আঙুর উদ্যানে বিয়ের রিসর্ট ভাড়া কোহলি-অনুষ্কার
আঙুর উদ্যানে বিয়ের রিসর্ট ভাড়া কোহলি-অনুষ্কার

আঙুর উদ্যানে বিয়ের রিসর্ট ভাড়া কোহলি-অনুষ্কার

নয়া দিগন্ত অনলাইন

মিডিয়াকে বড় করে ভেংচি দেখিয়ে বিয়ে নিয়ে ‘স্পিকটি নট’ থাকার চেষ্টায় তাদের খামতি ছিল না সত্যিই। শুধু কী ওরা দু’জন! সাংবাদিকদের হাজারও প্রশ্নের মুখে ‘রা’ পর্যন্ত কাড়েননি তাদের পরিবারের সদস্যরাও। কিন্তু ওই যে! শাক দিয়ে মাছ যে এ যুগেও ঢেকে রাখা যায় না! তাই ভারতের ক্রিকেট অধিনায়ক বিরাট কোহলি এবং বলিউড অভিনেত্রী অনুষ্কা শর্মা যে অবশেষে বিয়ের আসরে বসছেনই, সেই খবরের সুবাস ছড়িয়ে পড়ার পর এবার ফাঁস হয়ে গেল তাদের বিয়ের ভেন্যুও।

ইতালির টাস্কানিই যে বিরুষ্কার ‘ওয়েডিং ডেস্টিনেশন’, সে খবর বাসি। টাটকা খবর হল এই যে, টাস্কানির মনোরম আঙুর খেতের মাঝে অবস্থিত একটি বিলাসবহুল রিসর্টে ভারত অধিনায়ক এবং বলিউড অভিনেত্রীর প্রেম বদলে যেতে চলেছে বিবাহ বন্ধনে। বিবাহবাসরটি আগে ছিল হেরিটেজ প্রপার্টি। পরে একে রিসর্টে বদলে ফেলা হয়। এর সামনে দিয়ে চলে গিয়েছে সরু, অপ্রশস্ত রাস্তা। বিরাট এবং অনুষ্কার বিয়ে যে এই রিসর্টেই হতে চলেছে, ইতিমধ্যেই তার হাতেগরম প্রমাণও মিলে গিয়েছে। সূত্রের দাবি, পেশাদার ভাংরা ডান্সারদের রিসর্টের ভিতর প্রবেশ করতে দেখা গিয়েছে। ঢোল-নাগাড়া-ড্রামের তালে তালে তাদের নাচের মহড়ার শব্দ ভেসে এসেছে বাইরে। যা জানা যাচ্ছে, এটিই হলো সেই বহু প্রতীক্ষিত স্থান।

অস্ট্রেলিয়ার অ্যাডিলেড ওভালও বিরাট ও অনুষ্কার বিয়ের আয়োজন করতে আগ্রহী ছিল। তাদের পক্ষ থেকে অনুরোধ জানানো হয়েছিল, যেন জীবনের নয়া ইনিংসও এই মাঠেই শুরু করেন বিরাট। কিন্তু ভিতর ভিতর আগে থেকেই যে সব ঠিক হয়ে গিয়েছিল। তাই পরিকল্পনায় কোনো বদল আসেনি। ইতালিতেই বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে পড়ছেন দুই লাভ বার্ড।

বিয়ে নাকি হবে সম্পূর্ণ পাঞ্জাবি মতে। বিবাহ অনুষ্ঠান হবে দিনের বেলায়, আর রাতে পার্টি। বড়দিনের পর আগামী ২৬ ডিসেম্বর, মঙ্গলবার মুম্বইয়ে গ্র্যান্ড রিসেপশনের আয়োজন করেছেন বিরাট। সেখানে নিমন্ত্রিতদের তালিকায় রয়েছেন বিসিসিআই-এর কর্তাব্যক্তিরা, বলিউড সেলিব্রিটি, রাজনৈতিক জগতের ব্যক্তিত্বরা। এমন হাই প্রোফাইল বিয়ে আর সাদামাটা গেস্ট লিস্ট? নৈব নৈব চ! শোনা যাচ্ছে, বিরুষ্কার বিয়ের সম্ভাব্য তালিকায় রয়েছেন শচিন টেন্ডুলকার, যুবরাজ সিং, শাহরুখ খান, আমির খান, আদিত্য চোপড়ার মতো তারকারা।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.