ঢাকা, রবিবার,২২ এপ্রিল ২০১৮

প্রথম পাতা

মিয়ানমারে মানবাধিকার লঙ্ঘনের তীব্র প্রতিবাদ

তেহরানে ওআইসি সংসদীয় ইউনিয়নের সম্মেলন শুরু

নয়া দিগন্ত ডেস্ক

১৪ জানুয়ারি ২০১৮,রবিবার, ০০:০০


প্রিন্ট

ইরানের রাজধানী তেহরানে ইসলামি সহযোগিতা সংস্থা বা ওআইসির ১৩তম সংসদীয় ইউনিয়নের সম্মেলন শুরু হয়েছে। পাঁচ দিনব্যাপী সম্মেলন শুরুর প্রথম দিকে গতকাল সংশ্লিষ্ট কমিটিগুলোর বৈঠক হয়। এবারের সম্মেলনে বিশ্বব্যাপী মুসলিমদের নানা ইস্যু বিশেষ করে ফিলিস্তিন ইস্যু এবং বেশকিছু রাজনৈতিক ঘটনার প্রতি বিশেষ গুরুত্ব দেয়া হবে।
সম্মেলন আয়োজক কমিটির অন্যতম সদস্য আবদুর রেজা আজিজি ইরানের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা ইরনাকে জানিয়েছেন, সম্মেলনে ৫৪টি সদস্য দেশের প্রতিনিধিদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে এবং ৪৪টি দেশ প্রতিনিধি পাঠানোর কথা জানিয়েছে। এ সম্মেলনে ১৬টি দেশের পার্লামেন্টের স্পিকার, ১৪টি দেশের ডেপুটি স্পিকার এবং বিভিন্ন মুসলিম দেশের সংসদীয় প্রতিনিধি যোগ দেবেন বলে কথা রয়েছে।
১০ জানুয়ারি থেকে বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধি রাজধানী তেহরানে আসতে শুরু করেন এবং স্পিকাররা গতকাল সন্ধ্যার দিকে আসতে থাকেন। চূড়ান্ত বিবৃতি প্রকাশের মাধ্যমে আগামী বুধবার এ সম্মেলন শেষ হবে।
মিয়ানমারে মানবাধিকার লঙ্ঘনের
তীব্র প্রতিবাদ ওআইসির
ইসলামি সহযোগিতা সংস্থা (ওআইসি) বলেছে, বাংলাদেশ রোহিঙ্গাদের প্রতি সর্বোচ্চ মানবিকতা প্রদর্শন করেছে যা বিশ্বে বিরল উদাহরণ। শুক্রবার কক্সবাজারের বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করে ওআইসির ইন্ডিপেন্ডেন্ট পার্মানেন্ট হিউম্যান রাইটস কমিটির (আইপিএইচআরসি) চেয়ারপারসন ড. রশিদ আল বালুশি এ মন্তব্য করেন।
তিনি বলেন, আমরা দু’দিন ধরে উখিয়ার কুতুপালং ও বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্প এলাকা পরিদর্শন করেছি এবং নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের সাথে কথা বলেছি। এতে আমরা যতটুকু জেনেছি তাতে বোঝা যায়, তাদের ওপর গণহত্যা এবং ধর্ষণসহ বর্বর নির্যাতন চালানো হয়েছে।
১৩ সদস্যের প্রতিনিধিদলে উপস্থিত ছিলেন ওআইসির ভাইস চেয়ারম্যান মেড এসকে ক্যাগওয়া, ভাইস চেয়ারম্যান ড. রাইহানাহ বিনতে আবদুল্লাহ, সাবেক রাষ্ট্রদূত কমিটির সদস্য মোহাম্মদ জমির, আবদুল ওহাব, মাহমুদ মোস্তাফা আফিফি, এডামা নানা, নির্বাহী পরিচালক মার্গোব সেলিম বাট, হাফিদ এল হাসমি, আকমেদ আল গামদি, হাসান আবেদিন, মাহা আকিল, আবদুল্লাহ কাবি ও মোহাম্মদ গালাবাসহ বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা।
এর আগে বৃহস্পতিবার দুপুরে রোহিঙ্গা সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের সঙ্গে বৈঠক করে এই প্রতিনিধিদল। বৈঠকে রোহিঙ্গাদের বর্তমান পরিস্থিতি, মানবিক সঙ্কট ও চাহিদাসহ নানা বিষয়ে আলোচনা হয়। বৈঠক শেষে প্রতিনিধিদলটি গত বৃহস্পতি ও শুক্রবার রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করে।
প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে সমন্বয়ের মাধ্যমে ওআইসি প্রতিনিধিদলের এই সফরের আয়োজন করা হয়েছে।
ওআইসির স্বাধীন স্থায়ী মানবাধিকার কমিশন এবং মহাসচিবের দফতরের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নিয়ে এই প্রতিনিধিদল গঠন করা হয়। তারা রোহিঙ্গাদের মানবাধিকার পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে ওআইসি মহাসচিবের কাছে প্রতিবেদন দেবে। এ ছাড়া আগামী মে মাসে ঢাকায় অনুষ্ঠেয় ওআইসির পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠকেও এই প্রতিবেদন উত্থাপন করা হবে।
হাজার হাজার সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলিম জনগোষ্ঠী তাদের দেশ থেকে পালিয়ে উদ্বাস্তু হিসেবে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়ায় মিয়ানমারের মানবাধিকার লঙ্ঘনের প্রতিবাদ জানাতে প্রাথমিক তথ্য পেতে চার দিনের সফরে প্রতিনিধিদল বৃহস্পতিবার ঢাকায় পৌঁছে। শুক্রবার দুপুরে তারা রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে যায়। কক্সবাজার সফর শেষে প্রতিনিধিদল বাংলাদেশ ত্যাগ করবে।

 

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫