বিমানের ৪৬তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন বহরে সংযোজিত হচ্ছে বিশ্বের অত্যাধুনিক বোয়িং ৭৮৭-৮ ড্রিমলাইনার

জাতীয় পতাকাবাহী সংস্থা বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের আজ বৃহস্পতিবার ৪৬তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। ১৯৭২ সালের ৪ জানুয়ারি শুরু হয় বিমানের যাত্রা। দেশমাতৃকার স্বাধীনতার ৪৬ বছর আর বিমান প্রতিষ্ঠার ৪৬ বছর পূর্তি একই সাথে উদযাপিত হচ্ছে।
৪৬ বছর পূর্তির এই শুভলগ্নে বিমান এক নবযুগে প্রবেশ করছে। তার বহরে সর্বাধুনিক প্রযুক্তি সংবলিত নতুন উড়োজাহাজ বোয়িং ৭৮৭-৮ ড্রিমলাইনার সংযোজনের মাধ্যমে। স্টেট অব দ্য আর্ট টেকনোলজির ড্রিমলাইনার উড়োজাহাজে যাত্রীরা সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৪৩ হাজার ফিট উচ্চতায় ভ্রমণকালীন সময়ে ওয়াই ফাই সুবিধা পাবেন এবং বিশ্বের যেকোনো প্রান্তে প্রিয়জনের সাথে ফোনে কথা বলতে পারবেন। একই সাথে এই উড়োজাহাজে থাকছে বিশ্বমানের ইন-ফাইট এন্টারটেইনমেন্ট সিস্টেম (আইএফই)। যেখানে যাত্রীদের জন্য থাকছে কাসিক থেকে ব্লকবাস্টার মুভি, বিভিন্ন ঘরানার মিউজিক, ভিডিও গেমসসহ বিশ্বের খ্যাতনামা ৯টি টিভি চ্যানেলের রিয়াল টাইম লাইভ স্ট্রিমিং, অনলাইন কেনাকাটার সুবিধা, ক্রেডিটকার্ড/ক্যাশ পেমেন্ট অনবোর্ড ডিউটি ফ্রি শপসহ বিনোদনের ব্যাপক আয়োজন। ৪৬তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও এ এম মোসাদ্দিক আহমেদ বলেন, ২০১৮ সালে বিমান বহরে ২টি নতুন বোয়িং ৭৮৭-৮ ড্রিমলাইনার উড়োজাহাজ যুক্ত হওয়ার পাশাপাশি নতুন গন্তব্যে বিমান তার ডানা প্রসারিত করতে চায়। তিনি বলেন, বিমান এ বছর চীনের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্যিক নগরী গুয়াংজু, শ্রীলঙ্কার রাজধানী কলম্বো এবং মালদ্বীপের রাজধানী মালেতে তার নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণের উদ্যোগ নিয়েছে। বিমান মহাব্যবস্থাপক জনসংযোগ শাকিল মেরাজ জানান, বিগত ৪৬ বছরে বিমান ৫ কোটি ২৫ লাখ যাত্রী পরিবহন করেছে। সদ্যবিদায়ী অর্থবছর অর্থাৎ ২০১৬-১৭ অর্থবছরে বিমান নিট মুনাফা অর্জন করেছে ৪৭ কোটি টাকা। একই সময়ে রাষ্ট্রীয় কোষাগারে বিমান ৩৮১ কোটি টাকা রাজস্ব প্রদান করেছে। বিদায়ী অর্থবছরে বিমান যাত্রী পরিবহন করেছে ২৩ লাখ ৫১ হাজার এবং কার্গো পরিবহন করেছে ৩৩ হাজার ৫৪২ মেট্রিকটন। বিমান বহরে বর্তমানে রয়েছে ৪টি বোয়িং ৭৭৭-৩০০ ইআর, ২টি বোয়িং ৭৭৭-২০০ ইআর, ২টি বোয়িং ৭৩৭-৮০০, ২টি ড্যাশ-৮ কিউ ৪০০ এবং একটি এয়ারবাস এ৩৩০ উড়োজাহাজ। বিজ্ঞপ্তি।

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.