ঢাকা, মঙ্গলবার,১২ ডিসেম্বর ২০১৭

দিগন্ত সাহিত্য

বুলান্দ জাভীর ‘অন্তরে নির্বাক বহ্নি’

রেজা ফারুক

০৮ ডিসেম্বর ২০১৭,শুক্রবার, ০০:০০


প্রিন্ট

১০ ডিসেম্বর কবি বুলান্দ জাভীরের জন্মদিন। তাকে রাশি রাশি কবিতার উজ্জ্বল শুভেচ্ছা। একজন পরিপূর্ণ কবি যে বুলান্দ জাভীর ইতোমধ্যে হয়ে উঠেছেনÑ তার সপক্ষে অজস্র পাতা ঝরিয়েছে কবিতার দেবদারু, মেহগনি, মেঘ শিরীষ আর ইউক্যালিপটাস। কত যে দুপুর বৃষ্টিতে গেছে ভেসে কবিতার শব্দের লিরিকে লিরিকে। কত যে বিকেল জেগে আছে গোধূলির আরক্ত ছায়ায়। ভোরের কুয়াশা ডোবা রানওয়ে থেকে কত যে বুনো খয়েরি শালিক গেছে উড়ে দূরে দূরারণ্যেÑ শুধু কবিতার পালক গুঁজে বুকের বাদামি রোঁয়ায়। বুলান্দ জাভীরের কবিতা বর্ষা, শরৎ, হেমন্ত, শীত, বসন্তের জলরঙ ছবি যেন একেকটা, আর তাই অনস্বীকার্য রূপেই ভোরের মিহিন রোদের অফুরন্ত গুঞ্জরনে উদ্বেলিত হয়ে ওঠে কবিতার ক্রিসেন্থিমাম। কাব্যগাথায় গ্রন্থিত হয় সাহিত্যের থোকা থোকা শব্দগুচ্ছ। থেকে থেকে যেমন প্রকৃতির আদলটা বদলে যায়। একইভাবে ঋতু বিবর্তনের স্পর্শে কবি-আর লেখকের মর্মেও দুলে ওঠে সৃষ্টিশীল তার ফুরফুরে কাগজের নৌকোটাও।
তার কবিতা বিগত সাড়ে তিন দশক ধরে তাকে ধীরে ধীরে এক স্বকীয় বৈশিষ্ট্য রচনার সুযোগ যেমন করে দিয়েছে একইভাবে একজন পরিশীলিত কবিতাকর্মী হয়ে ওঠার মেঘলা পথেও জ্বেলে দিয়েছে নিরন্তর পেট্রোম্যাক্স। আর তারই আলোকে আমরা বুলান্দ জাভীরের কাছ থেকে পেয়ে যাই সাত-সাতটি কাব্যগ্রন্থ ‘টুলবেঞ্চি সময়ের জুঁই, কোথা তুমি ঘনশ্যাম, অন্তরে নির্বাক বহ্নি, তৃষ্ণা আমার বক্ষজুড়ে, অবচেতনায় মুক্ত তুমি, ভালোবাসা একটি লাজুক ট্রেন এবং তবু বিহঙ্গ বন্ধ করো না পাখা।’ কবি বুলান্দ জাভীরের উল্লিখিত কাব্যগ্রন্থগুলোর কবিতার ভেতর লাল ঝাউবন দুলে ওঠে। আর ওই লাল ঝাউবনের গহনে যে কবিতার লাল, নীল, হলুদ রঙের পরীরা রূপকথার গল্পকে অমরত্ব দান করে। এসবই কবি বুলান্দ জাভীরের কাব্যময়তার গভীর স্ফুরণ।
পিয়ানোর ঝঙ্কারের মতো স্পন্দিত হয় কবির হৃৎস্পন্দন। আর অন্তরের ঝাপসা বন্দরে ভিড়ে এসে দূরাগত কুয়াশা ভারানত নিঝুম স্টিমার।
দিগন্তের জংশনে যখন এসে থামে কবিতা বোঝাই লেট ট্রেন তখন ওই ট্রেনের কম্পার্টমেন্টের ভেন্টিলেটর থেকে সাই করে দূরে উড়াল দেয় ফেব্রিকোর মতো নরোম খয়েরি ফারকোট পরা চঞ্চল শালিক জুটি। ফুটি ফুটি করেও ফোটে না ভোরের অলস রোদ। আর ওই রৌদ্রের বাস্কেট ভরে ওঠে মাইনাস জিরো আওয়ারের অনুষ্ণ সাইবেরিয়ান কনকনে হাওয়ার কুচি। গগনে মেঘার্ত বিকেল নিভে আসার আগে একঝলক ঝিলিকে গিয়েই মিলিয়ে যাবে সন্ধ্যা তারার বনে। অরণ্যে তখন শীতার্ত সম্বরের মিহিন পদশব্দে জেগে উঠবে ঝরা শিশির ভেজাপাতা আর বনমোরগের লাল ঝুঁটির মুকুটে নড়েচড়ে বসবে ইস্পাত নীল জ্যোৎ¯œার গুঁড়ো। ফরেস্ট বাংলোর গহন পোর্টিকোতে কয়েক পশ্লা দেবদারুর ছায়াবসে মেতে উঠবে সান্ধ্য কফির আড্ডায়। আর অদূরে চন্দ্রাতপ পর্বতরাজির পাদদেশে গহিনে নেমে আসবে ধু ধু ভয়ার্ত আবেশ। শীতের শীর্ণ নদী পেরিয়ে গিয়ে মিলিয়ে যাবে ভীতিকর শীতের মধ্যরাত। পাহাড়ের চূড়োয় মহুয়ার ডালে বসে থেকে থেকে ডেকে উঠবে রাতজাগা নিশুতি হরিয়াল। অরণ্য এমনই এক আবহে আবৃত হয়ে থাকে। আর ডাকে কবিতার পঙ্ক্তিগুচ্ছে, ডাকে ধুলোডোবা মন। আসে কবিতা জুরি গাড়ি করে। বাদামি ঘোড়ার কেশরের মতো আসে চরাচরে কবিতার তুমুল হাওয়া। কবিতা চিত্রকলায়Ñ কখনো জলরঙে, তেলরঙেও আসে অবিশ্রাম। অ্যাব্স্ট্রাক্ট ছবির মতো। এসে নিজেই যেন একপ্রস্ত ব্রাশের টানে বোগেনভিলিয়ার মতো ফুটে ওঠে মফস্বল শহরের কোনো শীতকাতুরে কিশোরীর উলের কার্ডিগানে বুলান্দের কবিতার ইশতেহার। তখোন রোঁয়া ঝরা সকালগুলো ভীষণ স্মার্ট লাগে। লাগে যেনো নিদারুণ ধোপ্দুরস্ত। যেন পেভমেন্ট ধরে কোট, টাই, প্যান্ট পরে সামনে কিছুটা ঝুঁকে এ দিকেই আসছে কবিতারই এক তরুণ পথতরু। আর সারা দিন ধরে ধুলোডোবা আইল্যান্ডের শেডে বসে এক সুনসান তারা গাইছে গুন-গুন চন্দ্রহারা গান। আর কলতানহীন ধূসর জাম্পার পরা বিকেলগুলো ভেসে যায় বজরার মতো। মাঠে-মাঠে ফোটে শিশির কণার মতো শীতফুল- জোটে কুয়াশার মতো জমাট কিশোরের দল লাটিম আর হিমঠাণ্ডা মার্বেলে! এমনই চিত্রকল্পের, উৎপ্রেক্ষার কনসেপ্ট ফোটে কবি বুলান্দ জাভীরের কবিতার নির্জন নার্সারিতে। তার কবিতার প্রধান অনুষঙ্গ যখন হয়ে ওঠে ঋতুপ্রকৃতি তখন স্বভাবতই এক নিঃসঙ্গ পাখির ছায়ার ভেতর শিশিরের, কুয়াশার, মিহিবৃষ্টির রেণুর অনুযোজনা ঘটে। তার কবিতায় ঝাপসা শীত আসে নেমে, আসে রেশমী শরৎ। রঙিন হেমন্ত যেমন এসে বসে ব্রাউন কালারের গাঙ্শালিকের মতো। তেমনি হলুদ বসন্তও এসে যায় দখিনা হাওয়ায় ভেসে ভেসে মর্মরিত ফিউশন জাগা অ্যাপ্লিকের কারুকাজ করা নিবিড় দিনান্তে।
কবি বুলান্দ জাভীর আমাদের সময়ের এক উজ্জ্বলতম কবি। তাকে অভিনন্দন।

 

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫