বিপদজনক দেশের তালিকায় রাশিয়াকে রেখেছে যুক্তরাষ্ট্র
বিপদজনক দেশের তালিকায় রাশিয়াকে রেখেছে যুক্তরাষ্ট্র

বিপদজনক দেশের তালিকায় রাশিয়াকে রেখেছে যুক্তরাষ্ট্র

ইউএসএ টুডে

যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকদের ভ্রমণের জন্য বিপদজনক দেশগুলোর তালিকায় রয়েছে রাশিয়া। গোয়েন্দা রিপোর্টের ভিত্তিতে এই তালিকা তৈরি করা হয়।

 

২০১৮ সালে বিশ্বের কোন কোন দেশে ঘুরতে যাওয়া যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকদের জন্য ঝুঁকির হতে পারে, দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় হতে প্রকাশ করা এমন তালিকায় রয়েছে রাশিয়াও। 

প্রতি বছর গড়ে প্রায় আড়াই লাখ মার্কিন নাগরিক রাশিয়ায় ঘুরতে যান। এই বছর দেশটি যাবার আগে নাগরিকদের পুনর্বিবেচনা করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে।

যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকরা রাশিয়ার আইন প্রয়োগকারীসহ অন্য কর্মকর্তাদের দ্বারা হয়রানি, দুর্ব্যবহার ও চাঁদাবাজির শিকার হন। যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকসহ বিদেশিদের দ্বৈত নাগরিকতায়ে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে।

ইউএস মিশনে রাশিয়ান সরকারি কর্মকর্তাদের সংখ্যা কমায় যুক্তরাষ্ট্র সরকার রাশিয়ায় নিজস্ব নাগরিকসেবা কমিয়েছে। সন্ত্রাসীরা যেকোনো সময় রাশিয়াকে বিপদজনক করে তুলতে পারে। তারা অপ্রত্যাশিতভাবে আক্রমণ করে। জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে হঠাৎ করেই ধর্মঘট শুরু হতে পারে।

তালিকা প্রকাশের পর রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এই ধরনের ভীতি প্রদর্শন, যুক্তরাষ্ট্রের কৌশল। এতে দুইটি দেশের মধ্যে দূরত্ব আরো বাড়বে।

সন্ত্রাসীদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে আমেরিকা: রাশিয়ার সেনাপ্রধান

রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর চিফ অব দ্যা জেনারেল স্টাফ ভ্যালেরি গেরামিসভ বলেছেন, উগ্র সন্ত্রাসীরা সিরিয়ায় মার্কিন সামরিক ঘাঁটিতে প্রশিক্ষণের সুযোগ পাচ্ছে। সিরিয়াকে অস্থিতিশীল করে তোলার জন্য মার্কিন সেনারা এসব সন্ত্রাসীদের নির্দেশনা দিচ্ছে।

রাশিয়ার কমোসমোলস্কায়া প্রাভদা পত্রিকাকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে রুশ সেনাপ্রধান বুধবার এসব কথা বলেছেন। তিনি বলেন, সিরিয়ার দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় আত-থানফ শহরের কাছে একটি মার্কিন ঘাঁটিকে সন্ত্রাসীদের প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে পরিণত করা হয়েছে।

মার্কিন সেনা পরিচালিত আত-থানফ ঘাঁটির পরিস্থিতি সম্পর্কে জানতে চাইলে রুশ সেনাপ্রধান বলেন, স্যাটেলাইট চিত্র ও অন্যান্য তথ্য থেকে দেখা যাচ্ছে যে, সন্ত্রাসীরা ওই ঘাঁটিতে অবস্থান করছে এবং তারা সক্রিয়ভাবে সেখানে প্রশক্ষিণ নিচ্ছে।

তিনি আরো অভিযোগ করেন, উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় হাসাকা প্রদেশের শাদ্দাদাহ শহরের কাছে একটি শরণার্থী শিবিরকে সন্ত্রাসীদের প্রশিক্ষণ ক্যাম্প হিসেবে ব্যবহার করছে আমেরিকা।

জেনারেল ভ্যালেরি বলেন, যেসব সন্ত্রাসী প্রশিক্ষণ নিচ্ছে তারা দায়েশের সদস্য; শুধুমাত্র তারা রং পাল্টেছে এবং এ অঞ্চলকে অস্থিতিশীল করার জন্য নিউ সিরিয়ান আর্মি এবং অন্য নামে সন্ত্রাসীদের ব্যবহার করছে আমেরিকা।

যুক্তরাষ্ট্রের আগ্রাসী পদক্ষেপ উত্তেজনা বাড়াচ্ছে : রাশিয়া

রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরোভ বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের আগ্রাসী পদক্ষেপ এই অঞ্চলে উত্তেজনা বাড়াচ্ছে যা মেনে নেওয়া যায় না। নিষেধাজ্ঞা থেকে সরে এসে সমঝোতায় বসা জরুরি। তবে এখন পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্র বা উত্তর কোরিয়া থেকে কোনও প্রতিক্রিয়া আসেনি।

যুক্তরাষ্ট্র ও উ. কোরিয়ার মধ্যে চলমান উত্তেজনা নিরসনে মধ্যস্থতার প্রস্তাব দিয়েছে রাশিয়া। চলমান সঙ্কট সমাধানে যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়া আলোচনায় বসতে চাইলে রাশিয়া মধ্যস্থতাকারী হতে প্রস্তুত।

যুক্তরাষ্ট্র চায় উত্তর কোরিয়া পারমাণবিক পরীক্ষা বন্ধ করুক। কিন্তু আন্তর্জাতিক আইন না মেনে পরীক্ষা অব্যাহত রেখেছে উত্তর কোরিয়া। সর্বশেষ পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার অভিযোগে উত্তর কোরিয়ার দুজন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র।

২০১৭ সালে তৃতীয়বারের মতো নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে। গত ১১ বছরে এই সংখ্যা ১০ বার। দেশটির অর্থনীতিতে এসব নিষেধাজ্ঞার বিরূপ প্রভাব পড়ছে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.