ঢাকা, বুধবার,১৭ জানুয়ারি ২০১৮

বাংলার দিগন্ত

কাশিয়ানীতে ভুতুড়ে বিদ্যুৎ বিলে গ্রাহকদের হয়রানি

গোপালগঞ্জ থেকে সংবাদদাতা

০৪ জানুয়ারি ২০১৮,বৃহস্পতিবার, ০০:০০


প্রিন্ট

পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির ভুতুড়ে বিলে হয়রানির শিকার হচ্ছেন গ্রাহকেরা। আগের পরিশোধিত বিদ্যুৎ বিলও নতুন মাসের বিদ্যুৎ বিলের সাথে যোগ করে দেয়া হচ্ছে। এ সমস্যা সমাধানে গ্রাহকদের কাজকর্ম ফেলে ছুটতে হচ্ছে উপজেলা সদরে পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির জোনাল অফিসে। গোপালগঞ্জ পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ করেছেন গ্রাহকেরা।
হয়রানি শিকার বিদ্যুৎ গ্রাহকদের অভিযোগ নিয়মানুযায়ী এবং নির্ধারিত সময়ের মধ্যে গত অক্টোবরের বিল পরিশোধ করার পরও নভেম্বরের বিদ্যুৎ বিলের সাথে অক্টোবরের বিল যোগ করে বিলের কাগজ দেয়া হয়েছে। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে গ্রাহকেরা।
উপজেলার রামদিয়া গ্রামের মিলন সরদার জানান, অক্টোবরে ১৩৫ ইউনিট বিদ্যুৎ ব্যবহার করায় তার বিদ্যুৎ বিল আসে ৬৫৯ টাকা, যা তিনি নভেম্বরে নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই পরিশোধ করেছেন। এরপর নভেম্বরে তিনি ১৩৫ ইউনিট বিদ্যুৎ ব্যবহার করেন। কিন্তু ডিসেম্বরে বিদ্যুৎ বিল ৬৫৯ টাকার স্থলে এক হাজার ৩৫৯ টাকা করা হয়েছে। তিনি অফিসে গিয়ে জানতে পারেন আগের মাসের বিল যোগ করে দেয়া হয়েছে। অথচ তিনি আগের বিল পরিশোধ করেছেন।
কাশিয়ানী পূর্বপাড়ার বাসিন্দা শহিদুল আলম জানান, তিনি কোনো বিদ্যুৎ ব্যবহার করেননি। অথচ তার নামে এক হাজার ৭২৮ টাকা বিদ্যুৎ বিল করা হয়েছে। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, শুধু অভিযোগকারীরাই নন কাশিয়ানী উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নে এই ভুতুড়ে বিদ্যুৎ বিলের বিড়ম্বনার শিকার কয়েক হাজার গ্রাহক। একদিকে ভৌতিক বিদ্যুৎ বিল অন্য দিকে এই ভৌতিক বিদ্যুৎ বিল সংশোধন করাতে এসে নানা বিড়ম্বনা। সারা দিন কাজ ফেলে বিদ্যুৎ বিল সংশোধন করতে গ্রাহকদের কাশিয়ানী সদরে গিয়ে বসে থাকতে হয়।
এ বিষয়ে পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির ডিজিএম মোহাম্মদ আবু রায়হান বলেন, ‘যেসব গ্রাহক আমাদের কাছে এ অভিযোগ নিয়ে আসছেন, আমরা তাদের সমস্যার সমাধান করে দিচ্ছি।’

 

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫