ঢাকা, শুক্রবার,১৫ ডিসেম্বর ২০১৭

প্রথম পাতা

ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ফিলিস্তিন তুরস্কে তুমুল বিােভ

নয়া দিগন্ত ডেস্ক

০৮ ডিসেম্বর ২০১৭,শুক্রবার, ০০:০০


প্রিন্ট
জেরুসালেমকে ইসরাইলের রাজধানী স্বীকৃতি দেয়ার প্রতিবাদে তুরস্কে বিক্ষোভ ;এএফপি

জেরুসালেমকে ইসরাইলের রাজধানী স্বীকৃতি দেয়ার প্রতিবাদে তুরস্কে বিক্ষোভ ;এএফপি

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প পবিত্র নগরী জেরুসালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ায় ফিলিস্তিনের সব এলাকায় ব্যাপক বিােভ শুরু হয়েছে। তা ছাড়া তুরস্কের ইস্তাম্বুল ও আঙ্কারায় বিক্ষোভ হয়েছে। বিােভ ঠেকাতে অধিকৃত পশ্চিম তীরে বিপুল সেনা মোতায়েন করেছে ইসরাইল। এএফপি, বিবিসি ও রয়টার্স।
বৃহস্পতিবার ইসরাইলের সেনাবাহিনীর প থেকে অধিকৃত পশ্চিম তীরে তথ্য জানানো হয়েছে। পবিত্র ভূমি জেরুসালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের স্বীকৃতি এবং তেল আবিব থেকে দেশটির দূতাবাস সেখানে সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার ঘোষণার পর ফিলিস্তিনিদের বিােভ ঠেকাতে এ ধরনের পদপে নেয়া হয়।
ইসরাইলের সেনাবাহিনীর প থেকে দেয়া এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, নতুনভাবে আরো সেনা মোতায়েন করা হবে এবং কিছু সেনা অপেমাণ অবস্থায় রাখা হয়েছে। যেকোনো প্রয়োজনে তাদের ব্যবহার করা হতে পারে।
জানা গেছে, ট্রাম্পের ঘোষণার পরপরই অধিকৃত ভূখণ্ডে ফিলিস্তিন ও ইসরাইলিদের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়ে যায়। তবে য়তির বিস্তারিত খবর পাওয়া যায়নি। ডোনাল্ড ট্রাম্প সারা বিশ্বের বিরোধিতা ও প্রতিবাদ উপো করে এবং আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করে ফিলিস্তিনের জেরুসালেম বা বায়তুল মোকাদ্দাস শহরকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকৃতি দেয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই বুধবার রাতে এ সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে। তার এ ঘোষণার আগে সারা বিশ্ব থেকে সতর্ক করা হয় যে, এ ধরনের ঘটনা মধ্যপ্রাচ্যে নতুন করে সহিংসতা ছড়িয়ে দেবে। কিন্তু ট্রাম্প এসব সতর্কবার্তা মোটেই আমলে নেননি।
এরই মধ্যে গাজা উপত্যকা ও বেথেলহাম শহরে ডোনাল্ড ট্রাম্পের ছবি এবং গাজা উপত্যকায় ট্রাম্পের কুশপুত্তলিক পোড়ানো হয়েছে। এ ছাড়া ট্রাম্পের ঘোষণার প্রতিবাদে বেথেলহাম শহরে খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের লোকজন বড়দিন উপলে সাজানো ক্রিসমাস ট্রির আলোকসজ্জার সুইচ বন্ধ করে দেন। বড়দিনে আলোকসজ্জা চালু করা হবে কি না তা নিশ্চিত নয়।
ট্রাম্পের বিতর্কিত ঘোষণার পর গাজা উপত্যকাজুড়ে তীব্র বিােভ ছড়িয়ে পড়েছে। ুব্ধ ফিলিস্তিনিরা শহরের রাস্তা অবরোধ করে মার্কিন পতাকা ও টায়ার জ্বালিয়ে বিােভ করেন এবং গগণবিদারী চিৎকার করে আমেরিকাবিরোধী স্লোগান দেন। এ দিকে ফিলিস্তিনিদের বিবদমান গ্রুপগুলো সাধারণ ধর্মঘটের ডাক দিয়েছেন এবং মধ্যরাত পর্যন্ত রাস্তায় অবস্থান নিয়ে প্রতিবাদ জানান। গাজা উপত্যকার উত্তরের জাবালিয়া উদ্বাস্তু শিবিরের শত শত ফিলিস্তিনি রাস্তায় নেমে এসে ট্রাম্পের ঘোষণার বিরুদ্ধে বিােভ করেন। গাজা সিটির কেন্দ্রস্থলেও অনুরূপ দৃশ্য দেখা গেছে। সেখানে বিােভকারীরা জাতীয় পতাকা এবং ফিলিস্তিনের পরলোকগত প্রেসিডেন্ট ইয়াসির আরাফাতের ছবি বহন করে বিােভে অংশ নেন। এ ছাড়া তুরস্কের আঙ্কারা ও ইস্তাম্বুলে বিােভ হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। সেই সাথে বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলছে তোলপাড়।
তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারা ও ইস্তাম্বুলে শত শত মানুষ বিােভ করেছেন। এ সময় তারা মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের এ ঘোষণার তীব্র নিন্দা ও সমালোচনা করেন। দুই শহরের বিােভই শান্তিপূর্ণ ছিল তবে বিুব্ধ জনতা কোথাও কোথাও কিছু কাগজে আগুন ধরিয়ে প্রতিবাদ করেন এবং ইসরাইলের পতাকা পোড়ান। বিােভকারীদের অনেকের হাতে তুরস্কের পতাকা ও নানা রকম ফেস্টুন দেখা যায় যাতে লেখা ছিল ‘ফিলিস্তিন মুক্ত করুন’।
বিােভকারীরা তুরস্কে ইসরাইলি কন্স্যুলেট ভবনের দেয়ালেও ফিলিস্তিন মুক্ত করার দাবিতে নানা স্লোগান লিখেছেন। এ ছাড়া তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মার্কিন ঘোষণার নিন্দা ও সমালোচনা করে দায়িত্বজ্ঞানহীন এ সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের আহ্বান জানিয়েছে।
বুধবার ডোনাল্ড ট্রাম্প সারা বিশ্বের বিরোধিতা ও প্রতিবাদ উপো করে বায়তুল মোকাদ্দাসকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছেন। এ ছাড়া তেল আবিব থেকে মার্কিন দূতাবাস সরিয়ে বায়তুল মোকাদ্দাস শহরে নেয়ার ঘোষণাও দিয়েছেন তিনি। ট্রাম্পের এ ঘোষণা আন্তর্জাতিক আইনের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। তার এ পদেেপ বিশ্ব নেতারাও নিন্দা জানিয়েছেন। মুসলিম বিশ্ব থেকে শুরু করে বিভিন্ন দেশের প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীরা এ ঘোষণার নিন্দা জানান।
কেবল ফিলিপাইন ও চেক প্রজাতন্ত্র ইঙ্গিত দিয়েছে যে তারা ট্রাম্পের নেতৃত্ব অনুসরণ করবে এবং তেল আবিব থেকে তাদের দূতাবাস সরানো হতে পারে।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫