স্পিকার-সামিট পাওয়ার ডিরেক্টরের সাক্ষাৎ

দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদন বেড়েছে ৯ বছরে ১২ হাজার মেগাওয়াট

সংসদ প্রতিবেদক
জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারের আমলে গত ৯ বছরে দেশের বিদ্যুৎ উৎপাদন ১১ হাজার ৮০০ মেগাওয়াট বেড়েছে।
গতকাল স্পিকার সাথে তার সংসদ ভবন কার্যালয়ে সামিট পাওয়ার ইন্টারন্যাশনাল প্রাইভেট লিমিটেডের (এসপিআইপিএল) ইনডিপেনডেন্ট ডিরেক্টর আবদুল্লাহ বিন তারমুগি সাক্ষাৎ করতে এলে তিনি তাকে এ তথ্য জানান। এ সাক্ষাতে এসপিআইপিএল-এর চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আজিজ খান, ইন্ডিপেনডেন্ট ডিরেক্টর লিম হুই হুয়া, ট্যাং কিন ফ্যাই, ক্যাসপার ব্লাসি জোহানসেন, মোহাম্মদ লতিফ খান এবং হেড অব অ্যাডমিন কর্নেল (অব:) জাওয়াদ-উল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।
স্পিকার বলেন, ২০০৮-০৯ সালে বাংলাদেশে বিদ্যুৎ খাত অনেক শোচনীয় অবস্থায় ছিল। তখন বিদ্যুৎ উৎপাদন ছিল মাত্র ৩২০০ মেগাওয়াট। ইতোমধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ ও কার্যকর পদক্ষেপের কারণে বর্তমানে ১৫ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছে। চাহিদা বাড়ার সাথে সাথে সরকার বিদ্যুৎ উৎপাদন বৃদ্ধিতে যথেষ্ট মনোযোগী। এ ক্ষেত্রে সামিট গ্রুপের অবদানও অনস্বীকার্য। সাক্ষাৎকালে স্পিকার ও এসপিআইপিএল ডিরেক্টর সংসদীয় কার্যক্রম, বাংলাদেশের অবকাঠামোগত ও অর্থনৈতিক উন্নয়ন, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি, বৈদেশিক বিনিয়োগ এবং সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেন। 
স্পিকার বলেন, বর্তমান সরকার সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর আওতায় বিভিন্ন কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করে অতি দারিদ্র্যের হার ২৩ শতাংশে কমিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছে। 
এ সময় আবদুল্লাহ বিন তারমুগি বলেন, বাংলাদেশের অবকাঠামোগত ও অর্থনৈতিক উন্নয়ন লক্ষণীয়। বিদ্যুৎ খাতে উন্নয়নের কারণে বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি সন্তোষজনক মাত্রায় স্থিতিশীল রয়েছে। বিদ্যুৎ, এলএনজি টার্মিনাল, ফাইবার অপটিক ও আন্তর্জাতিক মানসম্মত সমুদ্র বন্দর স্থাপন এবং উন্নয়নে সামিট গ্রুপ কাজ করে যাচ্ছে। বিদ্যুৎ ও এলএনজি টার্মিনাল স্থাপনের কাক্সিত লক্ষ্য অর্জিত হলে বাংলাদেশ দ্রুত মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হবে।
এরই পরিপ্রেক্ষিতে ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ পরিপূর্ণভাবে ডিজিটাল ও মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হবে এবং ২০৪১ সালের একটি উন্নত সমৃদ্ধ দেশ উপহার দেয়ার লক্ষ্যে সরকার কাজ করছে। ইতোমধ্যে এক শ’ বিশেষায়িত অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপন করা হয়েছে, যা বিদেশী বিনিয়োগকারীদের জন্য উন্মুক্ত।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.