হা ই তি র রূ প ক থা রাজা হবে কে

রূপান্তর : হাসান হাফিজ

(গত দিনের পর)

কখন সে খাবারে মুখ দেয়া যাবে, তার জন্য অধীর অপেক্ষা। মর জ্বালা। কুকুরের মুখ বেয়ে লালা বের হচ্ছে। অন্যান্য প্রাণী সেগুলো যতœ করে মুছিয়ে দিচ্ছে। রাজার জিভ চুলবুল করছে। তা করুক। অনুচর প্রাণীরা নতুন রাজার সুখ সুবিধার দিকে সর্বক্ষণ খেয়াল রাখছে। এটাই তাদের কাজ।
খাবারের ঘ্রাণ আরো তীব্রতর হয়েছে এর মধ্যে। একপর্যায়ে কুকুর আর স্থির থাকতে পারল না। সে লাফ দিয়ে ছুটে গেল রান্নাঘরের দিকে। রাজমুকুট ভেঙে গেল তার এলোপাতাড়ি লাফের চোটে। কুকুর গিয়ে সোজা হাজির হলো রান্নার জায়গায়। হাঁড়ি থেকে গোশত তুলে নিয়ে চেটেপুটে খেতে শুরু করে দিলো।
অন্য প্রাণীরা তো এই কাণ্ড দেখে হতবাক। তারা বিস্মিত। চোখ কপালে উঠে যাওয়ার জোগাড় সবার। এ কী ব্যাপার। রাজাকে কি এমন লোভের কাজ মানায়? ছি ছি ছি। তারা চেঁচিয়ে উঠছে,
হায় হায়! আমাদের রাজা চলে গেছে। মুকুট ভেঙেচুড়ে আমাদের রাজা এখন হাঁড়ি থেকে গোশত খাওয়ার কাজে ব্যস্ত। সে দেখা যাচ্ছে, আস্ত একটা ছোটলোক। লোভী, অস্থির, পেটুক। হায় হায়!
(চলবে)

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.