পাঠ্যপুস্তক উৎসব
পাঠ্যপুস্তক উৎসব

আজ বিনামূল্যের পাঠ্যপুস্তক উৎসব

নিজস্ব প্রতিবেদক

সারা দেশের প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্কুলে বিনামূল্যের পাঠ্যপুস্তক উৎসব হবে আজ। ২০১৮ শিক্ষাবর্ষের জন্য বিনামূল্যের ৩৫ কোটি ৪২ লাখ ৯০ হাজার ১৬২টি পাঠ্যবই বিতরণ করা হবে শিক্ষার্থীদের মধ্যে। প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরে চার কোটি ৪২ লাখ চার হাজার ১৯৭ জন শিার্থী রয়েছে বলে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের পরিসংখ্যানে বলা হয়েছে।
গত কয়েক বছরের মতো আজো নতুন ইংরেজি বর্ষের প্রথম দিন উৎসবের মাধ্যমে শিাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে বিনামূল্যের বই বিতরণ করা হবে। শিশু-কিশোর শিক্ষার্থীরা খালি হাতে স্কুলে আসবে, আর নতুন ঝকঝকে বই নিয়ে ঘরে ফিরবে। নতুন বছরে নতুন শ্রেণীতে ওঠার উচ্ছ্বাস আর নতুন বইপ্রাপ্তির আনন্দ দুয়ে মিলে খুশির বন্যা বয়ে যাবে দেশের প্রতিটি স্কুলে।
গত পরশু বিনামূল্যের পাঠ্যবই বিতরণের প্রতীকী উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গণভবনে রাজধানীর বিভিন্ন স্কুলের একদল শিক্ষার্থীর হাতে নতুন শিক্ষাবর্ষের বিনামূল্যের পাঠ্যবই তুলে দেন তিনি। এর আগে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ মাধ্যমিক স্তরের এক সেট এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার প্রাথমিক স্তরের এক সেট বই প্রধানমন্ত্রীর হাতে তুলে দেন। পরে রাজধানীর বিভিন্ন স্কুল-মাদরাসা-কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নির্বাচিত কিছু শিক্ষার্থীর হাতে নতুন বছরের বই তুলে দিয়ে বিনামূল্যের পাঠ্যবই বিতরণ উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।
আজ ঢাকায় কেন্দ্রীয়ভাবে মূল উৎসবের মধ্য দিয়ে শিার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দেয়া হবে। সকালে আজিমপুর গভ: গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে মাধ্যমিকের এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের খেলার মাঠে প্রাথমিকের কেন্দ্রীয় উৎসব অনুষ্ঠিত হবে। দুই মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন। এ ছাড়া সারা দেশে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আজ অনুরূপ অনুষ্ঠান হবে। এতে স্কুলের সব শিক্ষার্থীকে বিনামূল্যে ২০১৮ শিক্ষাবর্ষের পাঠ্যবই বিতরণ করা হবে।
প্রাথমিকের শিার্থীদের অনেক আগে থেকে বিনামূল্যে বই দেয়া হলেও ২০১০ সাল থেকে পঞ্চম থেকে নবম শ্রেণীর সব শিার্থীকে বিনামূল্যে বই দিয়ে আসছে সরকার। এনসিটিবি জানিয়েছে, গত বছরের চেয়ে এবার ১০ লাখ ৭০ হাজার ৯৬৬ জন শিার্থী বেড়েছে। ফলে এবার ৭১ লাখ ৯৩ হাজার ৩৬৯টি বই বেশি ছাপা হয়েছে। নতুন বছরের প্রথম দিন ৩৫ কোটি ৪২ লাখ ৯০ হাজার ১৬২টি বই বিতরণ করা হবে।
এনসিটিবি সূত্রে দাবি করা হয়েছে, দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গতকালের মধ্যেই চাহিদামতো সব বই পৌঁছে দেয়া হয়েছে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.