ঢাকা, বুধবার,১৭ জানুয়ারি ২০১৮

মধ্যপ্রাচ্য

ইরানে বিক্ষোভ : ৩ দেশকে দায়ী করছে আইআরজিসি

নয়া দিগন্ত অনলাইন

০৩ জানুয়ারি ২০১৮,বুধবার, ১১:৪৫


প্রিন্ট
ব্রিগেডিয়ার জেনারেল রামজান শরীফ

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল রামজান শরীফ

ইরানের বিভিন্ন শহরে বিক্ষোভের নামে দাঙ্গাকারীদের প্রতি পরোক্ষ ও প্রত্যক্ষ সমর্থনের জন্য আমেরিকা, ইহুদিবাদী ইসরাইল এবং সৌদি আরবের নিন্দা করেছে ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসি।

এ বাহিনীর মুখপাত্র ব্রিগেডিয়ার জেনারেল রামজান শরীফ বলেছেন, এ দেশগুলো দাঙ্গাকারীদের প্রতি সমর্থন দিচ্ছে এবং তাদের এই সমর্থনের কারণে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকারী ও বিদেশী মদদপুষ্ট দাঙ্গাকারীদেরকে পার্থক্য করা সম্ভব হয়েছে।

জেনারেল রামজান শরীফ বলেন, হোয়াইট হাউজ ও শত্রুদের গুপ্তচর সংস্থাগুলো ইরানের জনগণকে ইসলামি বিপ্লব রক্ষা করার অঙ্গীকার থেকে সরিয়ে নিতে পারবে না।

জেনারেল রামজান শরীফ বলেন, শান্তিপূর্ণ উপায়ে পেশ করা বিক্ষোভকারীদের ন্যায্য দাবি বিবেচনা করবে সরকার এবং শিগগিরি পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে।

ইরানে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের প্রতি সমর্থন জানিয়ে নেতানিয়াহু'র ভিডিও বার্তা
ইরানে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের প্রতি সমর্থন জানিয়ে ভিডিও বার্তা দিয়েছেন ইহুদিবাদী ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। তিনি বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের উদ্দেশে বলেছেন, ‘আমি আপনাদের সাফল্য কামনা করছি। আপনাদের প্রতি আমার সমর্থন রয়েছে।’

এর আগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও এক বার্তায় বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের প্রতি সমর্থন ঘোষণা করেছেন। গোটা বিশ্বেই ট্রাম্প ও নেতানিয়াহু মুসলমানদের প্রধান শত্রু হিসেবে পরিচিত।

ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানে কিছু পণ্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় কয়েকটি শহরে ছোটখাটো সমাবেশ হয়েছে। সমাবেশে অংশগ্রহণকারীরা দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ, কয়েকটি আর্থিক প্রতিষ্ঠানে জমাকৃত অর্থ ফেরত পাওয়া নিয়ে সৃষ্ট জটিলতা নিরসন এবং সরকারের তদারকি কার্যক্রম জোরদারের আহ্বান জানিয়ে বিভিন্ন স্লোগান দিয়েছে।

কিন্তু কয়েকটি শহরে অনুষ্ঠিত ছোটখাটো এসব সমাবেশ নিয়ে ইহুদিবাদী ইসরাইল ও আমেরিকাসহ শত্রুরা নানা ষড়যন্ত্র শুরু করেছে।

ইরানে বিদেশী হস্তক্ষেপ প্রত্যাখ্যান করল তুরস্ক, রাশিয়া, সিরিয়া
ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে বিদেশী হস্তক্ষেপের ঘটনা প্রত্যাখ্যান করেছে রাশিয়া, তুরস্ক ও সিরিয়া। দেশ তিনটি আশা করছে, ইরানে আর কোনো সহিংসতার ঘটনা ঘটবে না।

সোমবার রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘এটা হচ্ছে সম্পূর্ণভাবে ইরানের অভ্যন্তরীণ বিষয়। বাইরের হস্তক্ষেপের মাধ্যমে পরিস্থিতিকে অস্থিতিশীল করে তোলার ঘটনা গ্রহণযোগ্য নয়। আমরা আশা করি, পরিস্থিতি রক্তপাত ও সহিংসতার দিকে যাবে না।’

দ্রব্যমূল্য বেড়ে যাওয়া ও দেশের অর্থনৈতিক অবস্থার বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে গত বৃহস্পতিবার থেকে ইরানের কয়েকটি শহরে কিছু মানুষ মিছিল-সমাবেশ করেছেন এবং বিক্ষিপ্ত কিছু সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে।

এদিকে, প্রতিবেশী তুরস্ক মঙ্গলবার বলেছে, ইরানের ভেতরে যেসব সহিংসতার খবর পাওয়া যাচ্ছে তা উদ্বেগজনক। সব রকমের সহিংসতা পরিহার করার আহ্বান জানিয়েছে তুর্কি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। পাশাপাশি বিদেশী হস্তক্ষেপ বন্ধেরও আশা করেছে দেশটি।

অন্যদিকে, ইরানের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপের জন্য আমেরিকা ও ইহুদিবাদী ইসরাইলের তীব্র নিন্দা করেছে সিরিয়া। দেশটি ইরানের জনগণের প্রতি সংহতি প্রকাশ করেছে। সিরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আশা করেছে- ইরানের নেতৃত্ব, সরকার ও জনগণ সব ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে উন্নয়নের পথে এগিয়ে যেতে সক্ষম হবে।

 

 

অন্যান্য সংবাদ

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫