ঢাকা, বৃহস্পতিবার,১৮ জানুয়ারি ২০১৮

বাংলার দিগন্ত

ঈশ^রগঞ্জে ১০ মাস ধরে ভাতা পাননা গ্রাম পুলিশ সদস্যরা

আব্দুল আউয়াল ঈশ্বরগঞ্জ (ময়মনসিংহ)

০৪ জানুয়ারি ২০১৮,বৃহস্পতিবার, ০০:০০


প্রিন্ট

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে সিদ্ধান্তের ১০ মাস পেরিয়ে গেলেও হাজিরা ভাতা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন গ্রাম পুলিশ সদস্যরা। ৯৮ জন গ্রাম পুলিশ তাদের হাজিরা ভাতার টাকা না পাওয়ায় ক্ষোভ জানিয়েছেন।
জানা যায়, ২০১৬ সালে জেলা পরিষদ প্রশাসক সম্মেলনে গ্রাম পুলিশ সদস্যদের থানায় হাজিরার জন্য যাতায়াত ও দৈনিক ভাতার ব্যবস্থা করতে হবে মর্মে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। সিদ্ধান্ত হয় যে স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) গ্রাম পুলিশ বাহিনীর গঠন, প্রশিক্ষণ, শৃঙ্খলা ও চাকরির শর্তাবলি সম্পর্কিত নির্ধারিত ছুটি, ভ্রমণভাতা, শান্তি বিনোদনভাতা, অন্যান্য আর্থিক সুবিধাদি প্রাপ্য হবেন। এ ছাড়া বিধিমালার বিধি ২১-এর উপবিধি (৪) (খ) অনুযায়ী কর্মস্থল থানার ১০ কিলোমিটারের মধ্যে হলে সপ্তাহে একবার, এর অধিক দূরত্ব হলে দুই সপ্তাহে একবার সাপ্তাহিক প্যারেডে অংশগ্রহণ করতে হবে। সেজন্য স্থাবর সম্পত্তি হস্তান্তর করের এক ভাগ হিসেবে প্রাপ্ত রাজস্ব থেকে গ্রাম পুলিশ সদস্যদের থানায় সপ্তাহে এক দিন হাজিরার জন্য যাতায়াত ও দৈনিক ভাতা বাবদ সাকুল্যে ৩০০ টাকা করে প্রদান করতে হবে। ২০১৭ সালে ১ মার্চ সিনিয়র সহকারী সচিব ড. সৈয়দা নওশীন পর্ণিনী স্বাক্ষরিত এক পত্রে এ নির্দেশনা দেয়া হয়। সেই নির্দেশনা অনুযায়ী তৎকালীন ময়মনসিংহের স্থানীয় সরকার উপ-পরিচালক হারুন-অর-রশিদ ২৩ মার্চ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধ জানান। কিন্তু ১০ মাস পেরিয়ে গেলেও গ্রাম পুলিশ সদস্যদের ভাতা দেয়ার বিষয়টি বাস্তবায়িত হয়নি।
গ্রাম পুলিশ সদস্য মোর্শেদ আলী বলেন, তাদের ন্যায্য পাওনা হাজিরা ভাতা। কিন্তু দীর্ঘ দিন পেরিয়ে গেলেও তাদের সে ভাতার টাকা দেয়া হচ্ছে না। গ্রাম পুলিশ সভাপতি বুলবুল মিয়া বলেন, নির্দেশনা দেয়ার ১০ মাস পেরিয়ে গেলেও তাদের ভাতার টাকা দেয়া হচ্ছে না। আশপাশের অন্যান্য উপজেলায় গ্রাম পুলিশ সদস্যদের ভাতার টাকা দেয়া হলেও তাদের ভাতার টাকা দেয়া হয়নি। প্রাপ্য ভাতার টাকা না পাওয়ায় ক্ষোভ জানান তিনি।
উপজেলা কমিউনিটি পুলিশিংয়ের সভাপতি হাবিবুর রহমান হলুদ বলেন, হাজিরা ভাতা পাওয়া গ্রাম পুলিশ সদস্যদের প্রাপ্য। কিন্তু অজ্ঞাত কারণে সেই ভাতার টাকা তাদের দেয়া হচ্ছে না।
ঈশ^রগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মিতু মরিয়ম বলেন, গ্রাম পুলিশ সদস্যরা এরিয়ার ভাতা দাবি করছেন। কিন্তু চিঠিতে সে বিষয়ে কিছু উল্লেখ নেই। সে কারণে জটিলতা তৈরি হয়েছে। গ্রাম পুলিশ সদস্যরা এরিয়ার ছাড়া ভাতা নিতে রাজি হলে তা দেয়া সম্ভব হবে।

 

 

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
সকল সংবাদ

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫