ইরানে উত্তেজনা : আঞ্চলিক অস্থিতিশীলতা বৃদ্ধির আশঙ্কা
ইরানে উত্তেজনা : আঞ্চলিক অস্থিতিশীলতা বৃদ্ধির আশঙ্কা

ইরানে উত্তেজনা : আঞ্চলিক অস্থিতিশীলতা বৃদ্ধির আশঙ্কা

নয়া দিগন্ত অনলাইন

যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরাইল ইতিমধ্যে চলমান বিক্ষোভ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, ইরানে পরিবর্তনের সময় এসে গেছে। এ ছাড়া সৌদি কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ উসকে দেওয়ার অভিযোগ এনেছে ইরান। গেল কয়েক মাসে ক্ষমতা সুসংহত করতে গিয়ে ইরানকে ক্ষুব্ধ করে, এমন অনেক পদক্ষেপ নিয়েছেন সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান।

যুক্তরাষ্ট্র, সৌদি আরব কিংবা ইসরাইল ইরানকে দুর্বল করতে চাইলেও আঞ্চলিক অস্থিতিশীলতা এড়াতে তাদের সতর্ক থাকতেই হবে। ইরান নিয়ে খেলতে যাওয়ার ফল হিতে-বিপরীতও হতে পারে। দেশটির সরকারকে দুর্বল করার চেষ্টা ওই অঞ্চলে অস্থিতিশীলতা আরো বাড়িয়ে দিতে পারে। হাসান রুহানি এক বছরের কম সময় আগে গণতান্ত্রিকভাবে পুনর্নির্বাচিত হলেও ট্রাম্পসহ মার্কিন নেতারা আশা প্রকাশ করছেন, ইরানে ‘দমনমূলক শাসকের’ পতন ঘটবে।

ইরানের ঘটনাপ্রবাহে ইসরায়েলও বেশ উৎফুল্ল। দেশটির কয়েকজন মন্ত্রী ইরান নিয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করে মন্তব্য করছেন। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু সমঝে বলার আহ্বান জানিয়েছেন। কারণ, ট্রাম্প ও মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স না থাকলেও ইসরাইল কিন্তু ঠিকই ইরানের তোপের মুখে আছে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.