আবুল মাল আবদুল মুহিত (ফাইল ফটো)
আবুল মাল আবদুল মুহিত (ফাইল ফটো)

প্রবীণদের সংজ্ঞা পরিবর্তন করতে চান অর্থমন্ত্রী

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক

প্রবীণদের সংজ্ঞা পরিবর্তন করতে চান অর্থমন্ত্রী। বর্তমানে কারো বয়স ৬০ বছর হলেই তাকে প্রবীণ হিসেবে ধরা হয়। কিন্তু এই বয়সসীমা ৬৫ উত্তীর্ণ করতে চান অর্থমন্ত্রী।

আজ সোমবার ঢাকার সোনারগাঁও হোটেলে প্রবীণদের নিরাপদ আবাসন নিয়ে সমাজ সেবা অধিদপ্তর ও ইউনিভার্সেল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের এক চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী নুরুজ্জামান জ্যেষ্ঠ নাগরিকের বয়স ৬৫ তে উন্নীত করার প্রস্তাব দেন। এতে সায় দেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। অনুষ্ঠানে উপস্থিত স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালও প্রস্তাবটি সমর্থন করেন।

অনুষ্ঠানে মুহিত বলেন, প্রতিমন্ত্রী সাহেব খুবই ভালো প্রস্তাব করেছেন, আমরা চেষ্টা করব যাতে এটি পরিবর্তন করতে পারি। তিনি (প্রতিমন্ত্রী) বলেছেন, ‘৬০ বছরে প্রবীণ নেতা হওয়া এখন উচিৎ নয়’। এটি একান্তই সত্যি কথা, আমাদের অন্তত ৬৫ বছরে সেটি নিয়ে যাওয়া প্রয়োজন।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান কামাল এই বয়সসীমা ৭০ করার সুপারিশ জানিয়ে বলেন, মানুষের গড় আয়ু বেড়ে গেছে।
সমাজ কল্যাণ প্রতিমন্ত্রীকে এ বিষয়ে উদ্যোগ নেয়ার আহ্বান জানিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, আপনি উদ্যোগ নেন, আমি আপনার সাথে আছি। আমাদের এ আমলে আরো এক বছর আছে, এই এক বছরের মধ্যে এটি পরিবর্তন করার ভূমিকা নিতে পারি, প্রতিশ্রুতি দিতে পারি।

নিজেকে একজন প্রবীণ হিসেবে অভিহিত মুহিত বলেন, ৮৪ বছর বয়সে আমি তো প্রবীণ বটেই। প্রবীণরা চান সমাজ যেন তাদের ভুলে না যায়। আমি মাঝে মাঝে প্রবীণ নিবাসে যেতাম, তৃপ্তির জন্য আমরা কত কিছু করি সেখানে তা পাওয়া যায়। আমাদের প্রত্যেকের উচিৎ প্রবীণদের তৃপ্তি দেয়া, প্রবীণদের প্রতি শ্রদ্ধা ও সেবা প্রকাশ করা।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান কামাল বলেন, আমাদের সিনিয়র সিটিজেন থেকে অনেক কিছু পাওয়ার আছে, তাদের অভিজ্ঞতা ও দক্ষতা সমাজকে অনেক এগিয়ে নিয়ে যাবে।

অনুষ্ঠানে পিপিপি’র (সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্বে) আওতায় মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে মেডিক্যাল রিসোর্ট ‘অবসর-আমার আনন্দ ভুবন’ নামে প্রবীণদের আবাসন নির্মাণে সমাজ সেবা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক গাজী মোহাম্মদ নুরুল কবির ও ইউনির্ভাসেল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের চেয়ারম্যান প্রীতি চক্রবর্তী চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন।

প্রীতি চক্রবর্তী জানান, এই রিসোর্ট তৈরিতে প্রায় ছয় একর জায়গা এবং অন্যান্য সহযোগিতা দেবে সমাজ সেবা অধিদপ্তর। এখানে ১০০টি নিরাপদ আবাসন, ৫০ শয্যার একটি বিশেষায়িত হাসপাতাল, খোলা মাঠ, জলাশয় ও সবুজের সমারোহ থাকবে।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন অর্থ প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান, সমাজ কল্যাণ সচিব মো. জিল্লার রহমান, পিপিপি প্রধান নির্বাহী সৈয়দ আফসর এইচ উদ্দিন, ইউনির্ভাসেল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. আশীষ কুমার চক্রবর্তী।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, দেশে পুরুষের গড় আয়ু ৭০ বছর এবং নারীদের ৭২ বছর। যা কখনো কখনো ৮০ থেকে ৯০ বছরও ছাড়িয়ে যাচ্ছে। দেশে বর্তমানে ষাটোর্ধ্ব প্রবীণদের সংখ্যা দেড় কোটিও বেশি। যা মোট জনসখ্যার সাত ভাগ। বছরে প্রবীণ বৃদ্ধি পাচ্ছে চার দশমিক ৪১ শতাংশ। এ বৃদ্ধি হার জন্মহারের চেয়ে বেশি।

এ ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকলে আগামী ২০৩০ সালে ষাটোর্ধ্ব প্রবীণদের সংখ্যা দাঁড়াবে সোয়া দুই কোটি এবং ২০৩০ সালে হবে চার কোটি। এজন্য প্রবীণদের পুনর্বাসন প্রয়োজন। আর এ বিষয়টি মাথায় রেখে সিনিয়র সিটিজেন মেডিক্যাল রিসোর্ট ‘অবসর- আমার আনন্দ ভুবন’ নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তাদের জমিটি সরকারের পক্ষ থেকে দেয়া হয়েছে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.