নির্বাচন কমিশনের গাফিলতির প্রশ্নই ওঠে না : সচিব

নিজস্ব প্রতিবেদক

নির্বাচন কমিশনের (ইসি) ভারপ্রাপ্ত সচিব হেলালুদ্দীন আহমেদ বলেছেন, ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের উপ-নির্বাচন আইনি জটিলতার কারণে স্থগিত হওয়ার পেছনে নির্বাচন কমিশনের কোনো গাফিলতি ছিল না। হাইকোর্ট যে স্থগিতাদেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন তা বিস্তারিত আলোচনা করেছেন। ওনারা বলেছেন, মহামান্য হাইকোর্টের এই আদেশ প্রত্যাহার না হওয়া পর্যন্ত নির্বাচনের সব কার্যক্রম স্থগিত থাকবে। একই সাথে বুধবার ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ১৮টি ওয়ার্ড মহামান্য হাইকোর্ট যে স্থগিতাদেশ দিয়েছেন তিন মাসের জন্য একইভাবে স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার না হওয়া পর্যন্ত নির্বাচনের কার্যক্রম স্থগিত থাকবে।

আজ বৃহস্পতিবার নির্বাচন কমিশনের ১৭তম সভা শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে তিনি একথা বলেন।

আদেশের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থায় যাচ্ছেন কি না- এমন প্রশ্নের জবাবে ইসির ভারপ্রাপ্ত সচিব বলেন, আমরা এখন পর্যন্ত বিস্তারিত আদেশ পাইনি। শুধু মিডিয়ার মাধ্যমে এবং উকিল প্রত্যায়নের মাধ্যমে আমরা জানতে পেরেছি। যখন আদেশটি হাতে পাব আমরা নির্বাচন কমিশনে উপস্থাপন করব। নির্বাচন কমিশন পরবর্তী করণীয় নির্ধারণ করবে।

কোন বিষয়গুলোতে নির্বাচন আটকে রয়েছে- জানতে চাইলে তিনি বলেন, কোন কোন জায়গায়, কোন বিষয়ের ওপর মহামান্য হাইকোর্ট ওনাদের অবজারভেশনের আলোকে স্থগিতাদেশ দিয়েছেন সেটা আমরা জানতে পারিনি। উকিল নোটিশের মাধ্যমে আমরা জানতে পেরেছি এই উপনির্বাচন এবং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নির্বাচন স্থগিতাদেশ দেয়া হয়েছে তিন মাসের জন্য।

জটিলতা নিয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সাথে আলোচনা করেনি ইসি- স্থানীয় সরকার মন্ত্রীর এমন অভিযোগের প্রসঙ্গে ইসি সচিব বলেন, সাংবিধানিক দায়িত্ব হিসেবে জাতীয় নির্বাচন ইসি নিজেরাই পরিচালনা করে। স্থানীয় সরকার নির্বাচন স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে করা হয়। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় নির্ধারণ করে দেবে নির্বাচন কোনটা করব কোনটা করব না। সেক্ষেত্রে আমরা অনুরোধ পাওয়া পরেই কিন্তু নির্বাচনের কাজে হাত দিয়েছিলাম। নির্বাচন কমিশন তফসিলও ঘোষণা করেছে। মহামান্য হাইকোর্ট কোন বিষয়ের ওপর আদেশ দিয়েছে তা হাতে না পাওয়া পর্যন্ত বলতে পারব না।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়কে কোনো ত্রুটি দেখিয়ে দিয়েছে কি না যেগুলোর কারণে নির্বাচন বন্ধ হয়ে যেতে পারে, জানতে চাইলে সচিব বলেন, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অনুরোধ পাওয়ার পরে এই বিষয়ে কোনো পত্র যোগাযোগ হয়নি। সাধারণত স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় যখন কোনো অনুরোধপত্র পাঠায় তখন আইনের বিষয়গুলো দেখার জন্য তাদের আইন অনুবিভাগ রয়েছে। ওখানে আইন অনুবিভাগের ক্লিয়ারেন্স নিয়ে কিন্তু আমাদের চিঠি পাঠিয়েছে। কোন জায়গায় মহামান্য হাইকোর্ট ত্রুটি ধরেছেন আদেশ পাওয়া পরে আমরা বুঝতে পারব।

যথেষ্ট আলোচনা না করেই তফসিল ঘোষণা হয়েছে এবং এর দায় কমিশন নেবে কি না- এমন প্রশ্নের জবাবে হেলালুদ্দীন আহমেদ বলেন, আদেশটা পাওয়ার পরে মন্তব্য করতে পারব। আমাদের গাফিলতির প্রশ্ন উঠেই না। কমিশন সভায় উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নিয়ে কোনো এজেন্ডা ছিল না এবং এ বিষয়ে কোনো আলোচনাও হয়নি।

এর আগে নির্বাচন ভবনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদার সভাপতিত্বে ১৭তম কমিশন সভা অনুষ্ঠিত হয়। অপর চার নির্বাচন কমিশনার ছাড়াও নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সভায় উপস্থিত ছিলেন।

সভায় আলোচনার বিষয়বস্তু সম্পর্কে ইসির ভারপ্রাপ্ত সচিব জানান, সভায় নির্বাচন কমিশন যারা প্রবাসী ভোটার রয়েছে তাদের ভোটার তালিকায় অন্তর্ভূক্ত করতে নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়েছে। সেটাকে বাস্তবায়ন করার লক্ষ্যে আগামী ফেব্রুয়ারির তৃতীয় সপ্তাহে একটি সেমিনার করা হবে। সেমিনারে যেসব সুপারিশমালা প্রণয়ন করা হবে তার আলোকে প্রবাসী ভোটার তালিকা নীতিমালা প্রণয়ন করা হবে।

সভায় সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহে সার্কভুক্ত দেশগুলোর প্রধান নির্বাচন কমিশনারদের একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনের প্রস্তুতি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এছাড়া জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে জাতীয় পরিচয়পত্রের সার্ভারের আরো অত্যাধুনিক করার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। ২০১২ সাল থেকে যেসব ভোটার জাতীয় পরিচয়পত্র পাননি আগামী ফেব্রুয়ারির ১ তারিখ থেকে উৎসবমুখর পরিবেশে তাদের জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ করা হবে। হিজড়াদের ভোটার তালিকায় তৃতীয় লিঙ্গ পরিচয়ে ভোটার করতে আইনের নীতিমালা প্রণয়নের সিদ্ধান্ত হয়েছে কমিশন সভায়।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.