ঢাকা, বৃহস্পতিবার,২৬ এপ্রিল ২০১৮

দিগন্ত জবস

ক্যারিয়ার গড়তে ডিআইইউতে ফার্মেসি কোর্স

০৯ ডিসেম্বর ২০১৭,শনিবার, ০০:০০


প্রিন্ট

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের সাবেক অধ্যাপক ড.এ বি এম মফিজুল ইসলাম পাটোয়ারী ১৯৯৫ সালে ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি প্রতিষ্ঠা করেন। এটি প্রতিষ্ঠা করার উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য ছিল নি¤œবিত্ত পরিবারের শিক্ষার্থীদের মধ্যে সময়োপযোগী শিক্ষাদান। আর এই উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে ২০০৬ সালে ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে চালু করা হয় বি-ফার্ম অনার্স কোর্স। বর্তমানে বাংলাদেশে প্রায় ৩৫০টি ওষুধ প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের উৎপাদিত ওষুধ দেশের চাহিদা মিটিয়ে প্রায় ৭০টি দেশে রফতানি হচ্ছে। ওষুধের উৎপাদন, মান নিয়ন্ত্রণ ও বিপণনে ফার্মাসিস্টদের ভূমিকা সবচেয়ে বেশি। এ ইউনিভার্সিটির ফার্মেসি বিভাগ দক্ষ ও উপযুক্ত ফার্মাসিস্ট তৈরিতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। এই বিভাগ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন কর্তৃক অনুমোদিত এবং বাংলাদেশ ফার্মেসি কাউন্সিল কর্তৃক স্বীকৃত। ইউনিভার্সিটির ফার্মেসি বিভাগে রয়েছে সময়োপযোগী পাঠ্যক্রম ও পর্যাপ্ত যন্ত্রপাতিসমৃদ্ধ ল্যাবরেটরি এবং গ্রন্থাগার। নিজস্ব শিক্ষক ছাড়াও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের অধ্যাপকরা এই বিভাগে শিক্ষাদানের সাথে জড়িত। এই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইতোমধ্যে সাফল্যের সাথে কৃতকার্য হওয়া ফার্র্মাসিস্টরা দেশের বিভিন্ন ওষুধ উৎপাদন প্রতিষ্ঠানে সাফল্যের সাথে কাজ করে যাচ্ছেন। এটি এমন পেশাগত ডিগ্রি যা অর্জনের সাথে সাথে চাকরির নিশ্চয়তা পাওয়া যায়। সারা বিশ্বে ফার্মাসিস্টদের যথেষ্ট চাহিদা রয়েছে। ফলে ফার্মাসিস্টদের দেশে এবং দেশের বাইরে চাকরি পেতে কোনো সমস্যা হয় না। বর্তমানে আমেরিকা, ইউরোপ, অস্ট্রেলিয়া, মধ্যপ্রাচ্যসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে আমাদের দেশের ফার্মাসিস্টরা সুনামের সাথে কাজ করে যাচ্ছেন। এই বিভাগে রয়েছে পাঁচটি ল্যাবরেটরি, যেখানে শিক্ষার্থীরা গবেষণা করে থাকেন। এসব গবেষণার ফলাফল, তথ্য-উপাত্ত দেশী-বিদেশী বিভিন্ন সাময়িকীতে ইতোমধ্যে প্রকাশিত হয়েছে। এ ইউনিভার্সিটির স্থায়ী ক্যাম্পাস গড়ে উঠেছে বাড্ডার সাঁতারকুলে। সেখানকার দু’টি ভবন ছাড়াও ৬৬, গ্রিনরোডের একটি ১২তলা ভবনে এবং বনানীর ১ নম্বর রোডে অবস্থিত দু’টি ভবনে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম চলছে। এ ইউনিভার্সিটির ছেলেদের জন্য তিনটি, মেয়েদের জন্য দু’টি হোস্টেল রয়েছে। এখানে সাড়ে ৪০০ বিদেশী ছাত্রছাত্রী লেখাপড়া করেন। তাদের জন্য আলাদা আবাসিক সুবিধা রয়েছে। পুরো ক্যাম্পাসটি ওয়াইফাই হওয়ায় ছাত্রছাত্রীরা ইন্টারনেটের মাধ্যমে ফার্মেসি বিষয়ে বিভিন্ন ধরনের গবেষণার সুযোগ পাচ্ছেন। এখানে একাডেমিক চর্চা বজায় রাখার জন্য নিয়মিত লেকচার, সেমিনার ও সিম্পোজিয়াম করা হয়। এ ইউনিভার্সিটির সব শিক্ষার্থীদের জন্য ইংরেজি ফাউন্ডেশন (ল্যাংগুয়েজ) কোর্স বাধ্যতামূলক। শিক্ষার্থীদের ইংরেজি ভাষার ওপর দক্ষতা অর্জনের লক্ষ্যে ইতোমধ্যে ইন্টারন্যাশনাল ল্যাংগুয়েজ ইনস্টিটিউটের সাথে এ ইউনিভার্সিটি এমও ইউ স্বাক্ষর করেছে। এ ইউনিভার্সিটির সাথে মালয়েশিয়ার ক্যাবাংসন ইউনিভার্সিটির, ভারতের দয়ানন্দ সাগর ইউনিভার্সিটির, বাংলাদেশ এ্যাডভান্সড বিজনেস একাডেমিকের, ইউনাইটেড ন্যাশনস গ্লোবাল কম্প্যাক্ট ও ইউনাইটেড ন্যাশনস একাডেমিক ইম্প্যাক্টসের একাডেমিক স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে।
ইউনিভার্সিটির ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. এ কে এম মোহসীন বলেন, এ ইউনিভার্সিটির প্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক ড.এ বি এম মফিজুল ইসলাম পাটোয়ারী মধ্যবিত্ত ও নি¤œবিত্ত পরিবারের ছেলেমেয়েদের উচ্চশিক্ষার জন্য প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তুলেছেন। এখানে টিউশন ফি অন্যান্য ইউনিভার্সিটির চেয়ে কম। বোর্ড অব ট্রাস্টির চেয়ারম্যান ডা: শহীদুল কাদির পাটোয়ারী বলেন, ‘নলেজ ইজ পাওয়ার’, এ স্লোগান নিয়ে ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি যাত্রা শুরু করে ১৯৯৫ সালে। তাই শিক্ষামানের ক্ষেত্রে আমরা আপস করি না। এখানে শিক্ষার্থীদের যথার্থ শিক্ষাদান দেয়া হয়। যোগাযোগ : স্থায়ী ক্যাম্পাস : সাঁতারকুল, বাড্ডা, ঢাকা।
ফোন : ০১৯৩৯৮৫১০৬০ ক্যাম্পাস : ৬৬, গ্রিনরোড, ঢাকা। ফোন : ০১৬১১৩৪৮৩৪৪-৮
ক্যাম্পাস : বাড়ি-০৪, সড়ক-০১, ব্লক-এফ, বনানী, ঢাকা। ফোন : ০১৯৩৯৮৫১০৬১-৪

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫