রবার রাতে মার্ক জাকারবার্গ একটি পোস্টে ফেসবুকের একগুচ্ছ নতুন নীতির কথা ঘোষণা করেন। লেখেন, ‘নতুন বছরে সাধারণ মানুষের নিউজ ফিডে কোনো বাণিজ্যিক সংস্থার বিজ্ঞাপন, খবর, ভিডিও- একটু কম দেখা যাবে। আগে যা ৫% দেখা যেত, সেটা এখন ৪% দেখা যাবে।’ অর্থাৎ, বন্ধুবান্ধব বা পরিবারের আপডেট নিউজ ফিডে বেশি করে দেখা যাবে আগের চেয়ে। মতামত প্রদানের বিষয়ে কোনোরকম নিষেধাজ্ঞা যাতে না থাকে, ফেসবুক সে বিষয়েও খেয়াল রাখবে৷

আর পরই তিনি এবছরের সবচেয়ে বড় ঘোষণাটি করেন। জানিয়ে দেন, সোশ্যাল মিডিয়ায় ভুয়া খবরের কারণে প্রচুর মানুষের ভাবাবেগে আঘাত লেগেছে। আর তাই এখন থেকে ভুয়া খবর রুখতে আরো কড়া নজরদারি চালাবে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। কিন্তু এই কাজ যে সংস্থার একার পক্ষে সম্ভব নয়, সে কথাও স্বীকার করে নেন মার্ক। বলেন, কোন সংস্থার খবর সত্যি, আর কোন সংস্থার মিথ্যা- সেটা ঠিক করুক ফেসবুকের পাঠকরাই।

ফেসবুক সংস্থা এই মহা দায়িত্ব একার কাঁধে নিতে পারবে না। তবে ফেসবুক অনলাইনে বেশ কয়েক দফা সমীক্ষা চালাবে এই বিষয়ে, স্পষ্ট করেছেন মার্ক জাকারবার্গ। মার্ক জানিয়েছেন, ভুয়া তথ্য ‘রিপোর্ট’ করার বিষয়টি বর্তমানে আরো সহজ করছে ফেসবুক৷ এই ধরনের খবর ছড়িয়ে পড়া আটকাতে ‘থার্ড পার্টি ভেরিফিকেশন’ ছাড়াও সাহায্য নেওয়া হবে পেশাদার সাংবাদিকদের কাছ থেকেও৷ ভুয়া খবর ছড়িয়ে তা থেকে অসদুপায়ে রোজগারের প্রচেষ্টাও বন্ধ করতে উদ্যোগী হচ্ছে ফেসবুক৷

বস্তুত, ভুয়া খবর ছড়িয়ে দিতে ফেসবুকের জুড়ি মেলা ভার। একাধিক ভুয়া ওয়েবসাইট তাদের ‘প্রপাগান্ডা’ ছড়াতে সোশ্যল মিডিয়াকে হাতিয়ার করছে। এই জাতীয় খবরের সত্যতা যাচাই করে দেখছেন না অনেক শিক্ষিত মানুষও। মোবাইলে যা আসছে, ফরোয়ার্ড করে দিচ্ছেন অন্যদের। হাজার হাজার ভুয়া খবর ছড়িয়ে পড়ছে দেশে-বিদেশে।

সোশ্যাল মিডিয়াতেই গুগল-সহ প্রথম সারির সংস্থাগুলো ‘কেয়ার, বিফোর ইউ শেয়ার’ নামে ক্যাম্পেন চালায়। বহু বিশিষ্ট ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠিত সংবাদমাধ্যমের পক্ষ থেকে সাধারণ মানুষের কাছে বারবার আবেদন জানানো হয়েছে, কোনো অজানা বা অল্প পরিচিত ওয়েবসাইটের খবরে বিশ্বাস করার আগে আর একবার ভাবুন। আপনাকে বোকা বানানো হচ্ছে না তো? এবার এই সতর্কীকরণের কাজই আরো ব্যাপক আকারে চালাবে ফেসবুক।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.