ঢাকা, সোমবার,২২ জানুয়ারি ২০১৮

ক্রিকেট

পার্টনারশিপ হচ্ছে না কুমিল্লার

নয়া দিগন্ত অনলাইন

১১ ডিসেম্বর ২০১৭,সোমবার, ২০:১৬


প্রিন্ট
পার্টনারশিপ হচ্ছে না কুমিল্লার

পার্টনারশিপ হচ্ছে না কুমিল্লার

রংপুর রাইডার্সের ছুঁড়ে দেয়া ১৯৩ রানের জবাব দিচ্ছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। তারা ১২ ওভারে করেছে ৩ উইকেটে ৯৪ রান। খুব একটা পিছিয়ে না থাকলেও পার্টনারশিপ গড়তে পারছে না কুমিল্লা। এক লিটন দাস ছাড়া আর কেউ দাঁড়াতে পারছেন না। লিটন ৩৯ রানে ক্রিজে আছেন।

কুমিল্লার তামিম ৩৬ , ইমরুল কায়েস ০ এবং শোয়েব মালিক ১০ রানে বিদায় নিয়েছেন।

রংপুর রাইডার্সের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ১৯২ রান
ওয়েস্ট ইন্ডিজের জনসন চার্লসের অনবদ্য সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) টুয়েন্টি টুয়েন্টি ক্রিকেটের পঞ্চম আসরের দ্বিতীয় কোয়ালিফাইয়ার ম্যাচে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সকে জয়ের জন্য ১৯৩ রানের টার্গেট দিলো রংপুর রাইডার্স।

গতকাল মিরপুর শেরে বাংলা টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিং বেছে নেয় কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। ব্যাটিং-এ নেমে ৭ ওভারে ১ উইকেটে ৫৫ রান তুলে রংপুর। এরপরই বৃষ্টির কারণে খেলা বন্ধ হয়ে যায়। পরবর্তীতে রাত ৮টা ৫৪ মিনিটে বৃষ্টি থেমে গেলেও মাঠ পরিচর্যার পরও মাঠে খেলা গড়ায়নি। পরবর্তীতে গতকালের খেলার বাকী অংশ আজ করার ঘোষণা দেয় বিপিএল কর্তৃপক্ষ। যার প্রেক্ষিতে আজ সন্ধ্যা ৬টায় ম্যাচের অষ্টম ওভার থেকে খেলা শুরু করে রংপুর ও কুমিল্লা।

গতকাল ব্যাটিং-এ নেমে উদ্বোধনী জুটিতে ২৫ বলে ২৭ রান তুলেছিলেন রংপুরের দুই ওপেনার ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিস গেইল ও জনসন চার্লস। মাত্র ৩ রান করে গেইল ফিরলেও, নিউজিল্যান্ডের ব্রেন্ডন ম্যাককালামকে নিয়ে ইনিংস মেরামত করেন চার্লস। বৃষ্টিতে খেলা বন্ধ হবার আগে ৭ ওভার পর্যন্ত ব্যাট করেন তারা। এসময় ৪টি করে চার ও ছক্কায় মাত্র ২৬ বলে অপরাজিত ৪৬ রান করেন চার্লস। ৪ রানে অপরাজিত থাকেন ম্যাককালাম।
চার্লস ৪৬ ও ম্যাককালাম ৪ রান নিয়ে আজ খেলা শুরু করেন। ব্যাট হাতে ক্রিজে গিয়েই দেখেশুনে খেলা শুরু করেন দু’জনেই। প্রথম দুই অর্থাৎ অষ্টম ও নবম ওভারে যথাক্রমে ৪ ও ২ রান নেন তারা। দশম ওভারে দু’জনে দু’টি ছক্কা মারলেও, ১১ ও ১২তম ওভারে যথাক্রমে ৩ ও ৬ রান নেন চার্লস ও ম্যাককালাম।

তবে ১৩তম ওভার থেকে শুরু হয় চার্লস ও ম্যাককালামের বিধ্বংসী রূপ। ঐ ওভারে কুমিল্লার মিডিয়াম পেসার মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনকে পরপর দু’টি ছক্কা মারেন চার্লস। পরের ওভারে জিম্বাবুয়ের গ্রায়েম ক্রেমারকে পরপর দু’টি ছক্কা মারেন ম্যাককালামও। এতে বড় সংগ্রহের পথ পেয়ে যায় রংপুর। ১৫ ওভার শেষে দলীয় স্কোর ১ উইকেটে ১২৮ রানে নিয়ে যান এ জুটি। এসময় চার্লস ৫২ বলে ৮০ ও ম্যাককালাম ২৮ বলে ৪১ রানে অপরাজিত ছিলেন।
এরপর ১৯তম ওভারের শেষ বলে বিচ্ছিন্ন হন চার্লস ও ম্যাককালাম। ১৫ থেকে ১৯তম ওভারের ২৪ বলে ম্যাককালাম ৫টি ছক্কা ও ১টি চার মারেন। এরমধ্যে কুমিল্লার আল-আমিন হোসেনের এক ওভারে ৩টি ছক্কাও হাঁকান ম্যাক। আর চার্লসের মারেন ২টি চার।

১৯তম ওভারে শেষ বলে কুমিল্লার পেসার হাসান আলীর স্লোয়ারে বোল্ড হন ম্যাককালাম। ৪৬ বলে মাত্র ১টি চার ও ৯টি ছক্কায় ৭৮ রান করেন তিনি চার্লস-ম্যাককালাম জুটিতে ৮৯ বলে ১৫১ রান যোগ করেন।

ম্যাককালাম যখন ফিরে যান তখন চার্লসের রান ৫৮ বলে ৯২ রান। ওভারে সেঞ্চুরির জন্য ৮ রান প্রয়োজন পড়ে চার্লসের। সাইফউদ্দিনের প্রথম ও পঞ্চম ডেলিভারিতে এবং নিজের ৬২তম বলে বাউন্ডারি হাকিঁয়ে এবারের বিপিএলে দ্বিতীয় সেঞ্চুরি তুলে নেন চার্লস। টি-২০ ক্যারিয়ারে এটিই প্রথম সেঞ্চুরি চার্লসের। ইনিংসের শেষ বলেও বাউন্ডারি মেরে শেষ পর্যন্ত ৯টি চার ও ৭টি ছক্কায় ৬৩ বলে অপরাজিত ১০৫ রান করেন চার্লস। শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ২০ ওভারে ৩ উইকেটে ১৯২ রানের সংগ্রহ পায় রংপুর। কুমিল্লার মেহেদি হাসান, হাসান আলী ও সাইফউদ্দিন ১টি করে উইকেট নেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর :
রংপুর রাইডার্স : ১৯২/৩, ২০ ওভার (চার্লস ১০৫*, ম্যাককালাম ৭৮, হাসান ১/২৩)।

 

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫