ঝালকাঠিতে নারীসহ দুইজনকে যাবজ্জীবন

ঝালকাঠি সংবাদদাতা

ঝালকাঠির কাঁঠালিয়ায় পরকিয়ায় বাধা দেয়ায় শাশুড়িকে হত্যার দায়ে পুত্রবধূ ও তার কথিত প্রেমিকের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাদের প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা, পরিশোধ না করলে আরো ছয় মাসের দণ্ডাদেশ দেয়া হয়েছে। ঝালকাঠির অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মুহাম্মদ বজলুর রহমান আজ বৃহস্পতিবার বেলা ১২টায় এ রায় ঘোষণা করেন। দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন কুলসুম বেগম ও তাঁর কথিত প্রেমিক কেফায়েত উল্লাহ।
মামলার বিবরণে জানাযায়, কাঁঠালিয়া উপজেলার জয়খালী গ্রামের আবুল কালাম ব্যবসার কাজে ঢাকায় থাকেন। এ সুযোগে তাঁর স্ত্রী কুলসুম বেগম প্রতিবেশী কেফায়েত উল্লাহর সঙ্গে পরকিয়ায় জড়িয়ে পড়েন। বিষয়টি কুলসুমের শাশুড়ি রিজিয়া বেগম জানলে উভয়ের মধ্যে কথার কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে ২০০৫ সালের ১২ এপ্রিল রাতে প্রেমিক কেফায়েত উল্লাহ ও পুত্রবধূ কুলসুম শ্মাসরোধে শাশুড়িকে হত্যা করে লাশ বাড়ির পাশের একটি ডেবায় ফেলে দেয়। পরের দিন ডোবা থেকে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় ১৩ এপ্রিল কুলসুম বেগমের মেয়ে রাজিয়া আক্তার বাদী হয়ে মা এবং মায়ের কথিত প্রেমিকের বিরুদ্ধে কাঁঠালিয়া থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।
থানার উপপরিদর্শক আবদুস সালাম তদন্ত শেষে ২০০৫ সালের ৩১ মে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। আদালত ১৩ জন সাক্ষির স্বাক্ষ্যগ্রহণ শেষে এ রায় ঘোষণা করেন। রাস্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন অতিরিক্ত সরকারি কৌঁসুলি এম আলম খান কামাল এবং আসামী পক্ষে নাসির উদ্দিন কবির। রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করা হবে বলে জানিয়েছেন আসামী পক্ষের আইনজীবী।

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.