ঢাকা, সোমবার,১৮ ডিসেম্বর ২০১৭

মধ্যপ্রাচ্য

ক্ষমা পাচ্ছেন সৌদির কয়েকজন প্রিন্স ও মন্ত্রী

বিবিসি

০৭ ডিসেম্বর ২০১৭,বৃহস্পতিবার, ১৪:৫৯


প্রিন্ট
ক্ষমা পাচ্ছেন সৌদির কয়েকজন প্রিন্স ও মন্ত্রী

ক্ষমা পাচ্ছেন সৌদির কয়েকজন প্রিন্স ও মন্ত্রী

সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান নেতৃত্বাধীন দুর্নীতি দমন অভিযানে আটক কয়েকজন প্রিন্স ও মন্ত্রী শর্তসাপেক্ষে ক্ষমা পাচ্ছেন। দেশটির অ্যাটর্নি জেনারেল এ কথা জানিয়েছেন। তবে তাদের মধ্যে কী সমঝোতা হয়েছে, তা জানানো হয়নি।

এখনো সবার নাম প্রকাশ করা হয়নি। তবে প্রিন্স মিতাব বিন আবদুল্লাহর মুক্তির জন্য ১০০ কোটি ডলার দাবি করা হয়েছিল বলে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে খবর প্রকাশ হয়েছিল।

৪ নভেম্বর দুর্নীতিবিরোধী অভিযানের নামে দেশটির বেশ কয়েকজন প্রিন্স ও মন্ত্রীকে গ্রেফতার করা হয়। এক বিবৃতিতে জানানো হয় ৩২০ জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে আর আটক রয়েছেন ১৫৯ জন। আটককৃতদের মধ্যে প্রিন্স মিতাব ছাড়াও দেশটির শীর্ষ ধনী প্রিন্স আওলাদ বিন তালাল রয়েছেন। অভিযোগ ওঠে যে রাজ পরিবারে নিজের কর্তৃত্ব সুসংহত করতেই এ অভিযান চালিয়েছেন যুবরাজ বিন সালমান। তবে তা অস্বীকার করেছেন তিনি। আটককৃতদের বিরুদ্ধে কী ধরনের অভিযোগ আনা হয়েছে, তাও স্পষ্ট নয়।

ইয়েমেনে সৌদি জোটের অভিযান জোরদার প্রতিশোধের ডাক সালেহর ছেলের

রয়টার্স
অভ্যন্তরীণ সঙ্ঘাত ও সঙ্কট তীব্র রূপ নেয়ার প্রেক্ষাপটে ইয়েমেনে বিমান হামলা জোরদার করেছে সৌদি নেতৃত্বাধীন জোট। হাউছিদের হামলায় দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্ট আলী আবদুল্লাহ সালেহ নিহত হওয়ার পর গতকাল বুধবার সকাল থেকে এ অভিযান জোরদার করা হয়। দু’পই জানিয়েছে, সৌদি জোটের যুদ্ধবিমানগুলো বেশ কয়েক দফা বিমান হামলা চালিয়েছে। সানায় ও অন্যান্য উত্তরাঞ্চলীয় প্রদেশে হাউছি অবস্থানস্থল ল্য করে বোমা ফেলা হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত এ হামলায় হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।

ইয়েমেনের হাউছিপন্থী আল মাসিরাহ টেলিভিশন দাবি করেছে, সৌদি জোট সালেহর বাসভবন ও তার পরিবারের অন্য সদস্যদের বাড়িঘরে বোমা ফেলেছে। সানার স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন তারা প্রচণ্ড বিস্ফোরণের শব্দ শুনতে পেয়েছেন। আন্তর্জাতিক দাতব্য সংস্থা রেড ক্রস জানিয়েছে, সানায় সালেহ সমর্থক ও হাউছিদের মধ্যে কয়েক দিন ধরে চলা সংঘর্ষে এ পর্যন্ত ২৩৪ জন নিহত হয়েছে।

সোমবার হাউছিদের হামলায় নিহত হন সালেহ। প্রায় তিন বছর ধরে এ হাউছিদের সাথে জোট গড়ে সৌদি নেতৃত্বাধীন জোটের বিরুদ্ধে লড়াই করছিলেন তিনি ও তার সমর্থকেরা। তবে ২ ডিসেম্বর সালেহ এক টেলিভিশন ভাষণে ইয়েমেনের ওপর থেকে অবরোধ প্রত্যাহার করে নেয়ার জন্য সৌদি জোটের প্রতি আহ্বান জানান এবং আনুষ্ঠানিকভাবে হাউছিদের সাথে জোটও ভেঙে দেন তিনি। একে সালেহর বিশ্বাসঘাতকতা বলে দাবি করে হাউছিরা।

প্রতিশোধের ডাক
ইয়েমেনে সদ্য নিহত সাবেক প্রেসিডেন্ট আলী আবদুল্লাহ সালেহর ছেলে সশস্ত্র হাউছি বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে পিতৃহত্যার বদলা নেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। বাবার হত্যার এক দিন পর মঙ্গলবার সালেহর নির্বাসিত ছেলে আহমদ আলী সালেহর প্রতিশোধের ডাক দেয়ার খবর জানালো সৌদি আরবের মালিকানাধীন আল-ইকবারিয়া টিভি। আলী সালেহ ঘোষণা দিয়ে বলেছেন, ‘যতণ পর্যন্ত না ইমেয়েনের মাটি থেকে শেষ হাউছিটি বিতাড়িত হচ্ছে, ততণ আমি যুদ্ধের নেতৃত্ব দেবো... আমার বাবার রক্ত ইরানের কানে জাহান্নামের আজাবের ঘণ্টা বাজাবে।’ এ সময় আহমদ তার বাবার সমর্থকদের ইরান-সমর্থিত হাউছি মিলিশিয়াদের হাত থেকে ইয়েমেনকে মুক্ত করার আহ্বান জানান। তবে এ খবরের সত্যতা তাৎণিকভাবে যাচাই করা যায়নি। আবদুল্লাহ সালেহর মৃত্যুতে ইয়েমেনে বহুপীয় যুদ্ধ আরো জটিল আকার ধারণ করেছে। সালেহর অনুগতদের মধ্যে সামরিক কর্মকর্তারাসহ আদিবাসী নেতারা অনেকেই আছেন এবং তার অনুসারীরা এখনো যুদ্ধে প্রভাব বিস্তার করতে সম। সালেহর ছেলে আহমদ সালেহ এলিট রিপাবলিকান গার্ডের সাবেক নেতা। বর্তমানে তিনি সংযুক্ত আরব আমিরাতে (ইউএই) নির্বাসনে আছেন।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫