ঢাকা, বুধবার,২৪ জানুয়ারি ২০১৮

ক্রিকেট

রয়ের টনের্ডো

নয়া দিগন্ত অনলাইন

১৪ জানুয়ারি ২০১৮,রবিবার, ১৮:৪২


প্রিন্ট
রয়ের টনের্ডোতে গুঁড়িয়ে গেল অস্ট্রেলিয়া

রয়ের টনের্ডোতে গুঁড়িয়ে গেল অস্ট্রেলিয়া

ওপেনার জেসন রয়ের টনের্ডো ইনিংসে সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে অস্ট্রেলিয়াকে ৫ উইকেটে হারাল সফরকারী ইংল্যান্ড। এই জয়ে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল ইংলিশরা। অস্ট্রেলিয়ার ওপেনার অ্যারন ফিঞ্চের সেঞ্চুরিকে ম্লান করে দিয়ে ১৫১ বলে ১৮০ রানের ইনিংস খেলে ইংল্যান্ডকে দারুন এক জয়ের স্বাদ নেন ম্যাচ সেরা রয়।

অ্যাশেজে ৪-০ ব্যবধানে হারের স্মৃতি নিয়ে মেলবোর্নে সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে টস জিতে অস্ট্রেলিয়াকে ব্যাটিং-এর আমন্ত্রণ জানায় ইংল্যান্ড। শুরুটা ভালো হয়নি অস্ট্রেলিয়ার। দলীয় ১০ রানে ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নারকে হারায় তারা। ২ রান করে ফিরেন তিনি। তিন নম্বরে ব্যাট হাতে নেমে শুরুটা দারুণ করেছিলেন অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ। কিন্তু বড় ইনিংস খেলতে পারেননি তিনিও। ৩টি চারে ১৮ বলে ২৩ রান করেন অসি দলপতি।

স্মিথের বিদায়ের পর দ্রুতই প্যাভিলিয়নে ফিরতে হয় চার নম্বরে নামা ট্রাভিস হেডকে। ৫ রান করে আউট হন হেড। ৭৮ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে কিছুটা চাপে পড়ে যায় অস্ট্রেলিয়া। দলকে সেই চাপ থেকে মুক্ত করেন ওপেনার ফিঞ্চ ও মিচেল মার্শ। চতুর্থ উইকেটে ১১৮ রানের জুটি গড়েন তারা। এরমধ্যে ওয়ানডে ক্যারিয়ারের নবম সেঞ্চুরি তুলে নেন ফিঞ্চ।

তিন অংকের স্বাদ নিয়ে ১১৯ বলে ১০৭ রান করে থামেন ফিঞ্চ। তার ইনিংসে ১০টি চার ও ৩টি ছক্কা ছিলো। দলীয় ১৯৬ রানে ফিঞ্চের ফিরে যাবার অস্ট্রেলিয়াকে ৮ উইকেটে ৩০৪ রানের সংগ্রহ এনে দেন মার্শ ও মার্কাস স্টয়নিস। দু’জনই তুলে নেন হাফ-সেঞ্চুরি। মার্শ ৫০ ও স্টয়নিস ৬০ রান করেন। এছাড়া শেষের দিকে উইকেটরক্ষক টিম পাইন ২৭ ও প্যাট কামিন্স ১২ রান করেন। ইংল্যান্ডের লিয়াম প্লাংকেট ৩ উইকেট নেন।

জয়ের জন্য ৩০৫ রানের টার্গেটে খেলতে নেমে রয়ের কল্যাণে মারমুখী মেজাজেই শুরু করেছিল ইংল্যান্ড। ২৮ বল মোকাবেলায় স্কোর বোর্ড ৫৩ রান করেন রয় ও তার সঙ্গী জনি বেয়ারস্টো। কিন্তু বেয়ারস্টো ১৪ রানের বেশি করতে পারেননি। তিন নম্বরে নামা অ্যালেক্স হেলসও ব্যর্থ। মাত্র ৪ রান করেন তিনি।

৬০ রানে দ্বিতীয় উইকেট হারানোর পর টেস্ট অধিনায়ক জো রুটকে নিয়ে ইনিংস মেরামত করেন রয়। রয় মারমুখী মেজাজে থাকলেও, ধীরগতির ছিলেন রুট। তারপরও দলকে জয়ের পথেই নিয়ে যাচ্ছিলেন তারা। দলের স্কোর বড় করতে গিয়ে ক্যারিয়ারের চতুর্থ সেঞ্চুরি তুলে নেন রয়। এজন্য ৯২ বল মোকাবেলা করেন রয়।

সেঞ্চুরির পর আরো বেশি ভয়ংকর হয়ে ওঠেন রয়। তাই ব্যক্তিগত রান দেড় শ’ থেকে ডাবল-সেঞ্চুরির খুব কাছাকাছি পৌঁছেও যান রয়। কিন্তু শেষদিকে এসে খেই হারিয়ে ফেলেন তিনি। ১৮০ রানে থামতে হয় রয়কে। তার ১৫১ বলের ইনিংসে ১৬টি চার ও ৫টি ছক্কা ছিল। ইংল্যান্ডের হয়ে ওয়ানডেতে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত রানের রেকর্ড গড়েন রয়। আগেরটি ছিল হেলসের। ২০১৬ সালের আগস্টে নটিংহামে পাকিস্তানের বিপক্ষে ১২২ বলে ১৭১ রান করেছিলেন হেলস।

রুটের সাথে ২২০ বলে ২২১ রানের জুটি গড়ে রয় যখন বিদায় নেন তখন জয়ের জন্য ৪৫ বলে ২৪ রান দরকার ছিল ইংল্যান্ডের। এ কাজটি সম্পন্ন করতে গিয়ে ধাক্কা খায় ইংল্যান্ড। অধিনায়ক ইয়োইন মরগান ১ ও জশ বাটলার ৪ রান করে আউট হন। ফলে ম্যাচে উত্তেজনা তৈরি হয়। তবে এক প্রান্ত আগলে অপরাজিত ৯১ রানের ইনিংস খেলে দলের জয় নিশ্চিত করেন রুট। তার ১১০ বলের ইনিংসে ৫টি চার ছিল। অস্ট্রেলিয়ার মিচেল স্টার্ক ও প্যাট কামিন্স ২টি করে উইকেট নেন।

আগামী ১৯ জানুয়ারি ব্রিজবেনে অনুষ্ঠিত হবে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডে।
সংক্ষিপ্ত স্কোর :
অস্ট্রেলিয়া : ৩০৪/৮, ৫০ ওভার (ফিঞ্চ ১০৭, স্টয়নিস ৬০, প্লাংকেট ৩/৭১)।
ইংল্যান্ড : ৩০৮/৫, ৪৮.৫ ওভার (রয় ১৮০, রুট ৯১*, কামিন্স ২/৬৩)।
ফল : ইংল্যান্ড ৫ উইকেটে জয়ী।

ম্যাচ সেরা : জেসন রয় (ইংল্যান্ড)।
সিরিজ : পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল ইংল্যান্ড।

 

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫