ঢাকা, শুক্রবার,১৯ জানুয়ারি ২০১৮

চট্টলা সংবাদ

মেট্রোপলিটন চেম্বারের মেলায় পিএইচপি অটোমোবাইলসের শোরুম উদ্বোধন

চট্টগ্রাম ব্যুরো

২৮ ডিসেম্বর ২০১৭,বৃহস্পতিবার, ০০:০০


প্রিন্ট

পিএইচপি পরিবারের পরিচালক মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম রিংকু বলেছেন, পিএইচপি পরিবার কম মূল্যে নতুন মোটরগাড়ি তৈরি করছে। বিশ্বখ্যাত মালয়েশিয়ার প্রোটন কারের বিভিন্ন ব্র্যান্ড পিএইচপি ফ্যামিলি এ দেশে তৈরি শুরু করেছে। ক্রেতাদের জন্য নতুন গাড়িগুলো বিভিন্ন শোরুমে পাঠানো হচ্ছে। তিনি পুরনো ও রিকন্ডিশন গাড়ির পরিবর্তে এ দেশের অহঙ্কার, দেশের তৈরী প্রোটন গাড়ি ব্যবহার করার জন্য সবার কাছে আহ্বান জানান।
তিনি গত সোমবার বিকেলে চট্টগ্রামের হালিশহরে মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির মেলায় পিএইচপি অটোমোবাইলসের শোরুম উদ্বোধন করে এ কথাগুলো বলছিলেন।
পিএইচপি অটোমোবাইলসের এডভাইজার মোহম্মদ আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে পিএইচপি প্রোটন গাড়ি ও কমার্শিয়াল ভেহিকেলসের বিক্রয় প্রধান মেজবাহ উদ্দিন আতিক ও এস এম শাহিনুর রহমানসহ পিএইচপি পরিবারের বিভিন্ন বিভাগের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। শোরুমে প্রোটন প্রিভি, প্রোটন সাগা ও প্রোটন এক্সোরা ছাড়াও পিএইচপির বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মোটরসাইকেল এবং কমার্শিয়াল ও পেসেঞ্জারস ভেহিক্যালস্ বিশেষ মূল্যে ক্রয় করা যাবে। তা ছাড়া মেলায় ক্রয়কৃত গাড়িগুলো পিএইচপির পক্ষ থেকে বিনামূল্যে রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করা হবে বলে সেলস প্রধান মেজবাহ উদ্দিন আতিক জানান।
জহিরুল ইসলাম রিংকু আরো বলেন, পিএইচপি ফ্যামিলি দেশে গাড়ি তৈরির কারখানা প্রতিষ্ঠার কাজ ইতোমধ্যে সম্পন্ন করছে। প্রোটনসহ সব ব্র্যান্ডের গাড়ির রিপেয়ারিং, মেইনটেন্যান্স অ্যান্ড সার্ভিসিংয়ের জন্য চট্টগ্রামে সর্বাধুনিক ওয়ার্কশপের মাধ্যমে পিএইচপি মোটরস যাত্রা শুরু করেছে। চট্টগ্রামের পাশাপাশি ঢাকায় আরো দুটি এবং সিলেটে একটি গাড়ির ওয়ার্কশপ তৈরি করা হচ্ছে। তিনি আশা প্রকাশ করেন, পিএইচপির বিভিন্ন কলকারখানায় আগামী ১০-১২ বছরের মধ্যে ৫০ হাজারেরও বেশি লোকের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে। পিএইচপি মোটরসে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের গাড়ির মান অুণœ রেখেই রিপেয়ারিং, মেইনটেন্যান্স অ্যান্ড সার্ভিসিংয়ের কাজ করারও প্রত্যয় ব্যক্ত করেন তিনি।

 

 

 

অন্যান্য সংবাদ

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫