ঢাকা, মঙ্গলবার,১৬ জানুয়ারি ২০১৮

ভ্রমণ

সেন্টমার্টিনের এই রূপ কি দেখেছেন? দেখুন মুগ্ধ হবেন (ভিডিওসহ)

নয়া দিগন্ত অনলাইন

২৮ ডিসেম্বর ২০১৭,বৃহস্পতিবার, ১৫:২৩ | আপডেট: ২৮ ডিসেম্বর ২০১৭,বৃহস্পতিবার, ১৫:৪১


প্রিন্ট
ঢেউগুলো আঁছড়ে পড়ছে তীরে (ভিডিও থেকে নেয়া)

ঢেউগুলো আঁছড়ে পড়ছে তীরে (ভিডিও থেকে নেয়া)

প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিন। সম্প্রতি শখের বসে ড্রোন থেকে এই দ্বীপের কিছু ভিডিও-চিত্র ধারণ করেন তরুণ আলোকচিত্রী আল আমিন আবু আহমেদ আশরাফ দোলন। সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্বিবদ্যালয় থেকে স্থাপত্য নিয়ে পড়াশোনা শেষ করেন তিনি।

বহু আগে থেকেই ভিডিও করার শখ দোলনের। তাই সম্প্রতি প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিনে বেড়াতে গিয়ে সেখানকার কিছু ভিডিও-চিত্র ধারণ করে ফেলেন ড্রোন ক্যামেরায়।

পরে সেন্টমার্টিনের সেই ভিডিও তিনি ‘আপলোড' করেন নিজের ফেসবুক পেজে। দোলনের করা ভিডিওতে বাংলাদেশের এই প্রবাল দ্বীপকে ভিন্নভাবে দেখতে পাবেন ভ্রমণ পিপাসুরা।

মাত্র দুই সপ্তাহ আগে ‘আপলোড' করা ভিডিওটি ইতোমধ্যেই লক্ষাধিকবার দেখা হয়েছে। এছাড়া ভিডিওটি নিজেদের ‘ওয়ালে' ‘শেয়ার' করেছেন প্রায় দেড় হাজার মানুষ, যাতে লাইক রয়েছে চার হাজারেররও বেশি। আর মজার মজার মন্তব্য করেছেন প্রায় চার শ' জন।

বাংলাদেশের সর্ব দক্ষিণে বঙ্গোপসাগরের উত্তর-পূর্বাংশে ছোট্ট প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিন। কক্সবাজারের টেকনাফ থেকে প্রায় নয় কিলোমিটার সমুদ্রগর্ভে এই দ্বীপের অবস্থান। প্রায় ১৬ বর্গকিলোমিটার দীর্ঘ এ দ্বীপের আকর্ষণ সমুদ্র সৈকত জুড়ে প্রবাল পাথরের মেলা, সারিসারি নারকেল গাছ, দিগন্তে হারিয়ে যাওয়া সমুদ্রের নীল জলরাশি আর এখানকার অধিবাসীদের বিচিত্র জীবনধারা। প্রচুর নারিকেল গাছ থাকায় স্থানীয়ভাবে এটি ‘নারিকেল জিঞ্জিরা' নামেই পরিচিত।

দেখুন সেই ভিডিও-

 

 

- ডয়চে ভেলে

 

চলনবিলে অতিথি পাখির মিলন মেলা

আখতারুজ্জামান, সিংড়া (নাটোর)

শীতের শুরুতেই অতিথি পাখির কলকাকলিতে মুখরিত হয়ে উঠেছে নাটোরের চলনবিল। চলনবিলের প্রাকৃতিক পরিবেশের মধ্যে চোখ জুড়ানো দৃশ্যের একটি অন্যতম বিভিন্ন প্রজাতির নানা আকৃতির পাখি। বিলে পাখিদের কোলাহল, কলরব, ডানা মেলে অবাধ বিচরণ, ঝাঁকে ঝাঁকে শীতের শুরুতে অতিথি পাখিদের আগমন সকলেরই দৃষ্টি আকর্ষণ করে। তাই পুরো চলনবিল এখন অতিথি পাখির আগমনে মুখরিত।

সূত্রে জানা যায়, নাটোর ও পাবনা জেলা জুড়ে বিস্তৃত এই চলনবিল। বিশেষ করে সিংড়া উপজেলার অধিকাংশ স্থান জুড়ে এর অবস্থান। সিংড়া-বারুহাস-তাড়াশ ডুবন্ত সড়কে নামলেই চোখ-মন ছুঁয়ে যায় সবুজের সমারোহ, বক ও বালিহাস সহ অসংখ্য অতিথি পাখির ওড়াউড়ি, দূরের গ্রাম, জল-মাটি-মানুষসহ আরও কত কী! আর মাছে ভরপুর হাটু পানিতে প্রতিদিন ঝাঁকে ঝাঁকে অতিথি পাখিদের মিলন মেলায় যেন স্বর্গীয় পরিবেশ তৈরি হয়েছে চলনবিল জুড়ে। দিনের আলোতে চলনবিল জুড়ে দলবদ্ধ ভাবে অতিথি পাখির বিচরন করার চিত্র যে কাউকেই মুগ্ধ করবে।

চলনবিল জীববৈচিত্র্য রক্ষা কমিটির সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মোঃ সাইফুল ইসলাম জানান, প্রতি বছর এই সময় মৎস্য ভান্ডার খ্যাত চলনবিলে নিজেদের আহার যোগাতে বক, বালিহাস, প্রাণকৌড়ি, শামুককল সহ বিভিন্ন প্রজাতির ঝাঁকে ঝাঁকে অতিথি পাখির আগমন ঘটে। আর থাকে মার্চ মাসের শেষ সপ্তাহ পর্যন্ত।

পরিবেশবাদী সংগঠন চলনবিল জীববৈচিত্র্য রক্ষা কমিটির সদস্যরা পাখি শিকারের বিরুদ্ধে প্রশাসনকে অবহিত করণ ও গণসচেতনতা মূলক বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ করেছে।

সিংড়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম শফিক জানান, শীত এলেই সাতপুকুরিয়া, ডাহিয়া, বেড়াবাড়ী, নিংগইন, জোড়মল্লিকা সহ চলনবিলের বিভিন্ন এলাকায় অতিথি পাখি ভীড় করে।
আর এসময় পাখি শিকারীদের উৎপাতও বেড়ে যায়। এতে করে বিলের সৌন্দর্য্যও জীব-বৈচিত্র্য হুমকির সম্মূখীন হচ্ছে। চলনবিলের পাখি ও জীববৈচিত্র্য রক্ষার বিষয়ে তৃণমুল পর্যায়ে গণসচেতনতা নিশ্চিত করণে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ বিভিন্ন পরিবেশবাদী সংগঠন কাজ করছে।

তবে বিল পাড়ের মানুষের মধ্যে অসচেতনতার কারণে ইতিমধ্যে ডাহুক, তীরশুল, নলকাক, ভাড়ই, রাংগাবনী, গাংচিল, রাতচড়া, হুটটিটি, হারগিলা, ঈগল উল্লেখযোগ্য বেশকিছু পাখি বিলিন হয়ে গেছে।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫