ঢাকা, মঙ্গলবার,২৪ এপ্রিল ২০১৮

এশিয়া

‘সকল ঐশ্বরিক শিক্ষা সুমহান কল্যাণ আর ভালোবাসা দিয়ে সৃষ্টি হয়েছে ’

নয়া দিগন্ত অনলাইন

০২ জানুয়ারি ২০১৮,মঙ্গলবার, ১৭:১৩ | আপডেট: ০২ জানুয়ারি ২০১৮,মঙ্গলবার, ১৭:৪৯


প্রিন্ট
‘সকল ঐশ্বরিক শিক্ষা সুমহান কল্যাণ আর ভালোবাসা দিয়ে সৃষ্টি হয়েছে ’

‘সকল ঐশ্বরিক শিক্ষা সুমহান কল্যাণ আর ভালোবাসা দিয়ে সৃষ্টি হয়েছে ’

‘রাশিয়া বিয়ন্ড দ্য হেডলাইন’ নামে রাশিয়ার একটি ইংরেজি সংবাদ মাধ্যম ইসলামে ধর্মান্তরিত এক নারীর সাক্ষাৎকার নেয়। ২০০৯ সালে তিনি ইসলামে ধর্মান্তরিত হন।

নওমুসলিম ওলেআনা বলেন, ‘ইসলামের প্রতি ছোটবেলা থেকেই আমার আগ্রহ ছিল। বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময়ে আমি ইসলাম ধর্মের প্রাথমিক ধারণা পাই এবং আরবি শিখি। সেখানে আমার অনেক মুসলমান বন্ধু ছিল। বর্তমানে সমাজে মুসলিমদের নিয়ে স্বাভাবিকভাবে যা বিবেচনা করা হয়ে থাকে তাদের সবার আচরণ ছিল তা থেকে সম্পূর্ণ ভিন্ন। এ কারণেই আমি ইসলামে দীক্ষিত হওয়ার সিদ্ধান্ত নেই। আমার বাবা-মা ও ঘনিষ্ঠ বন্ধুরা আমার পছন্দ বুঝতে পেরেছিল যেমনটি তারা আশা করেছিল।’

‘আমি স্কার্ফ পরি না তবে নামাজের সময় নিজেকে পরিপূর্ণভাবে ঢেকে নেই। প্রথমে রোজা রাখাটাও আমার জন্য কঠিন ছিল কিন্তু আমি গত তিন বছরে এতে অভ্যস্ত হয়ে গেছি। এছাড়াও ইসলাম নিয়ে গৎবাঁধা কিছু বিষয় নিয়ে লড়াই করতে হচ্ছে। অনেকে বিশ্বাস করেন, ইসলাম একটি নিষ্ঠুর ধর্ম। আমি দ্ব্যর্থহীনভাবে এমন মতের সঙ্গে ভিন্নমত পোষন করি। আমি মনে করি সকল ঐশ্বরিক শিক্ষা সুমহান কল্যাণ আর ভালোবাসা দিয়ে সৃষ্টি হয়েছে,’ বলেন ওলেয়ানা।

তিনি বলেন, ‘ইসলামে কথিত গৎবাঁধা অনেক বিষয় আছে। উদাহরণস্বরূপ, মুসলমান কর্তৃক কাফের হত্যা, প্রাণি জবাই, স্ত্রীদের মারধর ও অবিশ্বাসীদের গ্রহণ না করা ইত্যাদি। এই মনোভাবের কারণ হচ্ছে অজ্ঞতা। আপনি কিছু বুঝতে না পারলে কিংবা কোনো বিষয়ে ভয় পেলে আপনার উচিত হবে সেই ভয় বাস্তবসম্মত কিনা তা খুঁজে বের করা। আমি মনে করি ধর্মের সঠিক অনুশীলনকারীদের সঙ্গে যোগাযোগ এবং সচেতনতা বৃদ্ধিই পারে তাদের এই ভয় দূর করতে।’

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫