ঢাকা, রবিবার,২২ এপ্রিল ২০১৮

ক্রীড়া দিগন্ত

টিকে গেল রহমতগঞ্জ অবনমন ফরাশগঞ্জের

সাইফ স্পোর্টিং ০ : ২ (শাহেদ, সোহেল)রহমতগঞ্জ

ক্রীড়া প্রতিবেদক

১৪ জানুয়ারি ২০১৮,রবিবার, ০০:০০


প্রিন্ট

কাঁদছিলেন কোচ কামাল বাবু। সাথে ফুটবলার শুভসহ অন্যরা। আরেক পাশেই কিছু ফুটবলার অন্য কর্মকর্তাদের নিয়ে উল্লাসে মত্ত। ম্যাচের সময় দলবল নিয়ে মাঠে প্রবেশ করা ক্লাব সভাপতি হাজী সেলিম খেলা শেষে ভিআইপি গ্যালারি থেকে মাঠে নেমে ফুটবলাদের চার লাখ টাকা বোনাস দেয়ার ঘোষণা দিলেন। এ সবই রহমতগঞ্জের প্রিমিয়ারে টিকে থাকার তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া। সাইফ পাওয়ার ব্যাটারি বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে টিকে থাকতে কাল জয়ের বিকল্প কিছুই ছিল না রহমতগঞ্জের। সাইফ স্পোর্টিং ক্লাবকে ২-০ গোলে হারিয়ে ১৮ পয়েন্ট নিয়ে রেলিগেশন এড়াল পুরান ঢাকার দলটি। তবে তাদের জয়ে কপাল পুড়ল ফরাশগঞ্জের। ২২ খেলায় ১৭ পয়েন্ট নিয়ে বিসিএলে নেমে গেল বুড়িগঙ্গা পাড়ের এ দলটি। তবে ফরাশগঞ্জ কর্মকর্তাদের মতে, এ ম্যাচ সমঝোতার ভিত্তিতে জিতেছে রহমতগঞ্জ। এর যদি সুষ্ঠু বিচার না হয়, তাহলে ১৬ তারিখ থেকে শুরু হওয়া স্বাধীনতা কাপ বর্জন করবে তারা, জানানÑ ক্লাব কর্মকর্তা মানস বোস বাবু রাম। উল্লেখ্য, আগের ম্যাচে শেখ জামালের বিপক্ষে ফরাশগঞ্জের জয়কে পাতানো বলে অভিযোগ করে এবং এর শাস্তি চেয়ে গতকাল লিখিত বক্তব্য দিয়েছে রহমতগঞ্জ। বাফুফেতেও অভিযোগ করেছে তারা।
জিততেই হবে এ মিশনে কাল বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে ২ মিনিটেই লিড রহমতগঞ্জের। সাদ্দাম হোসেন অ্যানির ফ্রি-কিক সাইফের গোলরক্ষক পাপ্পু ফিস্ট করলে সে বলে অধিনায়ক নাইমুর রহমান শাহেদের ভলি চলে যায় জালে। ২২ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ। অ্যানির থ্রো সাইফের ডিফেন্ডার হেড করে বক্সের মধ্যেই ফেলে। তাদের মোহাম্মদ সোহেলের ভলি তিন পয়েন্টের আত্মবিশ্বাস বাড়ায় রহমতগঞ্জের। এ ম্যাচ জিতলেই লিগে তৃতীয় হতো সাইফ। অথচ হেরে সেই চতুর্থ স্থানেই। তাদের একাদশে ছিলেন না বিদেশী শেরিংহ্যাম, ওয়েডসন ও হ্যাম্বার। ফরোয়ার্ড জুয়েল রানা ক্রমাগত ক্রস বাইরে মারলে ও ডিফেন্ডার আরিফ বারবার ভুল পাস দেয়ায় সন্দেহের জন্ম হয়। দলের গোলরক্ষক কোচ হুমায়ুনের মতে, ‘শেরিংহ্যামের তিন কার্ড। ইনজুরিতে বাকি দুই বিদেশী। দেশী তপু বর্মণ, শাকিলসহ কয়েকজনের ইনজুরি। আমাদের তো একাদশই হচ্ছিল না। এ জন্যই হেরেছি। ইচ্ছে করে হেরে যাওয়ার প্রশ্নই আসে না।’
সমঝোতার ভিত্তিতে জয়ের বিষয় অস্বীকার করলেন কামাল বাবুও। তার বক্তব্য, সাইফের শীর্ষ কর্মকর্তারা আগেই জানিয়ে দিয়েছে তারা পাতানো ম্যাচের জন্য ফুটবলে আসেনি। আর আমাদের জন্য ছিল এটি বাঁচা-মরার লড়াই। সাইফের শেরিংহ্যাম না খেলায় আমাদের সুবিধা হয়েছে। এ ইংলিশ ও জুয়েল রানা তাদের মূল খেলোয়াড়। শেরিংহ্যাম নেই। সাথে জুয়েলকে কড়া মার্কিংয়ে রাখায় তারা আর পারেনি। উল্লেখ্য, কামাল বাবু রহমতগঞ্জের পাশাপাশি সাইফের যুব দলেরও কোচ।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫