ঢাকা, শনিবার,১৬ ডিসেম্বর ২০১৭

খুলনা

চৌগাছায় মুগ ও মাষ কলায়ের দাম পেয়ে খুশি কৃষক

এম এ রহিম চৌগাছা (যশোর) সংবাদদাতা

০৬ ডিসেম্বর ২০১৭,বুধবার, ১২:৩৪


প্রিন্ট

দেশের দক্ষিন অঞ্চলের সর্বাধিক খাদ্যশষ্য উৎপাদনকারী যশোরের চৌগাছার কৃষকরা এবার মাষ ও মুগকলাই চাষে ঝুঁকে পড়েছেন। ফলন ভাল ও দামপেয়ে দারুণ খুশি তারা। অতিবৃষ্টি ও প্রতিকূল আবহাওয়ায় বারবার ধান-পাট নষ্ট হওয়ায় কৃষকরা মাষকলাই ও মুগডাল চাষে ঝুঁকে পড়েছেন। গত মৌসুমে উৎপাদিত মুগ-মাষ কলায়ের ন্যায্য দাম পাওয়ায় কৃষকরা এ মৌসুমে ব্যাপকহারে কলায়ের আবাদ করেছেন।
চৌগাছা উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে এ উপজেলায় বারী-৩,৪ ও ৬ জাতের মুগ চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১শ ১০ হেক্টর, চাষ হয়েছে ২শ ৪০ হেক্টর। বারী-৩ ও স্থানীয় জাতের মাষকলাই চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১শ ৫০ হেক্টর চাষ হয়েছে ৩ শ ৫৫ হেক্টর জমিতে। এ বছর ১৩ মেট্রিকটন ডাল উৎপাদনের মাধ্যমে এখানকার কৃষকরা প্রায় অর্ধ কোটি টাকা উপার্জন করবেন।
কৃষকরা জানান, কৃষি অফিসের পরার্মশে ভাল জাতের মুগ ও মাস কলাই চাষ করে এবার ভালো ফলন পেয়েছি। চলতি বছর আবহাওয়া একটু প্রতিকুলে থাকলেও বিঘা প্রতি ৫-৬ মণ হারে ফলন হয়েছে। বর্তমান বাজারে এ ডাল ২ হাজার থেকে ২৫০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। নিজেদের উৎপাদিত বীজেয় আবার চাষ করা যায় বলে বীজের ও কোনো সংকট হয় না। উৎপাদন খরচ কম কিন্তু বিক্রয়মূল্য বেশি হয়।
চৌগাছা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রইচ উদ্দীন জানান, বেলে দো-আঁশ মাটিতে মুগ ও মাষডালের উৎপাদন ব্যয় খুবই কম এবং ফলন ভালো হয়। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা.আরওঙ্গজেব জানান মুগ ও মাষ ডালে মানব শরীরে প্রচুর পরিমানে আয়রণ, প্রোটিন ও কার্বোহাইড্রেড যোগান দেয়।

 

 

Logo

সম্পাদক : আলমগীর মহিউদ্দিন

প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ

১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | নয়া দিগন্ত ২০১৫