জায়েদ-পরীমনির  অন্তরজ্বালা
জায়েদ-পরীমনির অন্তরজ্বালা

জায়েদ-পরীমনির অন্তরজ্বালা

অভি মঈনুদ্দীন

অমর নায়ক মান্নাকে উৎসর্গ করে আগামী ১৫ ডিসেম্বর অর্থাৎ বিজয় দিবসের আগেরদিন মুক্তি পাচ্ছে মালেক আফসারী পরিচালিত চলচ্চিত্র ‘অন্তরজ্বালা’। এরইমধ্যে চলচ্চিত্রটির গান এবং গত বৃহস্পতিবার ইউটিউবে প্রকাশিত চলচ্চিত্রটির ট্রেলার দর্শকের মধ্যে বেশ আগ্রহের সৃষ্টি করেছে।

অনেকেই বলছেন এই চলচ্চিত্র মুক্তির পর জায়েদ খানের অভিনয় সম্পর্কে সবার ধারণা পাল্টে যাবে। আবার অভিনেত্রী হিসেবে পরীক্ষিত নায়িকা পরীমণিকে নতুনরূপে দেখতে পাবেন দর্শক।

চলচ্চিত্রটির গল্প প্রসঙ্গে পরিচালক মালেক আফসারী বলেন,‘ আলাল নামের ছোট্ট একটি ছেলের নায়ক মান্নার সিনেমা দেখাকে কেন্দ্র করেই এর গল্প এগিয়ে যাবে। মান্নার সিনেমা হলে দেখতে গিয়ে আলাল নামের ছেলেটির জীবন অন্যরকম হয়ে যায়।’

জায়েদ ও পরীমণির অভিনয় প্রসঙ্গে মালেক আলফসারী বলেন,‘ জায়েদ তার অভিনয় জীবনের সেরা অভিনয় করেছেন। যেভাবে তাকে অভিনয়য় করতে বলা হয়েছে সেভাবেই তিনি অভিনয় করেছেন। গেটআপ এবং অভিনয় সবমিলিয়ে দর্শক নতুন এক জায়েদকে দেখতে পাবেন। আর পরীমণি তো দক্ষ একজন অভিনেত্রী। তাকে সিচুয়েশন বুঝিয়ে দিয়ে দিলেই সাবলীলভাবে নিজের চরিত্র ফুটিয়ে তুলতে পারেন। এটা তার দারুণ এক ক্ষমতা। আমি দু’জনের অভিনয় নিয়েই দারুণ আশাবাদী। আমার বিশ্বাস বছরের শেষপ্রান্তে এসে অন্তরজ্বালা দর্শকের মধ্যে নতুন এক উন্মাদনার সৃষ্টি করবে।’

আগামী ১৫ ডিসেম্বর সারা দেশের ১৭৫টি সিনেমা হলে জায়েদ ও পরীমনি’র ‘অন্তরজ্বালা’ মুক্তি পাবে বলে আশা করা যাচ্ছে। চিত্রনায়ক জায়েদ খান বলেন,‘ এর আগে পর্দায় দর্শক নায়ক জায়েদ খানকে দেখেছেন। এই চলচ্চিত্রে দর্শক অভিনেতা জায়েদ খানকে দেখবেন। প্রায় দশ বছর পর রূপালী পর্দায় দর্শক মান্না ভাইকে দেখবেন এবং তার প্রতি কতোটা শ্রদ্ধা, ভালোবাসা প্রদর্শন করে তাকে এই চলচ্চিত্রে উপস্থাপনা করা হয়েছে তা দর্শকের দেখার জন্য অন্তরজ্বালা হলে হলে গিয়ে দেখা উচিত।’

‘অন্তরজ্বালা’ চলচ্চিত্রের নামকরণ করেছেন পরীমণি। পরীমণি বলেন,‘কাহিনী পড়ার পর চোখের সামনে পুরো চরিত্র ভেসে উঠেছিলো। তখনই আসলে নামটি আমার মাথায় আসে। সাথে সাথেই এর নাম দিই অন্তরজ্বালা’।

মালেক আফসারী জানান, ‘অন্তরজ্বালা’র কাহিনী, সংলাপ রচনা করেছেন আব্দুল্লাহ জহির বাবু, সঙ্গীত পরিচালনায় আছেন আলী আকরাম শুভ এবং চলচ্চিত্রের জন্য গান লিখেছেন সুদীপ কুমার দীপ। পিরোজপুরের বিভিন্ন লোকেশনে এর শুটিং হয়েছে।’ 

ছবি : মোহসীন আহমেদ কাওছার

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.