পুরস্কারে হ্যাটট্রিক কোহলির

ক্রীড়া প্রতিবেদক

সাময়িক সময়ের জন্য হলেও নিন্দুকেদের টার্গেটের কেন্দ্রবিন্দু থেকে মুক্তি মিলল অধিনায়ক বিরাট কোহলির। কেপটাউন টেস্টে ভারতীয়দের ব্যর্থতার দায়ভার থেকে তার ক্ষণকালীন স্বস্তি উপভোগের নৈপথ্যে ব্যাট হাতে ব্যক্তিগত সাফল্যের আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি অর্জনের উৎসব। আইসিসির বার্ষিক অ্যাওয়ার্ড বিতরণীতে কোহলির একচ্ছত্র আধিপত্য সমালোচকদেরও বাধ্য করল মুখ বন্ধ রাখতে। বিদায়ী ২০১৬-১৭ মওসুমের ২২ গজের পিচে ব্যাটবলের লড়াইয়ের আইসিসি ট্রফির রেসে হ্যাটট্রিক ভারতীয় অধিনায়কের। কোহলির একার দখলে সদ্যসমাপ্ত সেশনের আইসিসির সর্বোচ্চ প্রেস্টিজিয়াস তিন পুরস্কার।
ক্রিকেটার অব দ্য ইয়ার অ্যাওয়ার্ডের পাশাপাশি ‘শ্রেষ্ঠ অধিনায়ক’ অ্যাওয়ার্ড জয়ে সর্বমহলের প্রশংসায় সিক্ত বিরাট কোহলি। ওয়ানডে ফরম্যাটের ব্যাটিং শ্রেষ্ঠত্বও তিনি পুনরুদ্ধার করেছেন। ২০১২ সালের পর প্রথমবারের মতো ওডিআই ক্রিকেটার অব দ্য ইয়ার খ্যাতি স্পর্শে পূর্ণ করেছেন আইসিসির ২০১৬-২০১৭ সেশনের অ্যাওয়ার্ড জয়ের হ্যাটট্রিক। গতকাল ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থার আনুষ্ঠানিক বিবৃতিতে ঘোষণা করা হয় সদ্যসমাপ্ত ক্রিকেটীয় মওসুমের বিভিন্ন শাখার শ্রেষ্ঠত্বের রেসে ট্রফিজয়ী ক্রিকেটার তালিকা। পাঁচ দিনের ক্রিকেটে সাম্প্রতিক সময়ের দুর্দান্ত ব্যাটিং করার পুরস্কার বুঝে পেলেন অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়কব স্টিভেন স্মিথ। ব্যাট হাতে তার ধারাবাহিক সাফল্যে সমর্পিত টেস্ট ক্রিকেটার অব দ্য ইয়ার অ্যাওয়ার্ড। ২০১৬ সালের ২১ সেপ্টেম্বর থেকে ২০১৭ শেষ পর্যন্ত ক্রিকেটারদের মাঠের পারফরম্যান্স মূল্যায়নে চূড়ান্ত হয়েছে আইসিসির এবারের বার্ষিক অ্যাওয়ার্ড বিতরণ অনুষ্ঠান। সর্বশেষ ১৬ মাসে ব্যাট ভিনগ্রহের ক্রিকেট উপহার দেন বিরাট কোহলি। টেস্ট ফরম্যাটে দুই হাজার ২০৩ রান করেন ৭৭ দশমিক ৮০ গড়ে। পাঁচ দিনের ক্রিকেটে ক্যারিয়ার শ্রেষ্ঠ সময়ে কোহলি। ডাবল সেঞ্চুরি তার নিয়মিত অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। ১৬ মাসে তার ৬ দ্বিশতকে বিস্মিত বোদ্ধারাও।
ওয়ানডেতেও কম যাননি ভারতের বর্তমান অধিনায়ক কোহলি। ৮২ দশমিক ৮৩ গড়ে করেন ১ হাজার ৮১৮ রান। সেঞ্চুরি সাতটি। টি-২০ ফরম্যাটে তার পারফরম্যান্স সবার নজর কাড়তে সক্ষম হয়। ১৫৩ স্ট্রাইক রেটে ২৯৯ রান করেন। অধিনায়ক হিসেবেও শ্রেষ্ঠত্বের প্রমাণ দেন কোহলি। তার অধীনে ক্রিকেটের ৩ ফরম্যাটের র‌্যাংকিংয়ের শীর্ষস্থান দখলে নেয়ার কৃতিত্ব রচনা করেছে ভারত। বিগত ১৬ মাস ক্রিকেট মাঠে একচ্ছত্র আধিপত্য প্রতিষ্ঠার স্বীকৃতিস্বরূপ কোহলি সম্মানিত আইসিসির বার্ষিক অ্যাওয়ার্ডের সর্বোচ্চ আকর্ষণ স্যার গ্যারি সোর্বাস ট্রফি ‘ক্রিকেটার অব দ্য ইয়ার’ ট্রফিতে। ভারতীয় দলনায়ক বলেন, ‘সম্ভবত এটিই ক্রিকেটের সবচেয়ে প্রেস্টিজিয়াস অ্যাওয়ার্ড। সত্যিই আমি গর্বিত।’
সাম্প্রতিক সময়ে কোহলির কার্বনকপি পারফরম্যান্স অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথেরও। তবে টেস্ট ফরম্যাটেই সীমাবদ্ধ ছিল তার দাপট। শেষ ১৬ মাসে টেস্ট ফরম্যাটে ১ হাজার ৮৭৫ রান স্মিথের। ৮টি সেঞ্চুরির পাশাপাশি ৫টি অর্ধশতক হাঁকান অসি অধিনায়ক। ব্যাট হাতে তার ব্যক্তিগত পারফরম্যান্স এক্স ফ্যাক্টর ভূমিকা পালন করেছে অস্ট্রেলিয়ার সদ্যসমাপ্ত অ্যাশেজ জয়োৎসবে। সবমিলিয়ে সর্বোচ্চ যোগ্য পারফরমার স্মিথের দখলেই গেছে ২০১৬-১৭ মওসুমের টেস্ট ক্রিকেটার অব দ্য ইয়ার অ্যাওয়ার্ড। এ দিকে পাকিস্তানের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি জয়ে মুখ্য অবদান রাখায় ইমার্জিং ক্রিকেটার অব দ্য ইয়ার ট্রফি জিতেছেন পেসার হাসান আলি। ঘূর্ণি বলের মায়াবি জাদুর ফাঁদে আটকে বিশ্বের নামকরা ব্যাটসম্যানদের বোকা বানিয়ে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে আফগানিস্তানের স্পিনার আদিল রশিদ। ফলে তার হাতেই উঠল আইসিসির সহযোগী দেশগুলোর ক্রিকেটার অব ইয়ার অ্যাওয়ার্ড।
আইসিসি অ্যাওয়ার্ড ২০১৬-১৭
মেন্স ক্রিকেটার অব দ্য ইয়ার
বিরাট কোহলি
মেন্স টেস্ট ক্রিকেটার অব দ্য ইয়ার
স্টিভেন স্মিথ
মেন্স ওডিআই ক্রিকেটার অব দ্য ইয়ার
বিরাট কোহলি
মেন্স ইমার্জিং ক্রিকেটার অব দ্য ইয়ার
হাসান আলি
মেন্স অ্যাসোসিয়েট ক্রিকেটার অব দ্য ইয়ার
আদিল রশিদ
মেন্স টি-২০ পারফরম্যান্স অব দ্য ইয়ার
চাহাল (৬ উইকেট ২৫ রানে, প্রতিপক্ষ ইংল্যান্ড)
ডেভিড শেফার্ড আইসিসি আম্পায়ার অব দ্য ইয়ার
মারাইস ইরসমাস
আইসিসি স্পিরিট অব ক্রিকেট
অ্যানেয়া শ্রুবসোল।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.