ঢাকা, মঙ্গলবার,২৪ এপ্রিল ২০১৮

শেষের পাতা

হেরে যাওয়ার ভয়ে বিএনপি নেত্রী জনগণকে ব্ল্যাকমেইল করছেন : ওবায়দুল কাদের

খাগড়াছড়ি সংবাদদাতা

০৪ জানুয়ারি ২০১৮,বৃহস্পতিবার, ০০:০০


প্রিন্ট

খাগড়াছড়ি জেলার রামগড় সফরকালে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘আসন্ন নির্বাচন শেখ হাসিনার অধীনে নয়; নির্বাচন কমিশনের অধীনে হবে। হেরে যাওয়ার ভয়ে বিএনপি নেত্রী জনগণকে ব্লাকমেইল করছে। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, পদ্মা সেতুসহ মেগা প্রকল্প বাস্তবায়ন দেখে খালেদা জিয়ার গাত্রদাহ শুরু হয়েছে।’
গতকাল বুধবার দুপুরে খাগড়াছড়ির রামগড়ে নির্মিতব্য বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী সেতু-১ নিয়ে ভারত-বাংলাদেশ উচ্চপর্যায়ের দ্বিপক্ষীয় বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।
তিনি আরো বলেন, ফেনী নদীর উপর রামগড়-সাবব্রুম হয়ে নির্মাণ হতে যাওয়া বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী সেতুর কিছু জটিলতা এবং বিদ্যুৎ, পানিসহ ভারতের কিছু চাহিদা আছে। সেগুলো জানুয়ারির মধ্যে সমাধান করে ফেব্রুয়ারির শুরুর দিকে সেতুর কাজ পুরোদমে শুরু হবে বলেও জানান তিনি। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রিংলা।
এ সময় হর্ষবর্ধন শ্রিংলা বলেন, ভারত ও বাংলাদেশ বিভিন্ন সংযোগ প্রকল্প একযোগে কাজ করছে তার মধ্যে ফেনী নদীর ওপর প্রস্তাবিত সেতু তেমনি একটি প্রকল্প। এটি দক্ষিণ ত্রিপুরা ও বাংলাদেশের বাণিজ্যিক রাজধানীর মধ্যে সরাসরি সংযোগ সড়কের ব্যবস্থা করবে।
এদিকে ওবায়দুল কাদের রামগড়ের মহামুনী এলাকায় বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী সেতু-১ এর স্থান পরিদর্শন করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী, জেলা প্রশাসক মো: রাশেদুল ইসলাম, পুলিশ সুপার আলী আহম্মদ খান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: আল মামুন মিয়া, রামগড় পৌর মেয়র মো: শাহাজাহান রিপন প্রমুখ।
জানা গেছে, ২২৮ কোটি ৬৯ লাখ ভারতীয় রুপি ব্যয়ে নির্মিতব্য সেতুটির দৈর্ঘ্য হবে ৪১২ মিটার। ধারণা করা হচ্ছে ২০১৯ সালের মধ্যে সেতুটির নির্মাণকাজ শেষ হবে। ২০১৫ সালের ৬ জুন ঢাকা সফরের সময় ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ফেনী নদীর ওপর রামগড়-সাবরুম মৈত্রী সেতু-১ এর ভিত্তি প্রস্তর উন্মোচন করেন।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫