ঢাকা, সোমবার,২২ জানুয়ারি ২০১৮

আরো খবর

ফুলবাড়ী সীমান্ত থেকে এক বাংলাদেশীকে ধরে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা বিএসএফের

ফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম) সংবাদদাতা

১৪ জানুয়ারি ২০১৮,রবিবার, ০০:০০


প্রিন্ট

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী সীমান্তে অবৈধভাবে বাংলাদেশে ঢুকে এক নিরপরাধ বাংলাদেশীকে ধরে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনী বিএসএফ। উপজেলার নাওডাঙ্গা ইউনিয়নের সীমান্ত ঘেঁষা বালাতাড়ী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পরে এলাকাবাসী ও বিজিবির ধাওয়ায় ওই নিরপরাধ ব্যক্তিকে ছেড়ে দিয়ে দৌড়ে ভারতের অভ্যন্তরে চলে যায় বিএসএফ সদস্যরা। এ ঘটনায় বিজিবির পক্ষ থেকে কড়া প্রতিবাদ জানানো হলে তাৎক্ষণিকভাবে ওই সীমান্তে বিজিবি-বিএসএফের পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে সৃষ্ট ঘটনার জন্য বিএসএফ দুঃখ প্রকাশ করেছে বলে বিজিবি সূত্র জানিয়েছে।
সীমান্তবাসী ও বিজিবি সূত্র জানায়, গতকাল দুপুরে ওই সীমান্তের ৯৩২ নম্বর আন্তর্জাতিক সীমানা পিলারের ১ নম্বর সাব পিলারের পাশ দিয়ে ভারতীয় করলা ক্যাম্পের চারজন বিএসএফ সদস্য বাংলাদেশে প্রবেশ করে। গ্রামবাসী কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগেই তারা ওই এলাকার কাঁচু মিঞা (৫০) নামের এক নিরপরাধ ভ্যানচালককে টেনে-হেঁচড়ে ভারতের ভেতরে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা চালায়। একপর্যায়ে নারী-পুরুষ নির্বিশেষে গ্রামবাসী একত্র হয়ে বিএসএফকে ঘিরে ফেলে। খবর পেয়ে বালারহাট ক্যাম্পের ২০-২৫ জন বিজিবি সদস্য ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন। বিজিবির সদস্যদের আসতে দেখে ওই ভ্যানচালককে ছেড়ে দিয়ে দৌড়ে ভারতের ভেতরে চলে যায় বিএসএফ। এ ঘটনায় বিজিবির পক্ষ থেকে কড়া প্রতিবাদ জানানো হলে বেলা ৩টায় ওই সীমান্তের ৯৩২ পিলারের ১ ও ২ নম্বর সাব পিলারের মধ্যবর্তী স্থানে বিজিবি-বিএসএফের পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে ১৫ বিজিবির শিমুলবাড়ী কোম্পানি কমান্ডার সুবেদার নুর-ই-আলম এবং বিএসএফের পক্ষে ৩৮ করলা বিএসএফের অ্যাসিস্ট্যান্ট কোম্পানি কমান্ডার বিনোদ কুমার নেতৃত্ব দেন।
এ ব্যাপারে লালমনিরহাট ১৫ বিজিবি ব্যাটলিয়ানের অধীন শিমুলবাড়ী কোম্পানি কমান্ডার সুবেদার নুর-ই-আলম বলেন, এক চোরাকারবারিকে ধাওয়া করতে করতে বিএসএফ বাংলাদেশে ঢুকে অন্য এক নিরপরাধ লোককে ধরে টানা-হেঁচড়া করেছে। আমরা এ ঘটনার প্রতিবাদ জানালে তারা পতাকা বৈঠকে দুঃখ প্রকাশ করে।

 

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫