আনিসুল হকের উদ্যোগ বাস্তবায়নে মন্ত্রণালয় নজরদারি করবে : এলজিআরডি মন্ত্রী

বিশেষ সংবাদদাতা

স্থানীয় সরকারমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মরহুম মেয়র আনিসুল হকের মৃত্যুতে তার নেয়া নানা উদ্যোগের কোনোটাই থেমে যাবে না বলে নিশ্চয়তা দিয়ে বলেছেন, আনিসুল হক নগরবাসীকে যে স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন সেগুলোর যেন বাস্তবায়ন হয়, সেজন্য তার মন্ত্রণালয় বিশেষ নজরদারি করবে।

মন্ত্রী বলেন, আনিসুল হকের মৃত্যুতে মেয়র পদ শূন্য ঘোষণা করা হয়েছে। আগামী ৯০ দিনের মধ্যে মেয়র পদে ভোট হবে। নির্বাচন কমিশন এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে।

আজ সোমবার সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের তিনি একথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, আমার প্রত্যাশা আনিসুল হক ঢাকাবাসীকে যে স্বপ্ন দেখিয়েছেন, উন্নত নগর গড়ার পরিকল্পনা করেছেন, তেমনি একজন উদ্যোগী মেয়রই তার পদে নির্বাচিত হবেন।

এলজিআরডি মন্ত্রী বলেন, আনিসুল হকের যে উদ্যোগ তা ব্যক্তিগত হলেও সেটি বাস্তবায়ন করবে সিটি করপোরেশন। আর তার উত্তরাধিকার হিসেবে যিনি আসবেন তাকে আনিসুল হকের গড়ে দেয়া ফাউন্ডেশনের (ভিত্তি) মধ্য থেকেই কাজ করতে হবে। তাহলে তার অসমাপ্ত কাজ শেষ হবে। আমি মনে করি এমন কেউ আসবে না যিনি তার এই সুন্দর উদ্যোগ বাস্তবায়ন করবেন না।

আনিসুল হকের প্রশংসা করে মন্ত্রী বলেন, আমরা অত্যন্ত ব্যথিত। এরকম একজন উদ্যমী মেয়রকে হারালাম। সিটি করপোরেশনের ইতিহাসে এরকম উদ্যমী এবং দক্ষ মেয়র আমরা কখনো পাইনি। তাকে হারিয়ে অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে আমাদের।

আনিসুল হকের নানা উদ্যোগ তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, তেজগাঁও ট্রাকস্ট্যান্ড উচ্ছেদ করে ঢাকার মানুষকে যানজটমুক্ত নগরী এবং গাবতলীতে অবৈধ দখল উচ্ছেদ করে দক্ষিণ অঞ্চলে সহজে যাওয়ার জন্য যে ব্যবস্থা করেছিলেন, তা প্রশংসনীয় উদ্যোগ ছিল। এছাড়া তিনি গ্রিন ঢাকা গড়তে ব্যাপক কর্মপরিকল্পনা এবং উদ্যোগ গ্রহণ করেছিলেন, যা নগরবাসী স্বাচ্ছন্দে গ্রহণ করেছেন।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অধীন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র হিসেবে ২০১৫ সালের মে মাস থেকে আড়াই বছর নানা উদ্যোগ নিয়ে বারবার মন্ত্রী মোশাররফের সাথে কথা বলেছেন আনিসুল হক। তিনি কী কী করতে চান তাও জানিয়েছেন মন্ত্রীকে। আনিসুল হকের যেসব উদ্যোগের সুফল এখনও পুরোপুরি পায়নি নগরবাসী তার মধ্যে আছে পানি নিষ্কাষণের খাল উদ্ধার, আবদুল্লাহপুর-সাতরাস্তা সড়কে ১১টি ইউলুপ নির্মাণ, নগরীর বাস সেবাকে কয়েকটি কোম্পানির অধীনে এনে উন্নত বিশ্বের মতো করে চালানো। এর মধ্যে ইউলুপের কাজ শুরু হয়েছে গত মে মাসে, গণপরিবহন ব্যবস্থা পাল্টে দেয়ার বিষয়টি নিয়েও আলাপ-আলোচনা অনেকদূর এগিয়েছে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.