ঢাকা, শুক্রবার,১৫ ডিসেম্বর ২০১৭

মধ্যপ্রাচ্য

জেরুসালেম নিয়ে ট্রাম্পের ঘোষণাকে কীভাবে নিচ্ছে আন্তর্জাতিক অঙ্গন?

নয়া দিগন্ত অনলাইন

০৭ ডিসেম্বর ২০১৭,বৃহস্পতিবার, ১২:০৪


প্রিন্ট
জেরুসালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছেন ট্রাম্প

জেরুসালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছেন ট্রাম্প

জেরুসালেম খ্যাত ফিলিস্তিনের বাইতুল মোকাদ্দাস শহরকে ইহুদিবাদী ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট যে ঘোষণা দিয়েছেন তার বিরুদ্ধে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ ও আন্তর্জাতিক সংস্থা তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে।

বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরান ট্রাম্পের ঘোষণার কঠোর নিন্দা জানিয়েছে। ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বুধবার রাতে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে ট্রাম্পের এ ঘোষণাকে আন্তর্জাতিক আইনের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন বলে উল্লেখ করেছে।

ট্রাম্পের পরিকল্পনার বিরুদ্ধে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগান। ট্রাম্পের এই ধরণের পদক্ষেপ মুসলিমদের জন্য একটি রেড লাইন বলে তিনি সর্তক করে দেন।

ফিলিস্তিনের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস ও ফিলিস্তিন মুক্তি সংস্থা পিএলও আলাদা বিবৃতিতে মার্কিন প্রেসিডেন্টের এ পদক্ষেপের ঘোর বিরোধিতা করেছে।

হামাস বলেছে, ট্রাম্প বাইতুল মোকাদ্দাসকে দখলদার ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দিয়ে ফিলিস্তিনি জাতির প্রতি প্রকাশ্য শত্রুতা শুরু করেছেন। ট্রাম্পের এই ঘোষণার বিরুদ্ধে রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ জানানোর জন্য ফিলিস্তিনি জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে হামাস।

ফিলিস্তিনের আরেকটি প্রতিরোধ আন্দোলন ইসলামি জিহাদ বলেছে, এই ঘোষণার মধ্যদিয়ে মুসলমানদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। ইসলামি জিহাদ আন্দোলনের উপ মহাসচিব জিহাদ নাখালা ট্রাম্পের এই পদক্ষেপের বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ আন্দোলন গড়ে তোলার জন্য ফিলিস্তিনি জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

ফিলিস্তিন স্বশাসন কর্তৃপক্ষের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসও ট্রাম্পের ঘোষণার নিন্দা জানিয়ে বলেছেন, এ ধরনের ঘোষণা দিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ফিলিস্তিনের ইতিহাস পাল্টে দিতে পারবেন না। আন্তর্জাতিক সমাজে ট্রাম্পের এ স্বীকৃতির কোনো গ্রহণযোগ্যতা নেই বলে তিনি উল্লেখ করেন।

মার্কিন প্রেসিডেন্টের ঘোষণার নিন্দা জানিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে। তিনি বলেছেন, ট্রাম্পের এ ঘোষণা ‘অগঠনমূলক’।

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাকরন ট্রাম্পের একতরফা ঘোষণাকে ‘দুঃখজনক’ বলে মন্তব্য করেছেন। জাতিসঙ্ঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস, ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্রনীতি বিষয়ক প্রধান কর্মকর্তা ফেডেরিকা মোগেরিনি এবং সুইডেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ম্যারগট ওয়ালস্ট্রোম মার্কিন প্রেসিডেন্টের ঘোষণাকে ‘বিপর্যয়কর’ বলে মন্তব্য করেছেন।

এ ছাড়া, মিশর, তুরস্ক, লেবানন, সিরিয়া ও পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা আলাদা আলাদা বিবৃতিতে ট্রাম্পের ঘোষণার নিন্দা জানিয়ে তা প্রত্যাখ্যান করেছেন।

জেরুসালেম ইস্যুতে ওআইসি’র বৈঠক ডেকেছেন এরদোগান
ফিলিস্তিনের বায়তুল মুকাদ্দাসকে (জেরুসালেম) ইহুদিবাদী ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণার ষড়যন্ত্র মোকাবিলায় ইসলামি সম্মেলন সংস্থা ওআইসি'র জরুরি বৈঠক আহ্বান করা হয়েছে। সংস্থাটির সভাপতি দেশের প্রধান হিসেবে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগান এই বৈঠক আয়োজনের ঘোষণা করেছেন।

তুর্কি প্রেসিডেন্টের মুখপাত্র ইব্রাহিম কালিন বুধবার বলেছেন, জেরুসালেম ইস্যুতে স্পর্শকাতর পরিস্থিতি সৃষ্টি হওয়ায় আগামী ১৩ ডিসেম্বর ওআইসি’র সদস্য দেশগুলোর নেতারা ইস্তাম্বুলে বৈঠকে বসবেন। মুসলিম দেশগুলো জেরুজালেমের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের বিষয়ে ঐক্যবদ্ধ পদক্ষেপের ঘোষণা দিতে পারেন বলে জানা গেছে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তেল আবিব থেকে আমেরিকার দূতাবাস সরিয়ে জেরুজালেমে নেওয়ার ঘোষণা দেওয়ার খবর প্রকাশিত হওয়ার পর ওআইসি’র এ বৈঠক আহ্বান করে।

ডোনাল্ড ট্রাম্প মার্কিন দূতাবাস প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে ইতিমধ্যেই জেরুসালেমকে দখলদার ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে ঘোষণা দিয়েছেন। তবে এরইমধ্যে অনেক মুসলিম দেশ ট্রাম্পের এ পরিকল্পনা ও ঘোষণার পরিণামের বিষয়ে হুঁশিয়ারি দিয়ে আসছেন।

জেরুসালেম প্রশ্নে জাতিসঙ্ঘ নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠক শুক্রবার
জাতিসঙ্ঘ নিরাপত্তা পরিষদ শুক্রবার জেরুসালেম প্রশ্নে জরুরি বৈঠক ডেকেছে। ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে জেরুসালেমকে স্বীকৃতি দেয়ার ব্যাপারে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সিদ্ধান্ত নিয়ে বৈঠকে আলোচনা হবে। বুধবার পরিষদের নেতা বৈঠকের এ ঘোষণা দেন।

পর্যায়ক্রমে প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করা দেশ জাপান জানায়, আটটি দেশের অনুরোধের প্রেক্ষিতে আহবান করা এ আলোচনা শুক্রবার সকাল ১০টায় (গ্রিনিচ মান সময় ১৫০০টা) শুরু হবে। এ বৈঠকের আলোচ্যসূচিতে আরো অনেক বিষয় রয়েছে।

বলিভিয়া, ব্রিটেন, মিশর, ফ্রান্স, ইতালি, সেনেগাল, সুইডেন ও উরুগুয়ের অনুরোধে এ বৈঠক আহবান করা হয়। তারা বৈঠকের শুরুতে জাতিসঙ্ঘ মহাসচিব আন্তেনিও গুতেরেসকে বক্তব্য দেয়ারও অনুরোধ জানিয়েছেন।

ট্রাম্পের এমন ঘোষণার পর গুতেরেস বলেন, ইসরাইল ও ফিলিস্তিনের মধ্যে সরাসরি আলোচনার মাধ্যমেই কেবলমাত্র
জেরুসালেমের বিষয়ে চূড়ান্ত নিষ্পত্তি হতে পারে।

এক্ষেত্রে তিনি একতরফা কোনো পদক্ষেপের কঠোর সমালোচনা করেন।

তিনি বলেন, ফিলিস্তিন ও ইসরাইলের ক্ষেত্রে ‘দ্বি-রাষ্ট্র সমাধানের কোনো বিকল্প নেই।’

বলিভিয়ার রাষ্ট্রদূত সাচে সার্জিও লরেন্টি সোলিজ ট্রাম্পের এ সিদ্ধান্তকে অপরিণামদর্শী ও অনেক ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে অভিহিত করেন। বলেছেন, এ সিদ্ধান্ত আন্তর্জাতিক আইন ও নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাব বিরোধী।

এ দূত আরো বলেন, ট্রাম্পের এ স্বীকৃতি ‘কেবলমাত্র শান্তি প্রক্রিয়ার জন্যই হুমকি নয়, এটি আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তার ক্ষেত্রেও চরম হুমকি।’

উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সরকার এ ধরণের পদক্ষেপের বিষয়ে ভোটাভুটি থেকে বিরত থেকেছে।

 

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
সকল সংবাদ

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫