ঢাকা, মঙ্গলবার,২৫ জুন ২০১৯

আরো খবর

ডিবি পরিচয়ে ব্যবসায়ীকে তুলে নেয়ার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক

১১ জানুয়ারি ২০১৮,বৃহস্পতিবার, ০০:৫৩


প্রিন্ট
রাজধানীর আদাবর এলাকা থেকে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) পরিচয়ে এক কাপড় ব্যবসায়ীকে তুলে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই ব্যবসায়ীর নাম আবদুস সালাম শিকদার। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় আদাবর ১ নম্বর রোডের শাহাবুদ্দিনের বাসা থেকে তাকে তুলে নেয় বলে তার স্ত্রী লাভলী বেগমের অভিযোগ। 
লাভলী জানান, তার স্বামী থ্রি-পিসের পাইকারি ব্যবসায়ী। পাশাপাশি যুবদলের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত। মঙ্গলবার মাগরিবের নামাজের একটু আগে সিভিল ড্রেসে পাঁচজন লোক নিজেদের ডিবি পরিচয় দিয়ে তাদের বাসায় ঢোকে। এদের মধ্যে একজনের হাতে পিস্তল ছিল। এ সময় তার স্বামী ঘুমিয়ে ছিলেন। তাকে ঘুম থেকে জাগিয়ে তারা বলেন, তোর (সালামকে) কাছে অস্ত্র আছে, অস্ত্র দে। সালাম তাদেরকে জানায়, তার কাছে কোনো অস্ত্র নেই। এ সময় পাঁচ ব্যক্তি ঘরের বিভিন্ন মালামাল তছনছ করে অস্ত্র খুঁজতে থাকে। তবে তারা কোন অস্ত্র পায়নি। পরে তার ওড়না দিয়ে সালামের দুই হাত ও চোখ বেঁধে ফেলে। এমনকি বুট জুতা দিয়ে তাকে লাথি মারে। তার ও সন্তানদের চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে আসেন। তারাও ডিবি পরিচয় দেয়া পাঁচ ব্যক্তিকে বলে, সালামকে তারা কখনো অস্ত্র নিয়ে চলতে কিংবা কোন খারাপ কাজ করতে দেখেননি। কিন্তু তারা কোন কথা না শুনে সালামকে নিয়ে যায়। 
লাভলী বলেন, বুধবার সকালে স্বামীর সন্ধানে তিনি আদাবর থানায় যান। থানা পুলিশ তাকে থানার হাজতখানা দেখিয়ে বলে, আমরা কোন আসামি ধরে আনলে এখানে রাখি। আপনার স্বামীকে আনলে তিনিও এখানে থাকতেন। পুলিশ বলে, আপনি মিন্টু রোডে ডিবি অফিসে যান। এ সময় লাভলী ডিবি অফিসের গেটে এসে দীর্ঘ সময় ঘোরাঘুরি করেও ভেতরে ঢুকতে পারেননি। পরে একজনের পরামর্শে মোহাম্মদপুর থানায় খোঁজ নেন এবং জিডি করতে চান। মোহাম্মদপুর থানা পুলিশ বলে, তাকে ডিবি নিয়ে থাকলে আমরা জিডি নিতে পারব না! আপনি আবার ডিবি অফিসে যান। তখন লাভলী বেগম ফের ডিবি অফিসের সামনে গেলেও ভেতরে ঢুকতে না পেরে সন্ধ্যার দিকে বাসায় চলে যান। জিডি করতে আদাবর থানায় যাচ্ছেন বলে রাত ৯টার দিকে মুঠোফোনে জানান লাভলী। 
জানতে চাইলে আদাবর থানার ওসি শেখ শাহিনুর রহমান বলেন, এ বিষয়ে আমি কিছু জানি না, বিষয়টি আমার নলেজে নেই।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫