আমরণ অনশনে নন এমপিও শিক্ষক-কর্মচারীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক

টানা পাঁচ দিন অবস্থান কর্মসূচি শেষে আজ রোববার থেকে আমরণ অনশন শুরু করেছেন নন এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীরা।

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে অনশনরত শিক্ষকরা জানান, সকাল সাড়ে ১০টা থেকে তারা আমরণ অনশন শুরু করেন। এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মতো নন এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও একই নিয়মনীতিতে পরিচালিত হয়। একই শিক্ষাক্রম, পাঠ্যক্রম ও প্রশ্নপদ্ধতি অনুসরণ করে। শিক্ষার্থীরাও বোর্ড থেকে একই মানের সনদ অর্জন করে। অথচ এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকেরা বেতন পান না। তাদের একটাই দাবি, স্বীকৃতপ্রাপ্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীকে এমপিওভুক্ত করতে হবে। অন্যথায় তারা ঘরে ফিরে যাবেন না।

গতকাল শিক্ষামন্ত্রী অবস্থান ধর্মঘটরত শিক্ষকদের ঘরে ফিরে যাওয়ার আহবান জানালে শিক্ষক-কর্মচারীরা তা প্রত্যাখ্যান করেন এবং আজ সকাল থেকে আমরণ অনশন শুরু করেন।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে দেশে প্রায় সাড়ে ২৬ হাজার এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আছে। এসব প্রতিষ্ঠানে প্রায় পাঁচ লাখ শিক্ষক-কর্মচারী রয়েছেন। এর বাইরে শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক স্বীকৃতিপ্রাপ্ত নন এমপিওভুক্ত প্রতিষ্ঠান আছে পাঁচ হাজার ২৪২টি। এগুলোতে শিক্ষক-কর্মচারীর সংখ্যা ৭৫ থেকে ৮০ হাজার। সর্বশেষ ২০১০ সালে নতুন করে সর্বশেষ দফায় এক হাজার ৬২৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করা হয়েছিল। স্বীকৃত প্রাপ্ত সব স্কুল, কলেজ, মাদরাসা ও কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করার দাবিতে গত মঙ্গলবার থেকে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করে আসছেন এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীরা। নন এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারী ফেডারেশনের ডাকে এ কর্মসূচি চলছে। গত শুক্রবার ফেডারেশনের নেতারা বৈঠক করে রবিবার থেকে অনশন কর্মসূচির সিদ্ধান্ত নেন।

নন এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি অধ্যক্ষ গোলাম মাহমুদুন্নবী ডলার নয়া দিগন্তকে বলেন, ২০১১ সাল থেকে সরকার শুধু আশ্বাসই দিচ্ছে। তাই এবার দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত প্রাণ গেলেও তারা অনশন থেকে সরবেন না। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা চান তারা। অনশনে যোগ দিতে বিভিন্ন স্থান থেকে এক হাজারের বেশি শিক্ষক-কর্মচারী ঢাকায় আসছেন বলে জানান তিনি।

সংগঠনের সভাপতি অধ্যক্ষ গোলাম মাহমুদুন্নবী বলেন, টানা পাঁচদিন আন্দোলন চালিয়ে গেলেও আমাদের দিকে কেউ মুখ তুলে দেখছে না। শিক্ষক-কর্মচারীরা নিজেদের অধিকার আদায়ে টানা পাঁচদিন ধরে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার পরও দাবি আদায় হয়নি। তাই আজ থেকে আমরা আমরণ অনশন পালন করতে বাধ্য হয়েছি।

বিকেলে অনশনরত একাধিক শিক্ষকের সাথে আলাপকালে তারা বলেন, দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত অনশন অব্যাহত থাকবে। তারা বলেন, অনশন থেকে নেতারা চলে গেলেও আমরা ঘরে ফিরে যাব না। কি নিয়ে ফিরব? ঘরে ফিরে সন্তান ও স্ত্রীকে কি জবাব দেব? তাদের বলে এসেছি ঢাকা যাচ্ছি বেতন-ভাতা আনতে। এখন খালি হাতে ফিরে গেলে তাদের কি দিয়ে আশ্বস্ত করব? অনশন করতে যদি জীবনও যায় তা হলে লাশ হয়েই ঘরে ফিরব।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.